বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

২৭ নদী পাড়ি দেওয়ার যাত্রা শুরু

আপডেট : ১৪ জানুয়ারি ২০২৩, ০৩:২২ এএম

শুরু হলো নদীপথে বিশ্বের দীর্ঘতম যাত্রা। গতকাল শুক্রবার সকালে দিল্লি থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে এমভি গঙ্গা বিলাস নামে প্রমোদতরীর যাত্রা শুরু করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। গঙ্গা বিলাস বারানসি থেকে বাংলাদেশ হয়ে আসামের ডিব্রুগড় পর্যন্ত যাবে। ৫১ দিনের এ যাত্রায় গঙ্গা বিলাস পাড়ি দেবে ৩ হাজার ২০০ কিলোমিটার। এ দীর্ঘ পথে দুই দেশের ২৭টি নদী পাড়ি দেবে বেসরকারি প্রমোদতরীটি।

গতকাল প্রমোদতরীর যাত্রা শুরু করে মোদি বলেন, পর্যটনের এক নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হলো। বাংলাদেশ ও ভারত দুই দেশই এ ‘ক্রুজ’ থেকে উপকৃত হবে। এর ফলে পূর্ব ভারতের বহু পর্যটনস্থল বিশ্বের পর্যটন ম্যাপে স্থান করে নেবে। তিনি বলেন, এই ক্রুজ যেখান দিয়ে যাবে, সেখানকার বাণিজ্য বৃদ্ধির সম্ভাবনা বহুগুণ বেড়ে যাবে। বাড়বে কর্মসংস্থান। হবে উন্নয়ন।

তবে এ প্রমোদতরীতে চেপে নদী বিলাসের খরচের পরিমাণ শুধু ধনীদের পক্ষেই বহন করা সম্ভব। কারণ ৫১ দিন ভ্রমণের দরুন মাথাপিছু খরচ পড়বে প্রায় ২০ লাখ রুপি। প্রমোদতরীতে রয়েছে ১৮টি বিলাসবহুল স্যুইট। প্রতিটিতে দুজনের থাকার বন্দোবস্ত রয়েছে। প্রথম দিন এই ক্রুজে যাত্রাসঙ্গী হন ৩২ জন সুইজারল্যান্ডের নাগরিক।

এতে রয়েছে অত্যাধুনিক স্পা, জিম, লাইব্রেরি, বিনোদনের বন্দোবস্ত এবং দেশ-বিদেশের খাওয়া। ক্রুজে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা থাকছে, যাতে গঙ্গা দূষিত না হয়। এ ভ্রমণের মধ্য দিয়ে বিদেশি পর্যটকরা ভারত ও বাংলাদেশের ইতিহাস, সংস্কৃতি, বৈচিত্র্যপূর্ণ জীবন ও আধ্যাত্মিকতা সম্পর্কে অবহিত হবেন বলে ভারতের কেন্দ্রীয় জাহাজমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়াল জানিয়েছেন।

অবশ্য উত্তর প্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও সমাজবাদী পার্টির প্রধান অখিলেশ যাদব এ প্রচেষ্টার বিরোধিতা করেছেন। টুইট করে তিনি বলেন, সারা পৃথিবীর মানুষ কাশী-বারানসিতে আসেন আধ্যাত্মিকতার সন্ধানে, বিলাসী জীবনযাপনের জন্য নয়। বিজেপি এবার কাশীর নৌচালকদের রুটি-রুজি বন্ধ করে দিতে চলেছে। জাঁকজমকপূর্ণ বিলাসের মধ্য দিয়ে দেশের সার্বিক অন্ধকার এভাবে ঢাকা দেওয়া যায় না। জনমানসেও প্রশ্ন উঠেছে, ৫১ দিন অতিবাহিত করার মতো সময় কতজনের রয়েছে। ২০ লাখ রুপি খরচের ক্ষমতাও বা আছে কয়জন ভারতীয়ের।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত