বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ইয়াবা ঠেকাতে নাফে বিশেষ ক্যামেরা!

আপডেট : ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০৫:২৩ এএম

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার নাফ নদী হয়ে মিয়ানমার থেকে মাদকদ্রব্য ইয়াবা ট্যাবলেট চোরাচালান রোধ ও কারবারিদের নিয়ন্ত্রণে আনতে এবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিশেষ এক উদ্যোগ নিয়েছে। নদীতীরে ও তলদেশে বিশেষ ক্যামেরা বসানো হচ্ছে। পুলিশের বিশেষ একটি সংস্থা ও মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকা একটি বাহিনী গোপনীয়ভাবে স্থাপন করা ক্যামেরাগুলোর মাধ্যমে ঢাকা থেকে সীমান্ত মনিটর করবে। পুলিশের একটি সূত্র দেশ রূপান্তরকে এ তথ্য জানিয়েছে।

জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘দেশ থেকে মাদক নির্মূল করতে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো কাজ করছে; বিশেষ করে ইয়াবা কারবারিদের প্রতিরোধ করতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। মিয়ানমার থেকেই ইয়াবার চালান সবচেয়ে বেশি আসছে। নাফ নদীতে আরও নিরাপত্তা বাড়ানো হচ্ছে। এই নদী দিয়ে ইয়াবার চালান যাতে দেশে আসতে না পারে, সে জন্য আরও কিছু উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘গত বছর ১ লাখ ২৪ হাজার ৭৭৫ মাদক চোরাকারবারিকে আইনের আওতায় আনা হয়েছে। এ সময়ে ৪ কোটি ৫৮ লাখ ৬৮ হাজার ৫৬৯টি ইয়াবা আটক করা হয়। মাদক কারবারিদের যারা সহায়তা করছে, তাদেরও আইনের আওতায় আনতে কাজ করছে পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি ও কোস্টগার্ড।’

নাফ নদী হয়ে প্রায় প্রতিদিন দেদার আসছে ইয়াবা ট্যাবলেটের বড় বড় চালান। নানা পরিকল্পনা নিয়েও ইয়াবা চোরাকারবার ঠেকানো যাচ্ছে না। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা প্রায়ই চালান আটক করছেন। ইয়াবা কারবারিরাও ধরা পড়ছে। কিন্তু কোনোভাবেই নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। মিয়ানমারের একাধিক চক্রের সঙ্গে বাংলাদেশের কারবারিদের এ অবৈধ কারবারে সহায়তা করছেন কতিপয় রাজনৈতিক নেতা ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অসাধু সদস্যরা। তাদের তালিকাও করা হচ্ছে বারবার। রাজনৈতিকভাবে প্রভাবশালী ও বড় চোরাকারবারি হিসেবে পরিচিত কিছু লোক আত্মসমর্পণ করলেও মাদক কারবার বন্ধ হয়নি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, মিয়ানমার থেকে টেকনাফে ইয়াবা আনতে কোনো বিনিয়োগ লাগছে না। নির্দিষ্ট ব্যক্তির কাছে ইয়াবা নিরাপদে পৌঁছানোর পর মিয়ানমারের মাদক কারবারিদের টাকা পরিশোধ করা হয়। বাহকের কাজ হচ্ছে নির্দিষ্ট ব্যক্তির কাছে টাকা জমা দিয়ে নিজের ভাগের টাকা নিয়ে নেওয়া। ফলে মিয়ানমার থেকে পাঠানো ইয়াবা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে ধরা পড়লেও উদ্ধারের সংখ্যা খুবই কম। নাফ নদী দিয়েই আসছে বেশি চালান। দিনে দিনে চালানের ঘটনা আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে যাওয়ায় দুশ্চিন্তায় পড়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও পুলিশ সদর দপ্তর। পরে পুলিশ সদর দপ্তরের নির্দেশে গোয়েন্দা ইউনিটগুলো নাফ নদী এলাকায় বিশেষ অনুসন্ধান চালায়। অনুসন্ধানের তথ্য বলছে, নতুন কারবারিদের পাশাপাশি পুরনোরাও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। এমনকি যারা আত্মসমর্পণ করেছে, তারাও ইয়াবার কারবার করছে। টেকনাফের আলিয়াবাদের আমিনুর রহমান, পশ্চিম লেদারের নুরুল হুদা মেম্বার, উত্তর লেঙ্গুর বিলের দিদার মিয়া, মুন্ডারডেইলের শাহেদ রহমান নিপু, মধ্য জালিয়াপাড়ার মোজাম্মেল হক, দক্ষিণ জালিয়াপাড়ার জোবায়ের হোসেন, কুলালপাড়ার নুরুল বছর, কাউন্সিলর ওরফে নুরসাদ, শিলবুনিয়াপাড়ার কামরুল হাসান, ডেইলপাড়ার আবদুল আমিন, একই এলাকার নুরুল আমিন, চৌধুরীপাড়ার শফিকুল ইসলাম ওরফে শফিক, একই এলাকার ফয়সাল রহমান, নাজিরপাড়ার এনামুল হক ওরফে এনাম মেম্বার, মৌলভীপাড়ার একরাম হোসেন, নাজিরপাড়ার সৈয়দ হোসেন, আলিরডেইলের শাহেদ কামাল, সাবরাংয়ের মৌলভী বছির আহম্মদ, পুরনো কল্যাণপাড়ার শাহ আলম, নাজিরপাড়ার আবদুর রহমান, রাসেল প্রমুখ নাফ নদী দিয়ে নিয়মিত চালান নিয়ে আসছে।

পুলিশ সূত্র জানায়, ইয়াবার চালান প্রতিরোধে নাফের তীর ও তলদেশে বিশেষ ক্যামেরা বসানোর কাজ আগামী ছয় মাসের মধ্যে শুরু হবে। ক্যামেরাগুলো ২৪ ঘণ্টা সচল থাকবে। কারা নদী দিয়ে আসা-যাওয়া করছে, সেই চিত্র ফুটে উঠবে ক্যামেরার মনিটরে। আর এগুলো মনিটরিং করবে পুলিশের একটি সংস্থা ও একটি বাহিনী।

বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্ত ৬৩ কিলোমিটার দীর্ঘ। আর নাফের প্রস্থ ১ হাজার ৩৬৪ মিটার। কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়ন থেকে শুরু করে সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপ পর্যন্ত এই নদীর পাড়ে অন্তত সাত হাজার মানুষের বসবাস। ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট এ নদী হয়ে প্রবেশ শুরু করে মিয়ানমারে হত্যাযজ্ঞের শিকার রোহিঙ্গারা। মাদক পাচার ও রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের কারণ দেখিয়ে মাছ ধরা বন্ধ রাখলেও নাফ নদী এলাকায় প্রতিদিন ইয়াবা উদ্ধার হচ্ছে।

কক্সবাজার জেলা পুলিশের এক পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ২০২২ সালে এক বছরে এ নদী দিয়ে পাচার হয়ে আসা ৯০০ কোটি টাকার বেশি ইয়াবা ও আরেক মাদকদ্রব্য আইস উদ্ধার করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। অভিযানে ২ হাজার ৩১০টি মামলায় ৩ হাজার ৯৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর আগে ২০২১ সালে টেকনাফে ২৮৫ কোটি টাকার মাদক, স্বর্ণ ও বিভিন্ন চোরাই পণ্য জব্দ হয়।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও পুলিশ সদর দপ্তরের ঊর্ধ্বতন দুই কর্মকর্তা দেশ রূপান্তরকে বলেন, নাফ নদীকেন্দ্রিক চোরাকারবারিদের নিয়ন্ত্রণ করতে পারলে দেশে ৯০ শতাংশ মাদক কারবারি ও সেবনকারীকে নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হবে। তারা নিশ্চিত হয়েছেন যে চোরাকারবারিদের সহায়তা করছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কিছু সদস্য। আর এ কারণে তারা নাফের বিভিন্ন স্থানে বিশেষ ক্যামেরা বসানোর উদ্যোগ নিয়েছেন। ক্যামেরাগুলো এমনভাবে বসানো হবে কেউ বুঝতেই পারবে না সেখানে কিছু একটা আছে। এ জন্য একটি বাজেটও ধরা হয়েছে। অন্তত ২০০ ক্যামেরা কেনা হবে।

ওই কর্মকর্তারা আরও বলেন, মিয়ানমারসহ গোল্ডেন ট্রায়াঙ্গেল এলাকায় ইয়াবা তৈরির হাজারের বেশি কারখানা আছে। এসব কারখানা থেকে ইয়াবার চালান আসছে বাংলাদেশে। আর নাফ হয়ে শাহপরীর দ্বীপ, সাবরাং, হ্নীলা, হোয়াক্যাং, উখিয়া বালুখালী, পালংখালী, রাজাপালং ও বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম এলাকা পাচারের নিরাপদ রুট হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে। ইয়াবার চালান আনার পর কারবারিদের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হয়। মিয়ানমারের পোস্ট অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশনের (এমপিটি) সিম দিয়ে কক্সবাজারের বিভিন্ন এলাকায় কথা বলা যাচ্ছে। তা ছাড়া বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে এমপিটির রোমিং সুবিধা রয়েছে। এমপিটির কার্যক্রম রোধ করতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কাজ করছে। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) সঙ্গে এ নিয়ে কথা হয়েছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত