বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বিশ্রামের গুরুত্ব ও মধ্যপন্থা অবলম্বন

আপডেট : ২২ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:৫০ পিএম

আমরা অনেক সময় কাজ করতে করতে বিশ্রামের কথা ভুলে যাই। কোনো কোনো ক্ষেত্রে অর্থের লোভ বিশ্রাম নেওয়ার কথা ভুলিয়ে দেয়। আপনি হয়তো কাজ করেই যাচ্ছেন, করেই যাচ্ছেন। চিন্তা করছেন, এইটুকু কাজ করলেই এত টাকা পাচ্ছি, আরও করি আরও পাব। এই একটু কাজ করলে তো আর মারা যাব না! কিন্তু বুঝতেই পারছেন না, কাজের চাপ এক সময় আপনাকে এতটাই দুর্বল করে দেবে, এক সময় কিছুই করতে পারবেন না। তাই মাঝে মাঝে বিশ্রাম নেওয়া অতি জরুরি। অন্ন-বস্ত্রের মতো বাসস্থানও মানুষের একটি মৌলিক প্রয়োজন। এর আসল উদ্দেশ্য হলো বিশ্রাম, শান্তি ও বসবাস।

মানুষকে সুস্থ থাকার জন্য যেমন রাতের বেলা ঘুমাতে হয়, তেমনি দিনের বেলায়ও সামান্য সময় ঘুমানো সুন্নত। দিনের এই ঘুমকে আমাদের দেশে বলা হয় ভাত-ঘুম, আরবিতে একে বলা হয় ‘কাইলুলা’। দুপুর বেলায় সামান্য ঘুমানোর রীতি আরবেও আছে, নবী কারিম (সা.)-এর যুগেও এই ঘুমের প্রচলন ছিল। সাহাবি হজরত সাহাল ইবনে সাদ (রা.) বলেন, ‘আমরা জুমার নামাজের পর দুপুরের বিশ্রাম গ্রহণ ও খাবার খেতাম।’ -সুনানে আবু দাউদ : ১০৮৬

এমনকি নবী কারিম (সা.) নিজেও দুপুর বেলা কাইলুলা করতেন বলে হাদিসের বর্ণনায় রয়েছে। দুপুর বেলায় সুন্নতের নিয়তে কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিলে একদিকে যেমন নবীজির সুন্নত পালনের সওয়াব পাওয়া যাবে, তেমনি শারীরিক ও মানসিক প্রফুল্লতা অর্জন হবে। এতো গেল শারীরিক বিশ্রামের কথা। এ ছাড়া জীবনে আরও নানা ধরনের বিশ্রামের প্রাসঙ্গিকতা বিদ্যমান।

আমরা জানি, শরিয়তের দু’টি প্রধান ও প্রতিষ্ঠিত বৈশিষ্ট্য হলো শিথিলতা ও সরলতা। এ দুটি গুণ মুসলমানকে তার ইবাদত-বন্দেগি, কাজ-কর্ম ও আচার-আচরণে সাহায্য করে। এ কারণে আমরা দেখতে পাই, আল্লাহর রাসুল (সা.) হাসি ও কৌতুক উভয়টিই করতেন। কিন্তু সত্য ছাড়া অন্য কিছু (মিথ্যা) বলতেন না। সমাজে এমন অনেক লোক রয়েছে, যারা ভালো নিয়তে অধিক পরিমাণে নফল নামাজ পড়েছে এবং ধর্ম-কর্ম পালনে চরম বাড়াবাড়ি করেছে। কিন্তু এর ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারে না। এক সময় দেখা যায়, তাদের উৎসাহ-উদ্দীপনা আগে যেমন ছিল তার চেয়ে কমে গেছে; এমনটি কাম্য নয়। ইরশাদ হয়েছে, ‘(হে মুহাম্মদ!) তোমার ওপর আমি কোরআন এ জন্য নাজিল করিনি যাতে তুমি কষ্ট পাও।’ -সুরা ত্বহা: ২

যারা নিজেদের ওপর সাধ্যাতীত বোঝা চাপায়, আল্লাহতায়ালা তাদের তিরস্কার করেন। কোরআন মাজিদে স্পষ্টভাবে বলা হয়েছে, ‘আর সন্ন্যাসবাদ, তারা একে আবিষ্কার করেছিল, আমি তাদের ওপর এ বিধান দিইনি। তবে তারা নিজেরাই আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের জন্য এটা পালন করত। কিন্তু এটাকেও তারা যথাযথভাবে পালন করেনি।’ -সুরা আল হাদিদ: ২৭

ইসলাম দেহ-মনের প্রতি সজাগ দৃষ্টি রাখার কারণে, ইহ-পরকালের পাথেয় জোগান এবং সবার কাছে স্বাভাবিকভাবে গ্রহণযোগ্য বিশ্বাস অন্তর্ভুক্তের কারণে অন্য ধর্ম থেকে ব্যতিক্রমধর্মী। ইসলামে অহির মাধ্যমে উৎসাহ দেওয়া হয়েছে, মানুষের সঙ্গে মিলে থাকতে, জ্ঞানী লোকদের অনুসরণ করতে এবং ধর্মীয় ব্যাপারে সমাজের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ হয়ে থাকতে। যে ব্যক্তি নিজের ধর্ম এবং সম্পদ রক্ষায় নিজেই যথেষ্ট, তার জন্য একাকিত্ব উত্তম। তবে প্রয়োজনের সময় ও ভালোকাজে অন্যদের সঙ্গে মেশা দরকার। তা সত্ত্বেও তাকে জরুরি কাজগুলো অবশ্যই সম্পাদন করতে হবে; যেমন জামাতে নামাজ আদায়, সালামের উত্তর দেওয়া, রোগী দেখতে যাওয়া, জানাজায় হাজির হওয়া ইত্যাদি। যা দরকার তা হলো অতিমাত্রায় সামাজিক হতে গিয়ে বিভিন্ন ফেতনায় না জড়ানো, ইবাদত-বন্দেগি ভুলে যাওয়া। অতিমাত্রায় সামাজিক হওয়ার ফলে সময় নষ্ট হবে এবং অধিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়কে অবহেলা করা হবে। দেহের জন্য পানাহারের প্রয়োজন যেমন, সমাজের অন্যদের সঙ্গে মেলামেশা করা তেমন। উভয় ক্ষেত্রেই যেটুকু প্রয়োজন সেটুকু গ্রহণ করা উচিত।

ইমাম কোশাইরি (রহ.) একাকিত্ব বিষয়ে বলেছেন, যে নিঃসঙ্গতা অন্বেষণ করে তার মনে রাখা উচিত, সে এ কাজ করছে তার ক্ষতি থেকে জনগণকে বাঁচানোর জন্য এবং এর বিপরীতটা নয় (জনগণের ক্ষতি থেকে নিজেকে বাঁচানোর জন্য নয়)। এর কারণ, প্রথমজন নিজের সম্বন্ধে বিনয়ী মনোভাব পোষণ করে (মানুষকে নিজের চেয়ে ভালো মনে করা)- যা ধর্ম চায়। দ্বিতীয়জন অন্যদের ওপর নিজের বড়ত্ব আরোপ করেছে (মানুষকে নিজের চেয়ে খারাপ মনে করা)- যা মুমিনের চরিত্রে গ্রহণযোগ্য নয়।

এ বিষয়ে মানুষকে তিন শ্রেণিতে ভাগ করা যায়। দু’টি বিপরীতধর্মী, তৃতীয়টি মাঝামাঝি। প্রথম শ্রেণির মানুষ নিজেদের সাধারণ মানুষ থেকে এতটাই আলাদা করে রাখে যে, তারা জুমার নামাজে হাজির হয় না। জামাতের সঙ্গে নামাজ আদায় করে না এবং সামাজিক কল্যাণকর কোনো কাজেই যোগ দেয় না। তারা স্পষ্টভাবে ভ্রান্ত। দ্বিতীয় শ্রেণির লোকজন এতটাই সামাজিক যে, তারা মন্দ সমাবেশে অংশগ্রহণ করে- যেখানে মিথ্যা গুজব ও সময়ের অপচয় হয়। তারাও ভুলের মধ্যে রয়েছে। মধ্যপন্থি (তৃতীয় শ্রেণি) লোকেরা যেসব ইবাদত অবশ্যই জামাতে আদায় করতে হয়, সেসবে অন্যদের সঙ্গে একত্রিত হয়। ধর্ম প্রচার এবং আল্লাহকে সন্তুষ্ট করতে তারা অন্যদের সঙ্গে অংশগ্রহণ করে। যেসব সমাবেশে শয়তানি, মিথ্যা ও অপচয় হয় তারা সেগুলো এড়িয়ে চলে। ইরশাদ হয়েছে, ‘এরূপে আমি তোমাদের এক মধ্যপন্থি জাতিরূপে প্রতিষ্ঠিত করেছি।’ -সুরা বাকারা: ১৪৩

এমন মধ্যমপন্থাই ইসলামের শিক্ষা। যে শিক্ষার সঙ্গে মানবজীবনে বিশ্রামের প্রয়োজনীয়তা যেমন মিশে আছে, তেমনি রয়েছে অতি বাড়াবাড়ি, ছাড়াছাড়ি ও অলসতা ত্যাগের শিক্ষাও।

লেখক : শিক্ষক ও ইসলামবিষয়ক লেখক

[email protected]

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত