বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ডেনমার্কের ঘটনায় বাংলাদেশের নিন্দা

আপডেট : ২৯ জানুয়ারি ২০২৩, ০২:১১ এএম

সুইডেনের পর এবার ডেনমার্কে পবিত্র কোরআন পোড়ানোর ঘটনা ঘটেছে। দেশটির রাজধানী কোপেনহেগেনে গত শুক্রবার এক উগ্র ডানপন্থি কর্মী কর্র্তৃক পবিত্র কোরআন পোড়ানোর ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ। সারা বিশ্বের মুসলমানদের পবিত্র মূল্যবোধ ও ধর্মীয় প্রতীকের অবমাননার এমন জঘন্য কর্মকাণ্ডে বাংলাদেশ আবারও গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। গতকাল শনিবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে নিন্দা ও উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, সম্প্রীতি ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের স্বার্থে বাংলাদেশ সংশ্লিষ্ট সকলকে এ ধরনের অযৌক্তিক উসকানি ও ইসলামোফোবিয়া থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানায়।

এর আগে গত ২১ জানুয়ারি সুইডেনে তুরস্কের দূতাবাসের সামনে এক উগ্র ডানপন্থির কোরআন পোড়ানোর ঘটনায় ২২ জানুয়ারি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে তীব্র নিন্দা ও উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। ‘বাকস্বাধীনতার’ নামে মুসলমানদের পবিত্র মূল্যবোধের অবমাননার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বলা হয়, বাংলাদেশ বিশ্বাস করে, যেকোনো পরিস্থিতিতে ধর্মের স্বাধীনতাকে সমুন্নত ও সম্মান করতে হবে।

কোরআন পোড়ানোর ঘটনায় নিন্দার ঝড় উঠেছে সারা দুনিয়ায়। তুরস্ক, সৌদি আরব, জর্ডান, কুয়েত, পাকিস্তান এ কর্মকাণ্ডের নিন্দা প্রকাশ করেছে।

বাংলাদেশের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘মতপ্রকাশের স্বাধীনতার আড়ালে এমন ইসলামবিরোধী কাজের অনুমতি দেওয়া কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। পবিত্র কোরআন অবমাননা জঘন্যতম কাজ। এর নিন্দা জানাতে কোনো শব্দই যথেষ্ট হয়। মতপ্রকাশের স্বাধীনতা বিশ্বের দেড়শ কোটি মুসলিমের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করার জন্য ব্যবহার করা যায় না। এটা গ্রহণযোগ্য নয়।’

গত ২১ জানুয়ারি পুলিশি নিরাপত্তার মধ্যে দাঁড়িয়ে কোরআন শরিফে আগুন ধরিয়ে দেন সুইডেনের উগ্র ডানপন্থি রাজনৈতিক দল হার্ড লাইনের নেতা রাসমুস পালুদান। এর আগে ২০২২ সালের এপ্রিলে রমজান মাসে কোরআন পোড়ানোর ‘সফর’ ঘোষণা করেও তিনি বিতর্ক সৃষ্টি করেন। তার ওই কর্মসূচি ঘিরে সুইডেনে ব্যাপক দাঙ্গার সৃষ্টি হয়।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত