সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ফাইনাল আর সিলেটের মাঝে রংপুর

আপডেট : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০৬:১৬ এএম

এবার বিপিএলে সবার আগে প্লে-অফ পর্ব নিশ্চিত করা দলটি ছিল স্ট্রাইকার্স। আর সবশেষ উঠেছিল রংপুর। লিগের ১২ ম্যাচের ৯টিতেই জয়ী সিলেট দুই দেখাতেই হেরেছিল রংপুরের কাছে। সেই রংপুরই আজ প্রথমবারের মতো সিলেটের কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজির ফাইনালে খেলার স্বপ্নের সামনে দেয়াল হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার হাত ধরেই ২০১৭ সালে শিরোপার স্বাদ পেয়েছিল রংপুর। সেই মাশরাফী এবার সিলেটের কা-ারি। গ্রুপ পর্বটা ভালোভাবেই পার করে সবার আগে দলকে প্লে-অফে তুলেছেন ‘ম্যাশ’, কিন্তু শেষ চারে এসে যে খেলার অঙ্ক পালটে গেছে বিপিএলের অদ্ভুতুড়ে নিয়মে! রীতিমতো পাড়ার খ্যাপের টুর্নামেন্টের মতো যখন তখন বিদেশি খেলোয়াড় আসছেন আর যাচ্ছেন বিপিএলে। সিলেটের বোলিংয়ের বড় শক্তি মোহাম্মদ আমির আর ইমাদ ওয়াসিম চলে গেছেন গ্রুপ পর্ব শেষে। যাদের নতুন করে নিয়েছে সিলেট, সেই ইসুরু উদানা-জর্জ লিন্ডেরা তেমন কিছু করতে পারেননি কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসের বিপক্ষে প্লে-অফে। কুমিল্লায় বিদেশি খেলোয়াড়ের তারার হাট, রংপুরেও তাই। আসরে নিজেদের সেরা বোলার আজমতউল্লাহ ওমারজাইকেও তারা বসিয়ে রেখেছিল এলিমিনেটর ম্যাচে, কারণ টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে সুপারস্টারদের একজন ডুয়াইন ব্র্যাভো যে এসে গেছেন তাদের দলে! ব্র্যাভো, নিকোলাস পুরান, মুজিব-উর-রহমান আর দাশুন শানাকাকে নিয়ে রংপুর দারুণ শক্তিশালী। সঙ্গে শেখ মেহেদি হাসান, রনি তালুকদার, শামীম হোসেন, রাকিবুল হাসানসহ তরুণ সব স্থানীয় ক্রিকেটারদের নিয়ে গড়া দলের নেতৃত্বে নুরুল হাসান সোহান।

অন্যদিকে সিলেট সমৃদ্ধ অভিজ্ঞতায়। মাশরাফী, মুশফিকুর রহিম ও রুবেল হোসেন; মিরপুরের শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে তিনজন মিলে কমপক্ষে শ’খানেক ম্যাচ খেলেছেন। সেই অভিজ্ঞতার সঙ্গে রায়ান বার্ল, লিন্ডে, উদানার কার্যকারিতার মিশেলই হতে পারে স্ট্রাইকার্সের স্ট্রাইকিং ফোর্স।

প্রথম কোয়ালিফায়ার ও এলিমিনেটর, দুটো ম্যাচে চার দলের ক্রিকেটারদের ভেতর ভালো করেছেন কিন্তু দেশীয় ক্রিকেটাররাই। ম্যাচসেরা কুমিল্লার বাঁহাতি স্পিনার তানভীর আর রংপুরের শামীম হোসেন। এই পরিসংখ্যান অন্তত সিলেটকে আশাবাদী করে তুলতে পারে কারণ বিদেশির পাল্লায় রংপুরই যে এগিয়ে। অন্যদিকে সিলেটের তৌহিদ হৃদয়, নাজমুল হোসেন শান্তÑ এই দুই ব্যাটসম্যানই তাদের দিয়েছে লড়াইয়ের পুঁজি। সঙ্গে কখনো জাকির হাসান, কখনো মুশফিক। কুমিল্লার বিপক্ষে ব্যাটিংটা ভালো হয়নি সিলেটের, তবে অল্প পুঁজি নিয়েও কুমিল্লার বিপক্ষে লড়াইটা জমিয়ে তুলেছিল স্ট্রাইকার্স। একই সূত্রে হয়তো হারানো যাবে না রংপুরকে কারণ এই মিরপুরেই ১৭০ রানের লক্ষ্য দিয়েও রংপুরকে থামাতে পারেনি সিলেট।

সিলেট স্ট্রাইকার্সের সহকারী কোচ সৈয়দ রাসেল জানিয়েছেন, লিগ পর্বে দুই দেখাতেই হারলেও আজ নতুন ম্যাচে সেই হিসাব চলবে না, ‘টি-টোয়েন্টিতে নির্দিষ্ট দিনে যে দল ভালো খেলবে তারাই জিতবে। আগে কী হয়েছে সেটা আমরা চিন্তা করছি না। তবে এটা স্বাভাবিক যে ওরা যেহেতু (এলিমিনেটর) জিতে এসেছে আর আমাদের সঙ্গে আগে দুটো ম্যাচে জিতেছে। অবশ্যই ওরা অনেক আত্মবিশ্বাসী থাকবে।’

কুমিল্লার বিপক্ষে ম্যাচে ব্যাটিংয়ের সঙ্গে ফিল্ডিংটাও খারাপ হয়েছে। মুশফিক ক্যাচ, স্টাম্পিং দুইই মিস করেছেন। মাশরাফী বোলিং করেছেন মাত্র ১ ওভার। রুবেল অবশ্য ৩ উইকেট নিয়েছেন। অন্যদিকে শান্ত মোটামুটি রান করলেও রান পাননি তৌহিদ হৃদয় আর জাকির। কোচ রাজিন সালেহও ম্যাচশেষে বলেছেন যে সবাই খারাপ খেলেছে। সেদিন তিনি বলেছিলেন ভুল থেকে শিক্ষা নেওয়ার কথা, একই কথা রাসেলেরও। সেই সঙ্গে জানালেন, আমির ও ইমাদের চলে যাওয়ার ঘাটতিটা পূরণ না হওয়ার কথা, ‘ওরা যাওয়ায় ঘাটতিটা তো রয়েই গেছে। আমাদের দলীয় সমন্বয়টা খুব ভালো ছিল। সেখান থেকে একটা আঘাত বলা যায়।’

মুশফিক আর মাশরাফীর বিপিএল ভাগ্য পুরো বিপ্রতীপ। বিপিএলের ফাইনাল খেলতে সাত আসর লেগে গিয়েছিল মুশফিকের, শিরোপা জেতা হয়নি একবারও। সিলেট রয়্যালসের হয়ে ২০১৩ সালে দ্বিতীয় দল হিসেবে প্লে-অফে ওঠার পর দুই ম্যাচ হেরে ফাইনালে খেলা হয়নি মুশফিকের। অন্যদিকে মাশরাফী বিপিএলের সফলতম অধিনায়ক। শিরোপা জিতেছেন ৪ বার, তিনটা আলাদা দলের হয়ে। রংপুরের একমাত্র শিরোপা জয়ও এসেছিল মাশরাফীর হাত ধরে। মুশফিকের বিপিএল ফাইনালের আক্ষেপ আর মাশরাফীর সৌভাগ্য, কোনটা কাজে লাগে রংপুরের বিপক্ষে সেটাই এখন দেখার।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত