বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ফাইনালের এক ইনিংসে মিস পাঁচ ক্যাচ!

আপডেট : ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১০:০৮ পিএম

বিপিএলের ফাইনালে সিলেট স্ট্রাইকার্সের মুখোমুখি কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। সিলেটের ছুঁড়ে দেওয়া ১৭৬ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে কুমিল্লা ভালোই জবাব দিচ্ছে। তবে ফিল্ডিংয়ে তারা নেমেছিল ক্যাচ মিসের প্রতিযোগিতায়। এক ইনিংসে তারা ছেড়েছে পাঁচটি ক্যাচ।

ক্যাচ মিসের শুরুটা করেছিলেন কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমান। সিলেট স্ট্রাইকার্সের ব্যাটিং ইনিংসের তখন পঞ্চম ওভার চলছিল। সেই ওভারের চতুর্থ বলে সুনীল নারিনের বলে সুইপ করতে গিয়ে নাজমুল হোসেন শান্ত শর্ট ফাইন লেগে মোস্তাফিজুর রহমানের হাতে তুলে দেন। তবে সেটা লুতে পারেননি ফিজ।

ইনিংসের অষ্টম ওভারের তৃতীয় বলে দ্বিতীয়বার ক্যাচ ছাড়ে কুমিল্লা। এবার সেটা মিস করেন কুমিল্লার অধিনায়ক ইমরুল কায়েস। এবারও জীবন পান শান্ত। তানভির ইসলামের বল মিড উইকেট দিয়ে শূন্যে ভাসিয়েছিলেন স্ট্রাইকার্সের বাঁ হাতি ব্যাটসম্যান। সেটা লুফে নেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। তবে প্রচন্ড গতিতে আসা বলটি ইমরুলের হাত থেকে ফসকে যায়। তিনি ব্যাথা পেয়ে মাটিতে বসে পড়েন।

পরের তিনটি ক্যাচ মিসের সঙ্গেই জড়িয়ে আছে মোস্তাফিজের নাম। যার দুটি আবার একই ওভারে পরপর দুই বলে। প্রথমটি ইনিংসের ষোলোতম ওভারের চতুর্থ বলে। রায়ান বার্লকে বল ছুড়ে মেরেছিলেন। স্লোয়ার বলটি শূন্যে ভাসছিল। ফিজ নিজেই এগিয়েছিলেন, তবে সেটা ধরতে পারেননি।

পরে ফিজের করা আঠারোতম ওভারের প্রথম বলে জর্জ লিন্ডে সেটা লং অন দিয়ে উড়িয়ে মেরেছিলেন। সেখানে দাঁড়িয়ে থাকা মঈন আলির হাতে এসে সোজা ধরা দেয় বলটি। কিন্তু তার হাত থেকেও ফসকে যায়। ততক্ষণে লিন্ডে ২ রান সংগ্রহ করে ফেলেন।

পরের বলে আবার উড়িয়ে মারেন লিন্ডে। হাওয়ায় ভাসতে ভাসতে মিড অনে উঠে আসে। কিন্তু লং অফ থেকে দৌড়ে আসা লিটন দাস তা তালুবন্দী করতে পারেননি।

এক ইনিংসেই কুমিল্লা এই পাঁচ ক্যাচ মিস করে। তাতে দুইবার করে জীবন পান শান্ত ও লিন্ডে, একবার রায়ান বার্ল। তাতে সিলেট শেষ পর্যন্ত ১৭৬ রানের সংগ্রহ দাঁড় করায়।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত