সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

তারার মেলায় খেলবেন পেলে-ম্যারাডোনা

আপডেট : ৩১ ডিসেম্বর ২০২২, ০৪:১৪ এএম

আকাশের ঠিকানায় চিঠি হয়তো লেখা যায়, কিন্তু কোনো ডাকপিওন সেই চিঠি ওপারে পৌঁছে দেয় না। বছর দুয়েক আগে ডিয়েগো ম্যারাডোনার মৃত্যুর পর যে খোলা চিঠি লিখেছিলেন পেলে, সেটা নিজেই বোধহয় নিয়ে গেলেন হাতে করে। মর্ত্যে কখনো আর্জেন্টাইন ফুটবল ঈশ্বর আর ফুটবলের রাজাকে একই দলে সতীর্থ হয়ে খেলতে দেখা যায়নি। স্বর্গে নিশ্চয়ই দেশের সীমানা, রাজনীতি এসব কিছু নেই। ওপারে নিশ্চয়ই একই জার্সিতে খেলবেন পেলে আর ম্যারাডোনা।

বছর দুই আগে, নভেম্বরের ২৫ তারিখে ধুলোর পৃথিবী ছেড়ে স্বর্গলোকে পাড়ি জমিয়েছিলেন আর্জেন্টাইন ফুটবল ঈশ্বর। তার ধরাধামে আগমনের আগেই ফুটবলের রাজা সিংহাসনে বসে গেছেন ১৯৫৪’র বিশ্বকাপে। ম্যারাডোনা পৃথিবী ছাড়লেন ২০২০ সালে, পেলে আরেকটু বেশি দিন বাঁচলেন। দুজনের খেলোয়াড়ি জীবনের সেরা সময়ে কেউই একে অন্যের প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন না, তবুও দুজনের শ্রেষ্ঠত্ব নিয়ে তুলনা হয়েছে প্রতিনিয়ত। দুজনের সম্পর্কে তিক্ততাও ছিল একটা সময়ে। একই সময়ে দুজনেরই আত্মজীবনী প্রকাশিত হয়। দুজনেই দুজনের আত্মজীবনীতে অন্যকে নিয়ে বেশ বিরূপ কথাবার্তাই লিখেছেন। ম্যারাডোনা লিখেছিলেন যে, পেলের সঙ্গে সান্তোসের এক কোচের সমকামী সম্পর্ক আছে। অন্যদিকে পেলে আজীবন খেলায় মাদকের প্রভাবের বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিলেন; ম্যারাডোনার মাদক গ্রহণের ব্যাপারে পেলে বলেছিলেন যে, এসব ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে উৎসাহিত করে। সব মিলিয়ে দুজনের  ভেতর সম্পর্কে একটা তিক্ততা থাকলেও পরে বরফ গলে এবং দুজনেই বেশ সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখেন।

ম্যারাডোনার মৃত্যুর দিন সাতেক পর বন্ধুকে আকাশের ঠিকানায় চিঠি লিখেছিলেন পেলে। হৃদয়ের অনুভূতিগুলো শব্দের অক্ষরে হয়ে উঠেছিল এক বিয়োগগাথা; পেলে লিখেছিলেন, ‘তুমি নেই সাত দিন হয়ে গেল। সারাটা জীবন অনেকেই আমাদের তুলনা করে গেছে। তুমি ছিলে এক প্রতিভা, যার দ্যুতিতে বিমোহিত ছিল গোটা বিশ্ব। তুমি ছিলে বল পায়ে এক জাদুকর, সত্যিকারের কিংবদন্তি। তবে সবকিছুর ওপরে তুমি ছিলে আমার খুব কাছের বন্ধু। একজন বড় হৃদয়ের মানুষ।

আজকে আমি জানি, পৃথিবীটা আরও সুন্দর হতে পারত যদি আমাদের দুজনকে নিয়ে এত তুলনা না হতো আর আমরা পরস্পরকে আরও বেশি শ্রদ্ধা করতে পারতাম। আমি শুধু এতটুকুই বলতে চাই, তোমার কোনো তুলনা হয় না।

তোমার ক্যারিয়ারজুড়ে ফুটবল খেলেছ বিশুদ্ধ আবেগ দিয়ে। আর তোমার মতো করে, তোমার পন্থায় তুমি আমাদের শিখিয়েছ প্রতিটা দিন কী করে ‘ভালোবাসি’ কথাটা বলতে হয়। তুমি আগেভাগেই চলে গেলে, তাই আমাকে কথাটা বলার সুযোগ দিলে না। আজ বলছি, ডিয়েগো তোমায় অনেক ভালোবাসি।

হে আমার প্রিয় বন্ধু, জীবনের এই যাত্রায় পাশে থাকার জন্য ধন্যবাদ। একদিন স্বর্গে নিশ্চয়ই আমরা একই দলের হয়ে খেলব। আর সেদিনই আমি গোল না করেও হাত উঁচিয়ে উদযাপন করব। কারণ সেদিনই যে আমি অবশেষে তোমাকে আবার জড়িয়ে ধরতে পারব।’

সেই দিনটা এসেই গেল অবধারিত ভাবে। সাও পাওলোর আলবার্ট আইনস্টাইন হাসপাতালে পেলে ভর্তি হয়েছিলেন বেশ কিছুদিন আগে, ডাক্তাররা শেষ চেষ্টা করছিলেন। কিছুদিন আগে পেলের পরিবারের সব সদস্য দেখা করেন তার সঙ্গে, বড়দিনের দিন সবাই ছিলেন হাসপাতালে। পেলের মেয়ে কেলি নাসিমেন্তোর ইন্সটাগ্রাম অ্যাকাউন্ট এর পোস্টগুলো থেকেই জানা যাচ্ছিল, সবাই আসলে তৈরি হচ্ছিলেন ফুটবলের রাজার অন্তিম যাত্রার জন্য।

পেলের নশ্বর দেহ পড়ে থাকবে মর্ত্য,ে তার আত্মা নিঃসন্দেহে পৌঁছে গেছে স্বর্গলোকে। ৮২ বছরের দীর্ঘ জীবনে পেলে অনেককেই দেখেছেন পৃথিবীর অধ্যায় শেষ করে অনন্তলোকে পাড়ি জমাতে। ইয়োহান ক্রুইফ না ফেরার দেশে চলে যাওয়ার পর পেলে শোক প্রকাশ করেছিলেন এভাবে, ‘ইয়োহান ক্রুইফ ছিল অসাধারণ এক খেলোয়াড় এবং কোচ। আমাদের ফুটবল পরিবারে সে খুবই গুরুত্বপূর্ণ এক উত্তরাধিকার রেখে যাচ্ছে। আমরা অসাধারণ এক মানুষকে হারিয়েছে। আমরা যেন তার উৎকর্ষতার উদাহরণ মেনে চলতে পারি।’ পর্তুগাল কিংবদন্তি ইউসেবিওর মৃত্যুর পর পেলে লিখেছিলেন, ‘ইউসেবিও ছিল আমার ভাইয়ের মতো, তার মৃত্যুতে খুবই শোকাহত।’

অনন্তলোকে গিয়ে নিশ্চয়ই ম্যারাডোনার পাশাপাশি ক্রুইফ, ইউসেবিও সবাইকে নিয়েই একসঙ্গে খেলবেন পেলে। কী দারুণ একটা দলই না হবে সেটা! হাফটাইমে নিশ্চয়ই পেলে তাদের শোনাবেন এক খুদে জাদুকরের বিশ্বকাপ জেতার গল্পটা। কারণ এই কিংবদন্তিদের কেউই তো লিওনেল মেসিকে বিশ্বকাপ জিততে দেখে যেতে পারেননি। ম্যারাডোনা নিশ্চয়ই জানতে চাইবেন, আর্জেন্টিনাবাসী কি ভুলে গিয়েছে ডিয়েগোকে? পেলে হয়তো তখন বলবেন ‘না, মেসির মাঝেই তারা খুঁজে নিয়েছে তাদের প্রিয় ডিয়েগোকে।’

স্বর্গ থেকেই ফুটবলের দেবতা হয়তো এসেছিলেন মর্ত্য,ে পেলের বেশ ধরে। তিনিই ফিরে গেলেন অনন্তলোকে। পেছনে পড়ে রইল তিনটা বিশ্বকাপ আর কত স্মৃতি।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত