বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

প্রধান বিচারপতি বললেন

বার ও বেঞ্চ পাখির দুটি ডানা

আপডেট : ২৯ জানুয়ারি ২০২৩, ০১:৪১ এএম

প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী বার ও বেঞ্চকে পাখির দুটি ডানা উল্লেখ করে বলেছেন, ‘এ দুটি হচ্ছে একে অপরের পরিপূরক। কিন্তু দুঃখের সঙ্গে বলতে হচ্ছে, দেশের বিভিন্ন স্থানে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আইনজীবীরা আদালত বর্জনসহ বিচারককে ব্যক্তিগতভাবে আক্রমণ করেছে। আমি বিশ্বাস করতে চাই, এগুলো বিচ্ছিন্ন ঘটনা। তবে এটা ধারাবাহিকভাবে ঘটলে বিচারব্যবস্থার প্রতি মানুষের সংশয় জাগবে।’

গতকাল শনিবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ আইনজীবী সমিতির শতবর্ষপূর্তি উদযাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। 

প্রধান বিচারপতি আরও বলেন, ‘বিচারপ্রার্থী মানুষ যেন দ্রুত সময়ের মধ্যে ন্যায়বিচার পায়। যাতে তাদের আদালতের বারান্দায় দীর্ঘ সময় ঘুরতে না হয়। সেদিকে আমাদের লক্ষ্য রাখতে হবে। আমরা বিচারকগণ ও আইনজীবীরা সবসময় চেষ্টা করব এক দিনের জন্য আগে হলেও যেন বিচারপ্রার্থীকে ন্যায়বিচার দিয়ে বাড়ি পাঠাতে পারি।’

বিচারপ্রার্থীদের প্রতি মানবিক হওয়ার এবং তাদের কষ্ট অনুভব করার আহ্বান জানিয়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য হবে, স্বল্প সময়ে এবং স্বল্প খরচে ন্যায়বিচার নিশ্চিত করা।’

তিনি বলেন, ‘আদালতের সম্মান রক্ষার প্রাথমিক দায়িত্ব আইনজীবীদের, এরপর বিচারক ও সকল মানুষের। আদালতের সম্মান রাখতে হবে নিজেদের স্বার্থে এবং বিচারপ্রার্থীদের স্বার্থেই। কোনো বিচারক দুর্নীতি করলে, বিচার বিক্রি করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বিন্দুমাত্র দ্বিধাবোধ করব না।’

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতি আয়োজিত অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, আইন কমিশনের সদস্য বিচারপতি এ টি এম ফজলে কবীর, সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহমান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদীব আলী, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি জবদুল হক, সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল ইসলাম কনক। এসময় উপস্থিত ছিলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের জেলা প্রশাসক একেএম গলিভ খান, পুলিশ সুপার এএইচএম আবদুর রকিব। 

এর আগে আইনজীবী সমিতির শতবর্ষ উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‌্যালিতে অংশ নেন, বৃক্ষরোপণ করেন এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জ আদালত চত্বরে ‘ন্যায়কুঞ্জ’ নামে বিচারপ্রার্থীদের বিশ্রামাগার নির্মাণকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত