বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ডাকাতদের সচিত্র ডেটাবেজ

আপডেট : ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০২:৩৫ এএম

ডাকাতের উৎপাত বেড়ে যাওয়ায় চিন্তায় পড়েছে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাগুলো। সম্প্রতি ঢাকাসহ সারা দেশেই ডাকাতি বেড়েছে। প্রায় দিনেই বাসাবাড়ি ও যানবাহনে ডাকাতি হচ্ছে। বিশেষ করে যাত্রীবাহী বাসে। তারা যাত্রীদের সর্বস্ব লুট করে নিচ্ছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই বাসের চালকরা ও হেলপাররা এ কাজে জড়িত বলে জানতে পেরেছে পুলিশ।

ডাকাতদের কোনো তালিকা নেই পুলিশের কাছে। তালিকা করার জন্য পুলিশ সদর দপ্তর বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছে। ছবিসহ ডাকাত দলের সদস্যদের ডেটাবেজ করতে পুলিশের সবকটি ইউনিট ও জেলা পুলিশ সুপারদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পুলিশ কাজও শুরু করে দিয়েছে বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে।

পুলিশসংশ্লিষ্টরা দেশ রূপান্তরকে জানায়, বিভিন্ন সময়ে ডাকাতির কারণে যারা গ্রেপ্তার হয়েছে তাদের জবানবন্দিতে যাদের নাম এসেছে তাদেরই ডেটাবেজের অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে। এ জন্য মেট্রোপলিটান পুলিশ কমিশনার, রেঞ্জ ডিআইজি, জেলা পুলিশ সুপার ও হাইওয়ে পুলিশের সঙ্গে সমন্বয় করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে পুলিশ সদর দপ্তর থেকে। ঢাকা রেঞ্জ পুলিশ ও হাইওয়ে পুলিশ এ বিষয়ে প্রাথমিক কাজ শুরু করেছে। ঢাকা রেঞ্জেই ডাকাতির ঘটনা বেশি ঘটে। এরপর রয়েছে খুলনা ও সিলেট রেঞ্জ। পিছিয়ে নেই চট্টগ্রাম রেঞ্জও।

গত ১৩ মাসে ঢাকা জেলায় ৪৬টি ডাকাতির মামলা হয়েছে। গ্রেপ্তার হয়েছে ২৩২ জন। তাদের ৯২ জন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। গতকাল ডিএমপির ক্রাইম কনফারেন্সে বিষয়টি নিয়ে আলোচনায় হয়েছে।

হাইওয়ে পুলিশের প্রধান ও অতিরিক্ত আইজিপি মল্লিক ফখরুল ইসলাম দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘জাতীয় ও আঞ্চলিক মহাসড়কে জনগণের চলাচল ও জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে নানা উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা উন্নতি করার পাশাপাশি সারা দেশে ৮০টি বিশেষ প্যাট্রল ডিউটির ব্যবস্থা করা হয়েছে। জেলা পুলিশের সঙ্গে সমন্বয় করে ছিনতাই, দস্যুতা ও ডাকাতি প্রতিরোধে যৌথ অভিযান অব্যাহত আছে। এটা আরও জোরালো করা হবে।

তিনি বলেন, হাইওয়ে পুলিশের পাঁচটি রিজিয়নের ৫৪টি স্থানে পুলিশ যাত্রীবাহী বাসের ভিডিও ধারণ করছে। চালক ও হেলপারদের সচেতনতামূলক প্রশিক্ষণ ও মহাসড়কসংলগ্ন এলাকার শিক্ষার্থীদের মধ্যে সচেতনতামূলক কার্যক্রম শুরু হয়েছে। মহাসড়কে যারা ডাকাতিতে সম্পৃক্ত তাদের তালিকা করার পাশাপাশি পেশাদার ডাকাতদের ডেটাবেজ তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। কারণ বেশিরভাগ ডাকাতির ঘটনা হাইওয়েতেই ঘটছে।

সূত্র জানায়, সারা দেশে হাইওয়ে পুলিশের ৭৩টি থানা ও ফাঁড়ির মাধ্যমে একটি প্রাথমিক তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। গোপনে ডাকাতদের অবস্থান জানার চেষ্টা চলছে। নজরদারি বাড়ানো হয়েছে তাদের বাড়িতেও। ইনকোয়ারি সিøপের মাধ্যমে ডাকাতদের তথ্য জানার চেষ্টা চলছে। তাদের ছবিও জোগাড় করা হচ্ছে। ডাকাতরা কারাগারে না বাইরে তাও থাকবে ডেটাবেজে। ডাকাতি রোধে বাসের মালিক ও শ্রমিকদের সহায়তা নেওয়া হচ্ছে। স্টপেজের বাইরে যাতে যাত্রী তোলা না হয় সে জন্য কড়া নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। নির্ধারিত রুটের বাইরে যাতে কোনো বাস চলাচল না করে তা কঠোরভাবে মনিটরিং করতে বলা হয়েছে। কারণ জামিনে বেরিয়ে আবারও অপরাধে জড়াচ্ছে ডাকাত দলের সদস্যরা।

সূত্র জানায়, দূরপাল্লার গাড়িতে ডেস্ক ক্যামেরা স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। ওই ক্যামেরার মাধ্যমে গাড়ির যাত্রীদের মনিটরিং করা হবে। সেখানে একটি বিশেষ ডিভাইস থাকবে যেটি ৯৯৯ নম্বরের সঙ্গে যুক্ত থাকবে। গাড়িটি কোনো বিপদে পড়লে ওই ডিভাইসে চাপ দিলেই সংকেত চলে যাবে ৯৯৯-এ। তখন স্থানীয় থানা বিপদেপড়া গাড়ির বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে পারবে। ওই ডিভাইসের মাধ্যমে গাড়ির অবস্থানও নির্ণয় করা যাবে।

প্রাথমিক পর্যায়ে প্রতিটি মেট্রোপলিটান ও রেঞ্জে ডাকাতদের সচিত্র ডেটাবেজ সংরক্ষণ করা হবে। কোনো ডাকাত জামিনে মুক্তি পেলে তার বিষয়ে সব ইউনিটকে বার্তা পাঠানো হবে। ডাকাতদের গতিবিধি নজরে রাখা হবেও সূত্র জানিয়েছে।

ডাকাতরা কখনো আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পরিচয়ে আবার কখনো সরাসরি ডাকাতির ঘটনা ঘটাচ্ছে। ভুক্তভোগীদের অধিকাংশই থানায় মামলা করে না। বিপুল অঙ্কের টাকা বা স্বর্ণালংকার ডাকাতির ঘটনায় শুধু মামলা হয়। আর ডাকাতির শিকার বেশিরভাগ লোক ছিনিয়ে নেওয়া মোবাইল ফোন ও মানিব্যাগ হারানোর জিডি করে। ফলে ডাকাতির প্রকৃত সংখ্যা জানা যায় না। সর্বশেষ গত রবিবার রাতে গাজীপুর-খুলনা রুটের রিসাত পরিবহনের একটি বাসে নৃশংস ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার পর আশুলিয়া থানার নবীনগর পুলিশ ফাঁড়িতে জিডি করে পরিবহন কর্তৃপক্ষ। আর কয়েকজন মোবাইল ফোন হারানোর জিডি করেছেন।

ঢাকা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি মাশরুকুর রহমান বলেন, ‘পেশাদার ডাকাতদের একটা ডেটাবেজ তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ১৬১ ও ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে যাদের নাম এসেছে তাদের তথ্য যাচাই করে ডেটাবেজে অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে। এতে মহাসড়ক ও বাসাবাড়িতে ডাকাতি রোধ করা সম্ভব হবে। স্পর্শকাতর বা ডাকাতিপ্রবণ এলাকায় বসানো হচ্ছে সিসিটিভি ক্যামেরা।’

পুলিশ সদর দপ্তরের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা দেশ রূপান্তরকে বলেন, ডাকাতি বেশি হচ্ছে কেরানীগঞ্জ মডেল থানা ও দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায়। আশুলিয়া, সাভার, ধামরাই, নবাবগঞ্জ ও দোহার থানায়ও ডাকাতির ঘটনা ঘটে। ঢাকা রেঞ্জের শরীয়তপুর, মাদারীপুর, নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা জেলা ও টাঙ্গাইলে বেশি ডাকাতির ঘটনা ঘটে। সিলেট রেঞ্জের হবিগঞ্জ ও সিলেট জেলার কিছু এলাকায় ডাকাতি হয় বলে পুলিশের পর্যবেক্ষণে উঠে এসেছে। খুলনা রেঞ্জের ঝিনাইদহের কালীগঞ্জের পিরোজপুর, মেহেরপুরের কিছু এলাকা ও খুলনার ফুলতলা এলাকা ডাকাতিপ্রবণ। চট্টগ্রাম রেঞ্জের মধ্যে রয়েছে চকরিয়া ও কক্সবাজার জেলার বিভিন্ন গ্রাম যেখানে মহাসড়কে গাছ ফেলে ডাকাতির ঘটনা রয়েছে। এসব এলাকায় বিভিন্ন সময়ে গ্রেপ্তার ডাকাতদের নাম ডেটাবেজে রাখা হচ্ছে।

তিনি বলেন, ঢাকা রেঞ্জের ধামরাই, আশুলিয়া এবং শরীয়তপুর ও মাদারীপুর জেলার কিছু এলাকায় ডাকাতরা নৌপথে ডাকাতি করে। এ কারণে নৌপুলিশকে আরও সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে পুলিশ সদর দপ্তর থেকে। ডাকাতির ঘটনায় আমরা উদ্বিগ্ন। আমাদের কাছে পেশাদার ডাকাতদের তালিকা নেই। এ জন্য সম্প্রতি সব মেট্রোপলিটান পুলিশ কমিশনার, হাইওয়ে পুলিশপ্রধান ও জেলা এসপিদের তালিকা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সব তালিকা পাওয়ার পর ডেটাবেজ করা হবে। পুলিশ সদর দপ্তর বিষয়গুলোর সার্বিক মনিটরিং করবে। বাসচালক ও হেলপাররা ডাকাতির কাজে বেশি জড়িয়ে পড়ছে। ইতিমধ্যে তাদের তালিকা হয়েছে। পরিবহন নেতাদের সঙ্গে আমরা কথা বলব।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত