বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

এক মাসে সড়কে নিহত ৫৮৫ জন

আপডেট : ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০৩:০৯ এএম

চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে দেশে ৫৯৩টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৫৮৫ জন নিহত হয়েছেন। এতে ৮৯৯ জন আহত হন। একই সময় রেলপথে ৪৪টি দুর্ঘটনায় ৪৬ জন নিহত ও ৭৮ জন আহত হয়েছেন। আর নৌপথে ১৩টি দুর্ঘটনায় ১১ জন নিহত ও ১ জন আহত হন। নৌপথের এসব দুর্ঘটনায় ৬ জন নিখোঁজ রয়েছেন। সড়ক, রেল ও নৌপথে সর্বমোট ৬৫০টি দুর্ঘটনায় ৬৪২ জন নিহত এবং ৯৭৮ জন আহত হয়েছেন। এই মাসে ২১৪টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ২০৫ জন নিহত ও ১১৪ জন আহত হন। গতকাল শনিবার বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির দুর্ঘটনা মনিটরিং সেলের দুর্ঘটনা পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

সংগঠনের মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়। দেশের জাতীয়, আঞ্চলিক ও অনলাইন সংবাদপত্রে প্রকাশিত সড়ক, রেল ও নৌপথে দুর্ঘটনার সংবাদ পর্যবেক্ষণ করে এই প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে।

এতে দেখা যায়, গত বছরের জানুয়ারি মাসের চেয়ে চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে সড়কে দুর্ঘটনা ৫.৩ শতাংশ ও দুর্ঘটনায় আহত ১০.০৪ শতাংশ বাড়লেও প্রাণহানি ৪.৬ শতাংশ কমেছে।

এই সময়ে সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়া সর্বমোট ৮১৬টি যানবাহনের পরিচয় মিলেছে, যার ১২.৫ শতাংশ বাস, ২৪.৭৫ শতাংশ ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ড ভ্যান ও লরি, ৫.০২ শতাংশ কার-জিপ-মাইক্রোবাস, ৫.৮৮ শতাংশ সিএনজিচালিত অটোরিকশা, ২৭.৩২ শতাংশ মোটরসাইকেল, ১৪.৫৮ শতাংশ ব্যাটারিচালিত রিকশা ও ইজিবাইক এবং ৯.৯২ শতাংশ নসিমন-করিমন-মাহিন্দ্রা-ট্রাক্টর ও লেগুনা ।

সংঘটিত মোট দুর্ঘটনার ৫১.৬০ শতাংশ পথচারীকে গাড়িচাপা দেওয়ার ঘটনা, ২২.২৫ শতাংশ মুখোমুখি সংঘর্ষ, ১২.৪৭ শতাংশ নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে, ১১.৯৭ শতাংশ বিবিধ কারণে, ০.৬৭ শতাংশ যানবাহনের চাকায় ওড়না পেঁছিয়ে এবং ১.০১ শতাংশ ট্রেন-যানবাহন সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

দুর্ঘটনার ধরন বিশ্লেষণে দেখা গেছে, এই মাসে মোট সংঘটিত দুর্ঘটনার ২৯.৫১ শতাংশ জাতীয় মহাসড়কে, ৩৮.৬১ শতাংশ আঞ্চলিক মহাসড়কে, ২৪.৪৫ শতাংশ ফিডার রোডে হয়েছে। এ ছাড়াও সারা দেশে সংঘটিত মোট দুর্ঘটনার ৫.২২ শতাংশ ঢাকা মহানগরীতে, ১.১৮ শতাংশ চট্টগ্রাম মহানগরীতে এবং ১.০১ শতাংশ রেলক্রসিংয়ে সংঘটিত হয়েছে।

বিদায়ী জানুয়ারি মাসে, সড়ক দুর্ঘটনা সবচেয়ে বেশি হয়েছে ১৭ জানুয়ারি। এই দিনে ৩৫টি সড়ক দুর্ঘটনায় ২০ জন নিহত ও ৩১ জন আহত হন। সবচেয়ে কম সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে ২ জানুয়ারি। এই দিনে ১২টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১০ জন নিহত ও ২১ জন আহত হন। সড়ক দুর্ঘটনায় এক দিনে সবচেয়ে বেশি নিহত হয়েছে ১১ জানুয়ারি। এই দিনে ২৬টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩০ জন নিহত ও ১৭ জন আহত হয়েছেন। সড়ক দুর্ঘটনায় সবচেয়ে বেশি আহত হয়েছে ৫ জানুয়ারি। এই দিনে ১৮টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১৬ জন নিহত ও ৭১ জন আহত হন।

যাত্রী কল্যাণ সমিতির পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী, সড়ক দুর্ঘটনার উল্লেখযোগ্য কারণগুলোর মধ্যে রয়েছে : বেপরোয়া গতি, বিপজ্জনক ওভারটেকিং, ফিটনেসবিহীন যানবাহনের অবাধ চলাচল, যাত্রী ও পথচারীদের অসতর্কতা এবং চালকের অদক্ষতা।

যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘সড়কে দিনের পর দিন দুর্ঘটনা ঘটছে। ট্রাফিক আইনের দুর্বল প্রয়োগ ও ট্রাফিক আইন অমান্য করার জন্য অনেক সময় দুর্ঘটনা ঘটছে। তাছাড়া ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন রাস্তায় নামানোর ফলে এসব দুর্ঘটনা ঘটছে। আর এখনো চালকদের নিয়োগ ও কর্মঘণ্টা সুনির্দিষ্ট না থাকায় চালকদের মধ্যে বেশি গাড়ি চালানোর প্রতিযোগিতা বন্ধ হয়নি।’

তিনি আরও বলেন, ‘দেশব্যাপী নিরাপদ ও আধুনিক গণপরিবহন ব্যবস্থার পরিবর্তে টুকটুকি-ইজিবাইক-ব্যাটারিচালিত রিকশা, মোটরসাইকেল, সিএনজিচালিত অটোরিকশানির্ভর গণপরিবহন ব্যবস্থার দিকে ধাবিত হওয়ার কারণে সড়ক দুর্ঘটনা বেপরোয়াভাবে বাড়ছে। তাই সরকারের উচিত এগুলো মনিটরিং করে দ্রুত সড়কে শৃঙ্খলা ফেরানো।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত