বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

প্রতিমন্ত্রীর স্মার্টনেস!

আপডেট : ১১ জানুয়ারি ২০২৩, ১০:৩৭ পিএম

‘যত গর্জে তত বর্ষে না’ প্রবাদটি বাঙালির অনেক দিনের জানা। কিন্তু নিয়তিই এমন যে এমন জানা কথাই বারবার ফিরে ফিরে আসে নানা দৃষ্টান্তে। ধরা যাক সম্প্রতি আলোচনায় আসা প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেনের কথাই। ২০১৯ সালের ৭ জানুয়ারি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন মো. জাকির হোসেন। দায়িত্ব পাওয়ার পরপরই তিনি আকস্মিকভাবে রাজধানীর মিরপুরের বেশ কয়েকটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় দেখতে গিয়েছিলেন। কাউকে আগেভাগে না জানিয়ে তার যাওয়ার উদ্দেশ্য ছিল সরকার নির্ধারিত সময়সীমা অনুযায়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালিত হচ্ছে কি না, নিয়মিত শ্রেণি কার্যক্রম, শিক্ষকদের উপস্থিতি, শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার মান, স্কুলের পরিবেশসহ সব কিছু ঠিকঠাক আছে কি না তা জানা। আমরা ভেবেছিলাম এতদিনে তাহলে দেশে এমন একজন কর্তব্যনিষ্ঠ প্রতিমন্ত্রী পাওয়া গেল প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে যিনি হয়তো কাজের কাজী হবেন। কিন্তু তেমন দৃষ্টান্ত পাওয়া গেল না। বরং এরপর আমরা প্রতিমন্ত্রীকে আলোচনায় আসতে দেখলাম স্কুল শিক্ষার্থীদের ‘মিড ডে মিল’ ব্যবস্থাপনার অভিজ্ঞতা নিতে কয়েকশ কর্মকর্তার বিদেশ ভ্রমণ সংক্রান্ত প্রস্তাবিত এক প্রকল্পের জন্য। ওই রকম একটি প্রকল্প প্রস্তাবে ব্যক্তি হিসেবে মো. জাকির হোসেনের দায় যতটুকুই হোক প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে তার নাম আসবেই। তবে, এবার আর তাকে ছাড় দেওয়ার সুযোগ থাকছে না। ছেলের বউভাত ঘিরে যে কা- তিনি করেছেন তাতে কা-জ্ঞানসম্পন্ন মানুষদের গলা দিয়ে আর ভাত নামার কথা না।

দেশ রূপান্তরে বুধবার ‘গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীকে জবাবদিহির আওতায় আনার দাবি’ শিরোনামের প্রতিবেদনে উঠে আসে, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন ছেলের বউভাতে কুড়িগ্রামের তিন উপজেলার ২৬৫ বিদ্যালয় ছুটি দিয়ে শিক্ষকদের যোগদান বাধ্যতামূলক করেছেন। এতেই তিনি খান্ত হননি, তাদের কাছ থেকে চাঁদা তুলে উপহার নিশ্চিত করে সেসব গ্রহণ করেছেন। গত রবিবার কুড়িগ্রামের চিলমারী, রৌমারী ও চর রাজিবপুর উপজেলার ২৬৫ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ছুটি দিয়ে উপহারসহ শিক্ষকরা প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর ছেলের বউভাতে অংশ নেন। এই ঘটনাকে ন্যক্কারজনক আখ্যা দিয়ে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেনসহ জড়িতদের জবাবদিহির আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে টিআইবি। বিবৃতিতে টিআইবি আরও বলেছে, এ ঘটনা দেশের শিক্ষা খাতকে দলীয়করণ ও ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে ধ্বংস করার শামিল। টিআইবির নির্বাহী পরিচালক বলেন, ‘এতগুলো বিদ্যালয় বন্ধ করে দিয়ে কারও ব্যক্তিগত অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ ও বাধ্যতামূলক জনপ্রতি ৫০০ টাকা চাঁদা সংগ্রহ করে উপহার দেওয়ার ঘটনা জেলা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের সক্রিয় যোগসাজশ না থাকলে কোনো অবস্থাতেই ঘটতে পারত না। প্রতিমন্ত্রী ও তার পরিবার এই উপহার গ্রহণ করে যে ন্যক্কারজনক মানসিকতার পরিচয় দিলেন, তার ব্যাখ্যা কী? আর এই পুরো ঘটনার জন্য জবাবদিহি নিশ্চিত করা না হলে দেশের শিক্ষাব্যবস্থার ভবিষ্যৎই বা কী! সরকারের উচিত জনগণের, বিশেষ করে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জ্ঞাতার্থে তা ব্যাখ্যাসহ প্রকাশ করা।

কুড়িগ্রামে ছেলের বউভাতে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন যে কা- ঘটালেন তাতে দায়িত্ব গ্রহণের পরপর তিনি কর্তব্য পালনে আন্তরিকতার যে দৃষ্টান্ত দেখিয়েছিলেন তা মেকি বলেই মনে হচ্ছে। মনে হচ্ছে আসলেই এদেশে ‘যত গর্জে তত বর্ষে না’। উদ্বেগের বিষয় হলো, এমন একজন প্রতিমন্ত্রীর মুখেই আমাদের শুনতে হচ্ছে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’-এর কথা। গত ১ জানুয়ারি সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় আয়োজিত বই বিতরণ উৎসব ২০২৩-এ প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে স্মার্ট বাংলাদেশ করার ঘোষণা দিয়েছেন। এ স্মার্ট বাংলাদেশের কারিগর হবে আজকের শিশুরা। তাই আসুন আমরা আমাদের শিশুদের স্মার্ট বাংলাদেশের কারিগর হিসেবে গড়ে তুলি। প্রশ্ন হলো, যে আনস্মার্ট প্রতিমন্ত্রী নিজের ছেলের বউভাতের দাওয়াতে আসার জন্য ২৬৫ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ছুটির ঘটনা মেনে নেন এবং চাঁদা তুলে দেওয়া বাধ্যতামূলক উপহার গ্রহণ করেন তার হাতে আমাদের শিশুরা কেমন স্মার্টনেস শিখবে? দুঃখজনক বিষয় হলো, যে অনুষ্ঠানে তিনি এই কথা বললেন সেদিনও প্রত্যাশ্য অনুসারে সব শিক্ষার্থীকে বিনামূল্যে বিতরণের বই দেওয়া যায়নি। প্রতিমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, কাগজের অভাবে প্রেস থেকে সব বই আসেনি। এক মাসের মধ্যে সব বই শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিতরণ করতে পারব। আমরা আশা করব দ্রুতই সব শিক্ষার্থীর হাতে বই তুলে দেওয়ার কাজটি প্রতিমন্ত্রী করতে পারবেন। কিন্তু প্রশ্ন থেকে যাবে যে, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থাকা প্রতিমন্ত্রীকে স্মার্টনেসের শিক্ষা কে দেবেন?

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত