রোববার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ছাত্রলীগের তিন পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৮

আপডেট : ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০২:৪০ এএম

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) ছাত্রলীগের তিন উপপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের পর গতকাল বুধবার ক্যাম্পাসের পরিস্থিতি শান্ত আছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। মঙ্গলবার মধ্যরাতে রেলস্টেশন চত্বরে এক সিনিয়রের সামনে আরেক জুনিয়র শিক্ষার্থীর ধূমপানকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে জড়ায় চবি ছাত্রলীগের তিনটি উপপক্ষ। সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে সোহরাওয়ার্দী, শাহ আমানত ও শাহজালাল হলে। রাত ২টার দিকে পুলিশ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডি এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সংঘর্ষে জড়ানো বিবদমান শাখা ছাত্রলীগের এ তিন উপপক্ষ হলো সিক্সটি নাইন, চুজ ফ্রেন্ডস উইথ কেয়ার (সিএফসি) ও বিজয়।

দুই ঘণ্টাব্যাপী চলা সংঘর্ষে তিন উপপক্ষের অন্তত ৭-৮ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। তারা চবির স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসা নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। চবির সহকারী প্রক্টর শহীদুল ইসলাম দেশ রূপান্তরকে জানান, মঙ্গলবার মধ্যরাতের সংঘর্ষের ঘটনায় আটজন আহত হয়েছেন। কেন এ সংঘর্ষ তা তারা খতিয়ে দেখছেন। দোষীদের চিহ্নিত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গতকাল বুধবার বিকেলে হাটহাজারী থানার ওসি রুহুল আমীন জানান, তুচ্ছ বিষয় নিয়ে মঙ্গলবার রাতে ত্রিপক্ষীয় সংঘর্ষের পর গতকাল বুধবারের ক্যাম্পাস পরিস্থিতি পুলিশ ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণে আছে।

সংঘর্ষে জড়ানো সিক্সটি নাইন উপপক্ষের নেতা ও চবি শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাইদুল ইসলাম জানান, রেলস্টেশনে সিনিয়র শিক্ষার্থীর সামনে আরেক জুনিয়রের ধূমপান করা নিয়ে কথা-কাটাকাটির জেরে সংঘর্ষ হয়েছে। ক্যাম্পাস পরিস্থিতি পুলিশ ও চবি প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণে আছে। তিন পক্ষের সিনিয়র নেতারা বসে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করছি। একই কথা বলেছেন সিএফসি উপপক্ষের নেতা ও চবি ছাত্রলীগের সহসভাপতি মির্জা খবির সাদাফ। 

প্রসঙ্গত, চবি ছাত্রলীগ দুটি পক্ষে বিভক্ত। একটি পক্ষ শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরীর ও আরেক পক্ষ সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারী হিসেবে পরিচিত। দুই পক্ষের আবার ১১টি উপপক্ষ রয়েছে। এরমধ্যে বিবদমান বিজয় ও সিএফসি মহিবুল হাসানের এবং সিক্সটি নাইনসহ বাকি ৯টি নাছিরের অনুসারী হিসেবে ক্যাম্পাসে পরিচিত।

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত