বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

অপ্রস্তুত বাণিজ্যমেলা হতাশ দর্শনার্থীরা

আপডেট : ০৩ জানুয়ারি ২০২৩, ০৬:২৫ এএম

পূর্বাচল উপশহরে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টারের স্থায়ী প্যাভিলিয়নে বসেছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলার ২৭তম আসর। গতবারের চেয়ে এবারের আসর আরও বেশি জাঁকজমকপূর্ণভাবে সাজিয়েছে আয়োজক প্রতিষ্ঠান রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি)। গত পহেলা জানুয়ারি মেলার উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মেলা উদ্বোধনের পর দর্শনার্থী উপস্থিতি তেমন না থাকলেও দ্বিতীয় দিন গতকাল সোমবার দর্শনার্থীর সংখ্যা ছিল চোখে পড়ার মতো। তবে দ্বিতীয় দিনেও ৩০ শতাংশ স্টলের নির্মাণকাজ শেষ হয়নি। যে কারণে হতাশা নিয়ে মেলা থেকে ফেরেন দর্শনার্থীরা।

ইবিপির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, গত বছর বাণিজ্যমেলার ২৬তম আসরে মোট ২২৫টি দোকান বরাদ্দ দেওয়া হলেও এ বছর বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ৩৩১টি। যার মধ্যে ছোট-বড় মিলিয়ে প্যাভিলিয়ন রয়েছে ৫৭টি। এবারের মেলায় ভারত, পাকিস্তান, হংক ও তুরস্কসহ অন্তত ১২টি দেশের ব্যবসায়ীরা অংশগ্রহণ করছেন। এবার মেলার প্রধান ফটক করা হয়েছে মেট্রোরেলের আদলে। এই আসরে মেলার আয়তনও বাড়ানো হয়েছে অনেকটা। সবমিলিয়ে মেলা সফল করতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে ইপিবি। মেলায় প্রবেশ ফি ৪০ টাকা, শিশুদের জন্য তা নির্ধারণ করা হয়েছে ২০ টাকা। শারীরিক প্রতিবন্ধী ও মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য কোনো প্রবেশ ফি নেই। নিরাপত্তার স্বার্থে সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হয়েছে মেলার প্রতিটি অংশে।

সরেজমিনে গতকাল দুপুর গড়িয়ে বিকেল হতে না হতেই মেলায় দর্শনার্থীর ভিড় দেখা গেছে। তবে মেলার মূল ভবনের পশ্চিমাংশের বেশিরভাগ স্টলের নির্মাণকাজ এখনো শেষ হয়নি। হাতুড়ির ঠুব ঠাক শব্দে মুখরিত ছিল মেলা প্রাঙ্গণ। মূল ভবনের পূর্বপাশে ইলেকট্রনিকস, কসমেটিকস ও ফার্নিচারের শো-রুমের জন্য জায়গা দেওয়া হয়েছে। এখনো বেশকিছু ফার্নিচারের দোকানের নির্মাণকাজ চলছে। এছাড়া বেশকিছু দোকানের নির্মাণকাজ শেষ হলেও মালামাল সাজাতে ব্যস্ত সময় পার করতে দেখা যায় কর্মীদের। মেলার মূল ভবনের পেছনে নির্মাণকাজের জন্য ব্যবহৃত কাঠ-বাঁশসহ বিভিন্ন সামগ্রী পড়ে থাকতে দেখা যায়। যে কারণে মেলার সৌন্দর্য অনেকটাই নষ্ট হচ্ছে। তবে আগামী ৪-৫ দিনের মধ্যে সবগুলো স্টলের নির্মাণকাজ শেষ হয়ে যাবে বলে ব্যবসায়ীরা জানান।

মেলায় আসা একাধিক দর্শনার্থী দেশ রূপান্তরকে বলেন, প্রতি বছরই অপ্রস্তুত অবস্থায় মেলা শুরু করা হয়। মেলা শুরু হয়ে যাওয়ার পরও নির্মাণকাজ চলে, যা খুবই হতাশাজনক। দর্শনার্থীরা দূরদূরান্ত থেকে মেলায় ঘুরতে আসেন। কিন্তু টাকা দিয়ে টিকিট কেটে ভেতরে ঢুকে মেলা প্রাঙ্গণ অপ্রস্তুত দেখতে পাওয়াটা দুঃখজনক। মেলা শুরুর আগেই সব স্টলের নির্মাণকাজ যাতে শেষ হয় সে বিষয়ে কড়া নজরদারি রাখা উচিত ইপিবি কর্র্তৃপক্ষের।

মেলার মাঠে এই প্রতিবেদকের কথা হয় রাজধানীর উত্তরা থেকে আসা আদনানুল হকের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘স্ত্রীসহ পরিবারের সদস্যদের নিয়ে অনেক প্রত্যাশা নিয়ে আজ মেলায় ঘুরতে এসেছিলাম। মেলার সামনের দিকের পরিবেশ অনেক চাকচিক্যময় ও সুন্দরভাবে সাজানো হয়েছে। তবে মেলার অনেক অংশে এখনো অনেক দোকানের নির্মাণকাজ চলছে। যা আমাদের জন্য খুবই হতাশাজনক। মেলা উদ্বোধনের পরও যদি নির্মাণকাজ চালাতে হয় তাহলে মেলা শুরুর আগে তারা কী করেছে?’

কথা হয় নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার থেকে আসা আনিশার সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘বান্ধবীদের সঙ্গে মেলায় ঘুরতে এসেছি। এসে দেখি মেলার মাঠ এখনো পুরোপুরি প্রস্তুত না। তাই হতাশা নিয়েই বাড়ি ফিরে যাচ্ছি। এছাড়া মেলার দোকানগুলোতে কসমেটিকস ও অন্যান্য পণ্যের দাম তুলনামূলক অনেক বেশি মনে হচ্ছে। যেটি হতাশ করেছে আমাদের। এছাড়া মেলায় আসতে এশিয়ান হাইওয়ে বাইপাসে দীর্ঘ যানজট পেয়েছি।’

দোকানের নির্মাণকাজ শেষ না হওয়ার কারণ জানতে চাইলে একাধিক ব্যবসায়ী বলেন, ঢাকা থেকে মেলা পূর্বাচলে স্থানান্তর হওয়ায় তাদের জন্য কিছুটা অসুবিধা হয়েছে। দোকানের জন্য কর্মচারী নিয়োগ এবং মালামাল আনা-নেওয়ার ঝামেলার কারণে অনেকেরই দোকান নির্মাণে কিছুটা দেরি হয়েছে।

সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে ইপিবির সচিব ইফতেখার আহম্মেদ চৌধুরী বলেন, ‘প্রতি বছরই মেলা শুরুর দুই-তিনদিন পর স্টল নির্মাণ সম্পন্ন হয়। আশা করি শুক্রবারের মধ্যে মেলার সব স্টল নির্মাণের কাজ শেষ হয়ে যাবে। তবে গত পহেলা ডিসেম্বরেই আমি সব স্টল মালিককে নির্মাণকাজ শুরু করে দিতে বলেছিলাম। তারা দেরি করেছে। আমরা এ বছর সঠিক সময়েই সব কাজ সম্পন্ন করেছি।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত