রোববার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

‘নির্বাচন ঘনিয়ে আসার চাপে’ আত্মগোপনে যান আসিফ

আপডেট : ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০৯:৪৬ পিএম

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের উপনির্বাচনে ‘নিখোঁজ’ স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু আসিফ আহমেদ বাড়ি ফিরেছেন। তিনি রাজধানীর বসুন্ধরার বাসা থেকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ফিরে আসেন আশুগঞ্জ। বৃহস্পতিবার (২ ফেব্রুয়ারি) রাতে সাড়ে ৮টায় আশুগঞ্জ থানার ওসি আজাদ রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

পরিবার জানায়, আবু আসিফ আহমেদ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টায় নিজ বাড়ি ফেরেন। স্ত্রীকে নিয়ে ঢাকা থেকে আশুগঞ্জের বাসায় ফিরেন তিনি।

আসিফ আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘নির্বাচন ঘনিয়ে আসায় আমি চাপ অনুভব করছিলাম। তাই মানসিক চাপে সরে গিয়েছিলাম। নির্বাচন শেষ হওয়ায় আমি ফিরে এসেছি’।

তার স্ত্রী মেহেরুন্নিছা মেহরিন জানান, ‘কেন সে এরকম করল আমি জানতে চাইলে সে আমাকে জানায়, আমি অনেক ভয় পাচ্ছিলাম। তার হাতে মোবাইল ছিল না। সে জন্যে কারো সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। অন্য নম্বর থেকেও ফোন দেওয়ার সাহস পাননি। আমাকে বলেছে আতঙ্কে ছিল। যেহেতু ইলেকশন শেষ, আতঙ্ক নাই তাই চলে এসেছে’।

এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার মো.শাখাওয়াত হোসেন আবু আসিফ আহমেদকে খুঁজে পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তখন পুলিশ সুপার জানান, সাধারণ ডায়েরি (জিডি) তদন্তের স্বার্থে আমাদের অফিসার ইনচার্জ তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তার স্ত্রী মেহেরুন্নিছা জানান তার স্বামী ঢাকার বাসায় আছেন।

আশুগঞ্জ থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আজাদ রহমান বৃহস্পতিবার বিকালে বলেন, সকালে একটি মাধ্যমে আমরা জানতে পেরেছি উনি (আবু আসিফ আহমেদ) ঢাকায় আছেন। তবে বিকাল নাগাদ তার সঙ্গে কথা বলা হয়নি। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। তবে এইটুকু নিশ্চিত হয়েছি সে আজই আশুগঞ্জের বাড়িতে ফিরবেন।

বুধবার অনুষ্ঠিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ছিলেন বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত আসিফ। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মোটরগাড়ি প্রতীক নিয়ে নিখোঁজের আগ পর্যন্ত সক্রিয় ছিলেন তিনি। আবু আসিফ আহমেদ গত ২৭ জানুয়ারি সন্ধ্যায় আশুগঞ্জের নিজ বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফিরে আসেননি। ২৯ জানুয়ারি তার স্ত্রী সাংবাদিকদের নিখোঁজের কথা বললেও থানায় কোনো ডায়েরি করেননি। পরদিন আসিফএবং বাড়ির দারোয়ানের একটি অডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। তখন থেকে প্রশাসন ও আওয়ামী লীগ এটিকে আবু আসিফের আত্মগোপনে থাকা হিসাবে আখ্যায়িত করে। এরপর গত ৩১ জানুয়ারি বিকেলে তার স্ত্রী মেহেরুন স্বামীর সন্ধান দাবিতে ইমেইলে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের কাছে ও জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে আবেদন জানান। পরে তিনি আশুগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন।

আবু আসিফ দীর্ঘদিন ধরে বিএনপির রাজনীতিতে জড়িত। তিনি ছিলেন আশুগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান।

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত