সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সাফল্য শুধু নিজের আর ব্যর্থতা অন্যের

আপডেট : ২২ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:৪৭ পিএম

একটি উন্নয়নশীল অর্থনীতির সার্বিক ব্যবস্থাপনায় সুসমন্বয়ের প্রয়োজনীয়তা অপরিহার্য। যেমন অপরিহার্য একটি সার্থক সংগীত নির্মাণে গীতিকার, সুরকার, কণ্ঠশিল্পী ও বাদক যন্ত্রীদের সমন্বিত ও আন্তরিক প্রয়াস। অর্থ বিভাগ জাতীয় বাজেট প্রণয়ন করে ঠিকই কিন্তু সেই বাজেটের আয়-ব্যয়ের চাহিদা প্রাক্কলন সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় থেকেই আসে এবং বাজেট বরাদ্দের পর তা ব্যয়ন, বাস্তবায়ন সব মন্ত্রণালয়গুলোই করে থাকে। সুতরাং বাজেট ব্যবস্থাপনায় অর্থ বিভাগের দায়িত্ব একক নয় এবং এর সাফল্য ব্যর্থতার দায়ভার অবশ্যই সবার। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় দেশের আমদানি-রপ্তানির নীতিনির্ধারণ করে মাত্র। কিন্তু আমদানি-রপ্তানির সার্বিক পারঙ্গমতা বেসরকারি খাতের ওপর একান্তভাবে নির্ভরশীল। কৃষি মন্ত্রণালয় কৃষি খাতের উপায় উপকরণ থেকে শুরু করে চাষাবাদসহ যাবতীয় বিষয়-আশয়ের নীতি নিয়মকানুন ভালোমন্দ তদারকি করে থাকলেও কৃষি কাজে নিয়োজিত দেশের শতকরা ৭০ ভাগ জনগোষ্ঠীই কৃষি উৎপাদন বিপণনের সফলতা-ব্যর্থতার ভাগীদার। একই অবস্থা সব খাত ও ক্ষেত্রে। আমাদের জাতীয় বাজেটের সর্বমোট ব্যয়ের গড়ে ৭০ ভাগ অর্থায়ন হয় অভ্যন্তরীণ সম্পদ দ্বারা যার আহরণের প্রশাসনিক দায়দায়িত্ব জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের। কিন্তু রাজস্ব বোর্ড নিজে ব্যবসা বাণিজ্য, বিনিয়োগ করে না, সম্পদ সৃষ্টিতে কোনো ভূমিকা রাখে না। যারা আয় করেন, যাদের ওপর আয়কর আরোপিত হওয়ার বিষয়, যারা ভোগ করেন, যাদের ওপর ভ্যাট প্রযোজ্য এবং যারা আমদানি করেন, যাদের ওপর আমদানি শুল্ক প্রযোজ্য তাদের কৃতকর্মের ওপর কর আহরণের গতিপ্রকৃতি নির্ভরশীল। আবার ব্যক্তি বা কোম্পানির আয় শুধু ব্যক্তি বা কোম্পানির দক্ষতা-অদক্ষতার ওপর একান্তভাবে নির্ভরশীল নয়। যে পরিবেশে বা যে ব্যবসায় বা যে কর্মকাণ্ডের মধ্য থেকে ব্যক্তি বা কোম্পানি আয় উপার্জন করে সে পরিবেশ, সে লোকবল, সে ব্যবসা বা সে কর্মকাণ্ড নিরাপদ সঞ্চালনের ওপর  নির্ভরশীল। একই অবস্থা ভোক্তা ও আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যের বেলায়ও প্রযোজ্য। সুতরাং সামষ্টিক অর্থনীতির সামষ্টিকতা সর্বত্র পরিব্যাপ্ত। 

দেখা যাচ্ছে কার্যকারণের সঙ্গে ফলাফলের আন্তঃযোগাযোগ বা আন্তঃসম্পর্ক পরস্পর প্রযুক্ত ও নিবিড়ভাবে নির্ভরশীল। যে কোনো পর্যায়কে তাই বিচ্ছিন্নভাবে দেখার সুযোগ নেই, দীর্ঘমেয়াদে অর্জিত সাফল্যকে একটি  সীমাবদ্ধ সময়ের অবয়বে শুধু নিজেদের সাফল্য হিসেবে দেখার, প্রচারের ও প্রগলভতা প্রকাশের সুযোগ নেই। সামষ্টিকতার সামষ্টিকতাই থাকে না যদি কজ আর ইফেক্টের মধ্যকার পরস্পর প্রযুক্ততার বিষয়টি নিরপেক্ষভাবে নৈর্ব্যক্তিক বিশ্লেষণে যাওয়া না হয়। অর্থনীতির ক্ষতিকর যে কোনো অপপ্রয়াসের সামনের ও নেপথ্যের উভয় কারণের প্রতি দৃষ্টিদান সমাধান প্রত্যাশা ও প্রয়াসকে পরিপূর্ণ রূপ দিতে পারে। কার্যকারণ ছাড়া কোনো কিছু উদ্ভব হয় না। শুধমাত্র উদ্ভূত পরিস্থিতি কিংবা উপস্থাপিত ফলাফলকে সমালোচনার কাঠগড়ায় না এনে একই সঙ্গে কী কারণে এই পরিস্থিতির উদ্ভব কিংবা এই ফলাফলের উপলক্ষকেও বিচার বিশ্লেষণের আর্জিতে আনার আবশ্যকতা অনস্বীকার্য। দৃষ্টিভঙ্গি সীমাবদ্ধ হলেই যে কোনো ফলাফলকে নানান অবয়বে উপস্থাপন ও সমালোচনা চলে। তার দাবি, প্রয়োজন ও চাহিদামতো পুষ্টিকর খাবার না পেলে কোনো শিশু ক্ষুধায় কাঁদলে, হাত-পা ছুড়ে একাকার করতে থাকলে তাকে ‘কাঁদুনে শিশু’ বলে অপবাদ দেওয়ার অপপ্রয়াস নিশ্চয়ই সীমাবদ্ধ দৃষ্টিভঙ্গিপ্রসূত।

দেশের অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনা এককভাবে কোনো মন্ত্রণালয় বা কর্তৃপক্ষের বা কর্তৃত্বের হতে পারে না। এর সঙ্গে সবার সংঘবদ্ধ অথচ স্ব স্ব দায়িত্ব কর্তব্য পালনের ওপর নির্ভরশীলতাকে মানতেই হবে সুতরাং সামগ্রিক অবয়বে দেখেই বিচার করতে হবে সব ফলাফলকে। সামষ্টিক অর্থনীতির সামষ্টিকতায় প্রধান সীমাবদ্ধতা এখানে যে প্রত্যেকে বিচ্ছিন্ন দ্বীপে অবস্থান করেই দ্বীপপুঞ্জের সাফল্য ও কল্যাণ কামনা করা হয়। সবার সাফল্য শুধু নিজের বলে জাহির আবার নিজের ব্যর্থতাকে অন্যের ওপর চাপানোর মানসিকতা সব সমন্বয় ও সাযুজ্যকরণকে বাধাগ্রস্ত করে। পরস্পরের দোষারোপের দ্বারা ঐক্যবদ্ধ চেতনা বিকাশ লাভ করে না, সবার প্রয়াস এক সুরে বাঁধা যায় না, হয় না। উন্নয়নের তানপুরায় বারবার ধূলি জমে আর সেখানে ঐকমত্যের সুর সাধা বেসুরো ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়।

একান্ন বছর বয়সী বাংলাদেশের সামষ্টিক অর্থনীতির সূচকসমূহের প্রতি দৃষ্টি দিলে দেখা যাবে সময়ের অবসরে প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে তাৎপর্যপূর্ণ পরিবর্তন ঘটেছে। পরস্পর প্রযুক্ত সাহায্য-সহযোগিতা যেমন একে বলবান করেছে, আবার আত্মঘাতী পদক্ষেপের দ্বারা অগ্রযাত্রাকে চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি দাঁড় করিয়েছে। এ সাফল্য ও ব্যর্থতায়, আনন্দ ও সর্বনাশে দেশের শিল্পনীতি, সঞ্চয় ও বিনিয়োগ পরিবেশ এবং পুঁজিবাজারের পথপরিক্রমার সামষ্টিক দৃষ্টিভঙ্গির স্বরূপ সন্ধানে আমরা লক্ষ করি এক বিচিত্র গতিপ্রকৃতি।

কোন পদক্ষেপ অর্থনীতির জন্য সুদূরপ্রসারী সুফল বয়ে আনতে পারে তা চটজলদি বলা মুস্কিল, তবে যে কোনো পদ্ধতির ভালোমন্দ উভয় দিক যেহেতু আছে ভালো দিকটা যাতে প্রতিভাত হয় সে জন্য সময় ও মেধা প্রয়োগ সমীচীন। বিগত পাঁচ দশকে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অভিযাত্রায় টেকসই উন্নয়ন প্রয়াস প্রচেষ্টা অধিকাংশ ক্ষেত্রে অত্যন্ত সাময়িক, সীমিত ও খণ্ডিত দৃষ্টিভঙ্গির অবয়বে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর্যায়েই রয়ে গেছে। শিল্পনীতিসমূহে ঘোষিত নীতিমালায় দ্রুত শিল্পায়নের উচ্চভিলাষী ও পরিকল্পিত প্রত্যাশার প্রতিফলন ঘটলেও তার সফল বাস্তবায়ন, নিদেনপক্ষে ফলাফল যাচাইয়ের জন্য প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-পর্যালোচনার অবকাশ মেলেনি। ১৯৮২ সালের শিল্পনীতিতে উচ্চারিত বক্তব্য ১৯৮৬, ১৯৯২, ১৯৯৬, ১৯৯৯ এবং ২০১০ এর  শিল্পনীতিতে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে একই বলয়ে রয়ে গেলেও দেশের শিল্পায়ন পদ্ধতি প্রক্রিয়ায় এ তিনটি দশকে বেসরকারি খাতের কিছুটা বিকাশ প্রত্যক্ষ করা গেছে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে বেসরকারি খাত নিজস্ব উদ্যোগে উদ্ভূত সমস্যাবলি নিজেরা মোকাবিলা করে নিজেদের মতো করে ওপরে উঠছে। পাবলিক সেক্টর এ সময় আরও লোকসানি প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। বিপুল বিদেশি অর্থের বিনিয়োগ ঘটিয়েও শিল্প সহায়ক সংস্থা (টেলিফোন, বিদ্যুৎ, যোগাযোগ, বন্দর) অবকাঠামোগত সহায়তার পূর্ণাঙ্গ সুযোগ সৃষ্টি করতে পারেনি। বরং কোনো কোনো ক্ষেত্রে বিদেশি পুঁজির অবাধ প্রবেশে নিজেদের ব্যবস্থাদি আরও দুর্বল হয়েছে। সবল হওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে করতে নিজস্ব সক্ষম শক্তিগুলো বয়োবৃদ্ধির ভারে ন্যুব্জ হয়ে পড়েছে। দেশজ উৎপাদন বৃদ্ধির পরিসংখ্যান বাস্তবের কাছাকাছি পৌঁছাতে গিয়ে পরিবর্তিত হয়েছে বারবার আর উক্ত খণ্ডিত ও অসম্পূর্ণ পরিসংখ্যানের আলোকে প্রণীত শুল্ক, কর আরোপ ও অন্য ব্যবস্থাদি বাস্তব ক্ষেত্রে কখনো বা অপ্রতুল, ক্ষেত্রবিশেষ অপ্রাসঙ্গিক এবং কোথাও কোথাও নিরুৎসাহমূলক প্রতীয়মান হয়েছে। ব্যবসায়ী সংগঠন সমিতি থেকে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের কাছে শুল্ক করাদির ক্ষেত্রে নিষ্কৃতি কিংবা হ্রাসকরণের দাবি পেশ কালে দাবির সমর্থনে তথ্য-উপাত্তভিত্তিক বিশ্লেষণাত্মক যুক্তি যথাযথভাবে উপস্থাপনে প্রায়শ অপারগ থেকেছেন।

সঞ্চয় বিনিয়োগের প্রধানতম পূর্বশর্ত। জনগণের মাথাপিছু আয়ের মৌল স্তর বৃদ্ধি ছাড়া কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও বৃদ্ধির চিন্তাচেতনা বাস্তবসম্মত নয়। সামাজিক কল্যাণ খাতে উন্নয়ন নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নয়ন ঘটিয়ে সঞ্চয় বাড়ানোর পরিবেশ সৃষ্টি হতে পারে। ক্যালরি ইনটেক বাড়িয়ে, বিশুদ্ধ পানি ও মৌল স্বাস্থ্যসেবার আওতায় (জনস্বাস্থ্য) সুবিধা সৃষ্টির মাধ্যমে মৃত্যুর হার কমিয়ে জন্মহারকে সুষম নিয়ন্ত্রণ, অন্ন-বস্ত্র-বাসস্থান সংক্রান্ত মৌলিক চাহিদা পূরণ এবং কাজ সৃষ্টির মাধ্যমে জনগণের মৌলিক আয়ের স্তর বাড়ানো সম্ভব হতে পারে। শিক্ষা, চিকিৎসা খাতে ব্যক্তিগত ব্যয়ের মাত্রা কমিয়েও সঞ্চয়ের সুযোগ সৃষ্টি হতে পারে। সঞ্চয়কে উৎসাহিত করতে ব্যাংকিং সৃবিধা বৃদ্ধির বিকল্প নেই। বিদেশি সাহায্য ও ঋণনির্ভর অর্থনীতিতে সঞ্চয় প্রত্যাশা করা বাতুলতা মাত্র বিধায় জাতীয় উন্নয়ন পরিকল্পনায় দেশজ সম্পদ উন্নয়নে গৃহীত পরিকল্পনা নিজস্ব উপায়ে বাস্তবায়ন সক্ষমতার সমাহার আবশ্যক। বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশগুলোর তুলনায় বাংলাদেশের সরকারি ও বেসরকারি খাতে বিনিয়োগ হার এখনো নিম্নে। বিনিয়োগ হার বৃদ্ধির লক্ষ্যে কার্যকর ও সহনশীল পদক্ষেপ গ্রহণ আবশ্যক। দেখা গেছে বেসরকারি খাতের উন্নয়নে ১৯৭৩ সালে শিল্পনীতিতে ঘোষিত সংরক্ষণবাদী বিধানাবলি ১৯৮২ সালে অপসারিত হলেও ১৯৯১ এর আগে বেসরকারি খাতে প্রকৃত বিনিয়োগ হয়নি। আবার, ১৯৭৬, ১৯৮২, ১৯৮৬’র শিল্পনীততে গার্মেন্টস শিল্প খাতে উন্নয়ন বিষয়ক কোনো পরিকল্পনার আভাস-ইঙ্গিত ততটা না থাকলেও এ-খাতে বিনিয়োগ হয়েছে অভাবিতপূর্ব। শিল্পনীতিতে আবকাঠামো, খাদ্য, কৃষি ও ক্ষুদ্রশিল্প খাতের উন্নয়নে যথাযথ সহায়তা ও প্রযত্ন প্রদানের পর্যাপ্ত ক্ষমতা রাখা হয়নি পোষক প্রতিষ্ঠানগুলোর হাতে। সীমিত ক্ষমতা প্রয়োগের উদ্যোগও লক্ষণীয় হয়ে ওঠেনি। সমন্বয়হীনতা এক্ষেত্রে অন্যতম অন্তরায় হয়ে রয়ে গেছে।

বাংলাদেশের অভ্যুদয় পুঁজিবাদের প্রতি বিদ্বেষপ্রসূত হওয়ায় নিয়ন্ত্রিত অর্থনীতির প্রভাববলয়ে চলে যায় নতুন অর্থনীতির চালিকাশক্তি। সাবেক পাকিস্তান আমলে পুঁজিবাদী অর্থনীতির রেখে যাওয়া শিল্প-কারখানা বাংলাদেশ অভ্যুদয়ের পর রাষ্ট্রীয় মালিকানায় এনে সমাজতান্ত্রিক মতাদর্শে তাদের নিয়ন্ত্রণের পদক্ষেপ নেওয়া হয়। প্রকৃতপক্ষে স্থানীয় বেসরকারি খাত তখন এমন স্বয়ম্ভর ও সক্ষম ছিল না যে পরিত্যক্ত শিল্প অবকাঠামো দেখাশুনার ভার নিতে পারে। তখন রাষ্ট্রীয় নিয়ন্ত্রণ নেওয়া ছাড়া গত্যন্তরও ছিল না।

যে উদ্দেশ্য ও অভিপ্রায়কে সামনে রেখে স্বাধীনতার অব্যবহিত পরে জাতীয়করণ কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয় তা পূরণ ও বাস্তবায়নে পাবলিক সেক্টরেও দক্ষ ব্যবস্থাপনার অভাব যে প্রকট তা যথাসময়ে উপলব্ধি করা যায়নি। ফলে লাভজনক শিল্প-কারখানাগুলো অধিক লোকসান এবং এমনকি যন্ত্রপাতি যন্ত্রাংশ পাচার হওয়ার মতো দুঃখজনক পরিস্থিতির শিকার হয়। পরবর্তী সময়ে এগুলো বিএমআরই কিংবা বেসরকারি খাতে বিক্রি করাতেও বিপত্তি দেখা দিয়েছে। ফলে এগুলো জাতীয় অর্থনীতিতে জগদ্দল পাথরে পরিণত হয়েছে। পাবলিক সেক্টর দিয়ে জাতীয় অর্থনীতির উন্নয়ন সম্ভব না হলেও পাশাপাশি প্রাইভেট সেক্টরে উন্নয়নের লক্ষ্যে পদক্ষেপ গ্রহণে বিলম্ব ও উদ্যোগের অভাব আগের মতোই থাকে। সত্তরের দশকের শেষ এবং আশির দশকের শুরুতে নতুন শিল্পনীতিতে অর্থনৈতিক উন্নয়নে বেসরকারি খাতের কার্যকর অংশীদারত্ব নিশ্চিত করতে নীতিমালা ও কৌশল ঘোষিত হয়। ১৯৮২ সালের শিল্পনীতিতে বিদেশি বিনিয়োগ ও স্থানীয় পুঁজির বিকাশকে প্রত্যাশা করে রাষ্ট্রীয় নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাকে শিথিল ও বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টির আগ্রহ প্রকাশ পায়। জাতীয়করণ উদ্দেশ্য অভিপ্রায় বাস্তবায়নের মতো ১৯৮২’র শিল্পনীতি বাস্তবায়নেও বশংবদ অনীহা অদক্ষতা দেশের শিল্প বিকাশের খাত ও ক্ষেত্রকে মাঝেমধ্যে যাত্রাপথে থামিয়ে দেয়। স্থানীয় ও বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণের কর্মসূচিতে অমনোযোগিতার অবসরে কার্যকর বিনিয়োগ প্রবাহের পরিবর্তে পুঁজিবাদী বিশ্বের স্বার্থ ও সমর্থনে কম ভ্যালু এডিশন সম্পন্ন শিল্প এদেশের বাজার দখলের পাঁয়তারায় প্রবেশ করে। দেশের বেসরকারি খাতের স্বয়ম্ভর হওয়ার সুযোগ সেখানে সংকুচিত হয়ে দাঁড়ায় এবং অর্থনীতির পরনির্ভরশীলতা থেকেই যায়। উন্নত বিশ্বের পরিত্যক্ত প্রযুক্তি, যন্ত্রপাতি ও পরিবেশ দূষণকারী শিল্প অবকাঠামো বাংলাদেশের অর্থনীতি ও পুঁজিবাজারে প্রবেশ করে।

লেখক: সরকারের সাবেক সচিব এনবিআর-এর সাবেক চেয়ারম্যান

[email protected]

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত