সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

যানজটে ফিকে বাণিজ্যমেলার রং

আপডেট : ১৩ জানুয়ারি ২০২৩, ০৫:৩৮ এএম

বর্ণিল সাজে সেজেছে রূপগঞ্জের পূর্বাচল উপশহরের স্থায়ী ভেন্যুতে বসা ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলার ২৭তম আসর। প্রথম কয়েক দিন কিছুটা অগোছালো থাকলেও গত কয়েকদিন ধরে জমে উঠতে শুরু করেছে মেলা। প্রতিদিনই বাড়ছে দর্শনার্থীর সংখ্যা। তবে সবচেয়ে বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে এশিয়ান হাইওয়ে (বাইপাস) এবং তিনশ’ ফুট সড়ক। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে রাত পর্যন্ত এই দুটি সড়কের প্রায় ২০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়। এতে করে মেলায় আসতে পথে পথে ভোগান্তির শিকার হন দর্শনার্থীরা। এমনকি অনেকে মেলায় আসার পথে দীর্ঘ সময় যানজটে আটকে শেষমেশ মাঝপথ থেকেই বাড়ি ফিরে যান। পূর্বাচল উপশহরের বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চায়না এক্সিবিশন সেন্টারের স্থায়ী প্যাভিলিয়নে এবার দ্বিতীয়বারের মতো বসেছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলার আসর। মেলা সফল করতে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) প্রয়োজনীয় সব প্রস্তুতি নিয়েছে। কিন্তু এই প্রস্তুতির রং অনেকটাই ফিকে হয়ে আছে যানজটের কারণে। নরসিংদী, কুমিল্লা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, মৌলভীবাজার, সিলেট, নারায়ণগঞ্জ ও পূর্বাঞ্চল এলাকার দর্শনার্থীদের মেলায় আসতে গেলে এশিয়ান হাইওয়ে সড়ক ব্যবহার করতে হয়। অন্যদিকে রাজধানী ঢাকা, গাজীপুর ও উত্তরাঞ্চলের দর্শনার্থীদের মেলায় আসতে হলে তিনশ’ ফুট সড়ক ব্যবহার করতে হয়। এশিয়ান হাইওয়ে সড়কের উন্নয়নকাজ চলায় শুরুর দিন থেকেই মেলায় আসতে যানজটের ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে দর্শনার্থীদের। তিনশ ফুট সড়ক ছিল অনেকটাই যানজটমুক্ত। তবে আজ শুক্রবার থেকে টঙ্গীতে শুরু হবে বিশ্ব ইজতেমা। সিলেট, ভৈরব, রূপগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, সোনারগাঁও ও মেঘনাসহ এর আশপাশের অঞ্চলের মানুষ ইজতেমায় যাওয়ার জন্য এশিয়ান বাইপাস সড়ক ও তিনশ ফুট সড়ক ব্যবহার করছে। এ কারণে সড়ক দুটিতে যান চলাচল বেড়ে তিনশ ফুট সড়কেও দেখা দিয়েছে দীর্ঘ যানজট। দুটি সড়কেই যানজটের কারণে মেলায় আসতে দর্শনার্থীদের পথে পথে ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। অনেক দর্শনার্থী মাঝরাস্তা থেকে বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন। এছাড়া কাঞ্চন টোল প্লাজায় টোল নেওয়ায় ধীরগতির কারণেও যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। এশিয়ান বাইপাস ও তিনশ ফুট সড়ক দিয়ে কাঞ্চন ব্রিজ হয়ে গাজীপুর, ময়মনসিংহসহ উত্তরবঙ্গের মালবাহী অনেক ট্রাক চলাচল করছে। এসব ট্রাক তুলনামূলক ধীরে চলার কারণেও বাইপাস সড়কে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে প্রশাসন রূপসী-কাঞ্চন সড়ককে বিকল্প রাস্তা হিসেবে ব্যবহার করতে বললেও তা কাজে আসছে না। এছাড়া গাজীপুর চৌরাস্তা থেকে মেলা পর্যন্ত সড়কের উন্নয়নকাজ চলছে। ওইসব এলাকার মানুষও সড়কটি দিয়ে আসলে যানজটের ভোগান্তিতে পড়ছেন। হাইওয়ে ও ট্রাফিক পুলিশের যথাযথ তৎপরতার অভাবে বাইপাস সড়কে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীদের। শুক্র ও শনিবার সরকারি ছুটির দিনে মেলায় দর্শনার্থীর সংখ্যা অনেক বেশি হয়। এই দুদিন যানজট আরও প্রকট আকার নেওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

গতকাল রাজধানী মগবাজার থেকে মেলায় আসা নীরব নামে এক দর্শনার্থী দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘তিনশ ফুট ও এশিয়ান বাইপাস সড়ক মানেই ভোগান্তি। অনেক ভোগান্তির পর মেলায় আসতে পেরেছি। বাড়ি ফিরতে কতক্ষণ লাগবে আল্লাহই ভালো জানে।’

ঢাকার তেজগাঁও এলাকা থেকে আসা শাহজালাল বলেন, ‘কয়েকদিন আগেও তিনশ ফুট সড়ক দিয়ে মেলায় এসেছিলাম। সেদিন যানজট দেখিনি। কিন্তু আজ মেলায় আসতে গিয়ে প্রায় চার ঘণ্টা যানজটে আটকে বসে ছিলাম। একপর্যায়ে অনেকটা পথ হেঁটে মেলায় আসতে হয়েছে। অনেক দর্শনার্থীকে দেখেছি মাঝরাস্তা থেকেই বাড়ি ফিরে যেতে।’

যাত্রাবাড়ী থেকে মেলায় ঘুরতে আসা কিবরিয়া বলেন, ‘স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে মেলায় ঘুরতে এসেছিলাম। কিন্তু যানজটের কারণে আমার ছোট মেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েছে, তাই ফিরে যাচ্ছি বাড়িতে।’

মেলায় অংশ নেওয়া ব্যবসায়ীরা জানান, তারা বিভিন্ন পণ্যে ছাড় দিচ্ছেন। যাতে করে মেলায় দর্শনার্থী বেশি বেশি আসে। কিন্তু যানজটের কারণে দর্শনার্থী কমছে। যানজটের কারণে দর্শনার্থীরা আসতে আগ্রহ হারাচ্ছেন। শুক্র ও শনিবারও যদি মেলায় আসতে দর্শনার্থীদের দীর্ঘ যানজট পোহাতে হয় তাহলে লোকসানের মুখোমুখি হবেন ব্যবসায়ীরা।

মেলায় রোগীদের বিনামূল্যে সেবাদানের জন্য বিআরবি হাসপাতালের একটি স্টল রয়েছে। সেখানকার সিনিয়র স্টাফ নার্স আলামিন বলেন, ‘আমরা দর্শনার্থীদের বিনামূল্যে ব্লাড প্রেসার, বিএমআই ও ডায়াবেটিস চেক করছি। আমাদের স্টলে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত একজন এমবিবিএস ডাক্তার থাকেন। তিনি ফ্রিতে রোগী দেখেন। এছাড়া দর্শনার্থীদের জন্য ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সেবা প্রদান করছি আমরা। কিন্তু তিনশ ফুট সড়কে যানজট থাকার কারণে আজ দর্শনার্থী কিছুটা কম।’

এদিকে হাইওয়ে পুলিশের দাবি তারা যানজট নিরসনে যথাসাধ্য চেষ্টা করছেন। ভুলতা হাইওয়ে পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক ওমর ফারুক বলেন, ‘যানজট নিরসনে হাইওয়ে পুলিশ অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে। তবে যানজট নিরসনে চালকদেরও সচেতন হতে হবে।’

এ প্রসঙ্গে রূপগঞ্জ থানার ওসি এএফএম সায়েদ বলেন, ‘এশিয়ান হাইওয়ে বাইপাস সড়কের উন্নয়নকাজ চলছে। উন্নয়নকাজ বন্ধ রাখা তো সম্ভব না। তবে পুলিশ যানজট নিরসনে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে।’

সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে ইপিবি সচিব ইফতেখার আহম্মেদ চৈাধুরী বলেন, ‘যানজটের বিষয়টি দেখছে পুলিশ প্রশাসন। যানজটের কারণে মেলায় আসতে দর্শনার্থীদের ভোগান্তি হচ্ছে এটি সত্যি। কিন্তু পুলিশও যানজট নিরসনে অক্লান্ত পরিশ্রম করছে।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত