বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বড় জাহাজ ভেড়াতে সমস্যা নেই

আপডেট : ২০ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:১৫ এএম

চট্টগ্রাম বন্দরে বিদ্যমান সুযোগ-সুবিধার মধ্যে এখনই ভেড়ানো যাবে বড় দৈর্ঘ্যরে জাহাজ। শুধু দৈর্ঘ্য নয়, বেশি ড্রাফটের (গভীর) জাহাজ ভেড়াতেও কোনো সমস্যা নেই। চট্টগ্রাম বন্দর নিয়ে গত তিন বছর ধরে গবেষণা করা যুক্তরাজ্যের বিশ^খ্যাত প্রতিষ্ঠান এইচআর ওয়ালিংফোর্ড তাদের রিপোর্টে এ সুপারিশ করেছে। আর তাদের সুপারিশ চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের বোর্ড সভায় অনুমোদনও পেয়েছে। সেই আলোকে পরবর্তী পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ।

চট্টগ্রাম বন্দরের জেটিতে (যেখানে জাহাজ ভেড়ানো হয়) বর্তমানে সর্বোচ্চ ১৯০ মিটার দৈর্ঘ্য ও  ৯ দশমিক ৫ মিটার ড্রাফটের জাহাজ ভেড়ানো হয়ে থাকে। এর চেয়ে বড় দৈর্ঘ্যরে জাহাজ ভেড়ানো নিয়ে গত কয়েক বছর ধরে আলোচনা চলছিল। সেই আলোকে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ কর্ণফুলী নদী ও চ্যানেল (যেখান দিয়ে জাহাজ চলাচল করে) নিয়ে স্টাডি করার জন্য বিশ^ব্যাপী নেভিগেশন (জাহাজ) চ্যানেল নিয়ে গবেষণা করা যুক্তরাজ্যের এইচআর ওয়ালিংফোর্ডকে দায়িত্ব দেয়। প্রতিষ্ঠানটি গত সেপ্টেম্বরে তাদের রিপোর্ট বন্দর কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দেয়।

বন্দর কর্তৃপক্ষের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এইচআর ওয়ালিংফোর্ডকে মূলত তিনটি প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে দেওয়া হয়েছিল। প্রথমত ছিল বিদ্যমান অবকাঠামোতে চট্টগ্রাম বন্দরে বেশি দৈর্ঘ্যরে জাহাজ ও বেশি গভীরতার জাহাজ ভেড়ানো যাবে কি না? দ্বিতীয়ত, চট্টগ্রাম বন্দরের বিদ্যমান অবস্থায় উভয়পাড়ের কোনো স্থানকে বন্দরের জেটি বা ইয়ার্ড সংক্রান্ত কাজে ব্যবহার করা যাবে কি না? তৃতীয়ত, চট্টগ্রাম বন্দরে দীর্ঘমেয়াদিভাবে সর্বোচ্চ কত বড় দৈর্ঘ্য ও বেশি ড্রাফটের জাহাজ ভেড়ানো যাবে? এসব প্রশ্নের উত্তর জানতে ওয়ালিংফোর্ড ২০২০ থেকে কর্ণফুলী নদী নিয়ে গবেষণা করে এবং রিপোর্ট প্রদান করে।

রিপোর্ট প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের চিফ হাইড্রোগ্রাফার এম আরিফুর রহমান দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘ওয়ালিংফোর্ড এখনই চট্টগ্রাম বন্দরে ২০০ মিটার দীর্ঘ ও ১০ মিটার জাহাজ ভেড়ানোর সুপারিশ করেছে। অর্থাৎ আমরা চাইলে এখনই ভেড়াতে পারব। তবে বন্দরের বহির্নোঙর (সাগর ও নদীর মিলিত স্থানের কাছে), গুপ্তা বেন্ড (গুপ্তা খালের কাছের বাঁক), কাটিং বেন্ড (নৌবাহিনীর জেটির কাছের বাঁক), বাকলিয়ার চর ও সদরঘাট এলাকায় ড্রেজিং করলে সর্বোচ্চ ২২৫ মিটার দীর্ঘ ও ১১ মিটার ড্রাফটের জাহাজ ভেড়ানো যাবে।’

বন্দরের হাইড্রোগ্রাফি ও মেরিন ডিপার্টমেন্টের একাধিক কর্মকর্তা জানান, এখন ২০০ মিটার দীর্ঘ ও ১০ মিটার ড্রাফটের একটি জাহাজ পরীক্ষামূলকভাবে ভেড়ানো যেতে পারে। প্রথমে একটি জেটিতে এবং পরবর্তীকালে বাকি জেটিগুলোতে ভেড়ানোর মাধ্যমে বন্দর এ লক্ষ্যে উন্নীত হতে পারে। আর পরীক্ষামূলকভাবে সফল হওয়ার পর আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা দিয়ে দৈর্ঘ্য ও ড্রাফটের বিষয়টি জানানো হবে। আর তা জানানো হলে বিদেশি শিপিং কোম্পানিগুলো বড় জাহাজ আনবে চট্টগ্রাম বন্দরে।

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের মুখপাত্র ও সচিব ওমর ফারুক দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘ওয়ালিংফোডের রিপোর্ট আমরা গ্রহণ করেছি। এখন সেই রিপোর্টের আলোকে কখন কোন সুপারিশ বাস্তবায়ন করা হবে তা পর্যায়ক্রমে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

বড় দৈর্ঘ্যরে জাহাজ ও বেশি ড্রাফটের জাহাজ ভিড়লে বেশি কনটেইনার নিয়ে চট্টগ্রাম বন্দরে জাহাজ আসবে উল্লেখ করে চিটাগং চেম্বারের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও বন্দরের কনটেইনার হ্যান্ডেলিং সংস্থা সাইফ পাওয়ারটেকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তরফদার রুহুল আমিন দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘বেশি কনটেইনার নিয়ে জাহাজ চট্টগ্রাম বন্দরে ভিড়তে পারলে জাহাজের ভাড়া কমে আসবে। আর ভাড়া কমে এলে পণ্যের দামও কমে আসবে এবং ভোক্তাপর্যায়ে জনগণ এর সুবিধা পাবে।’

এ বিষয়ে বিভিন্ন শিপিং কোম্পানির সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বর্তমানে চট্টগ্রাম বন্দরে সর্বোচ্চ ২৪০০ একক কনটেইনারবাহী জাহাজ ভিড়তে পারে। এখন দৈর্ঘ্য ২০০ মিটার ও ড্রাফট ১০ মিটারে উন্নীত করা হলে সর্বোচ্চ ৩০০০ একক কনটেইনারবাহী জাহাজ ভিড়তে পারবে। এতে জাহাজের সংখ্যা কমে আসবে এবং পণ্য হ্যান্ডেলিংয়ে আরও সহজ হবে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত