সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

একুশ হোক নব উদ্যমের

আপডেট : ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১২:২৭ এএম

আবদুল হাকিম জন্মেছিলেন ১৬২০ সালে। মারা যান ১৬৯০ সালে। লিখে যান ৮টি কাব্যগ্রন্থ। এর একটি ‘নূরনামা কাব্য’। সেখানে তিনি লিখেন, ‘যেসব বঙ্গেতে জন্মি হিংসে বঙ্গবাণী/ সেসব কাহার জন্ম নির্ণয় ন জানি।’ অন্যদিকে বাংলা পঞ্চকবির একজন অতুল প্রসাদ সেন। তিনি জন্মেছিলেন ১৮৭১ সালে। মারা যান ১৯৩৪ সালে। এ সময়ের মধ্যে গীতিকার, গায়ক, কবি অতুল প্রসাদ লিখে যান অসংখ্য গান। বাংলা সংগীত জগতে, অন্যান্য গানের সঙ্গে আমরা পাই সেই দুর্লভ গানÑ ‘মোদের গরব মোদের আশা, আমরি বাংলা ভাষা’। এরপর আসে পাকিস্তান আমলের নির্মম অত্যাচারের ২৪ বছর।

১৯৪৮ সালের ২১ মার্চ। ৯ দিনের সফরে পূর্ববঙ্গ আসেন পাকিস্তানের গভর্নর জেনারেল, গণপরিষদের সভাপতি এবং মুসলিম লীগের সভাপতি মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ। সেদিন রেসকোর্স ময়দানে, যা এখন সোহরাওয়ার্দী উদ্যান। ইংরেজিতে দেওয়া ভাষণে তিনি বলেন, ‘পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা হবে উর্দু এবং অন্য কোনো ভাষা নয়। কেউ যদি আপনাদের বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করে তাহলে সে আসলে পাকিস্তানের শত্রু।’

পাকিস্তানের রাষ্ট্রীয় ভাষা কী হবে, তা নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছিল ভারত-ভাগের আগেই। অবাঙালি মুসলিম রাজনীতিবিদ ও অধ্যাপক-বুদ্ধিজীবীরা বলছিলেন উর্দু ভাষার কথা। অন্যদিকে ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ ও এনামুল হকের মতো বাঙালি বুদ্ধিজীবী এর প্রতিবাদ করেছিলেন। পূর্ব পাকিস্তানের মানুষের স্বাধীনতা বা আত্মনিয়ন্ত্রণাধিকারের আকাক্সক্ষা অনেক আগেই সৃষ্টি হয়েছিল। এই ধারাবাহিকতারই একটা অংশ হচ্ছে ১৯৫২-এর ভাষা আন্দোলন।

২১ ফেব্রুয়ারি ১৯৫২, বেলা ১১টা ৩০ মিনিট। ১৪৪ ধারা মানেননি ছাত্র-জনতা। ভাষার দাবিতে রাজপথে খণ্ড খণ্ড মিছিল। লাঠি চালায় পুলিশ। আরও বেগবান হয় আন্দোলন, যোগ দেন সাধারণ মানুষ। সবার মুখে একটিই দাবিÑ রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই। সেই মিছিল ঠেকাতে চলল গুলি। রাজপথে লুটিয়ে পড়লেনÑ সালাম, বরকত, রফিক, জব্বারসহ অনেকেই। ২২ ফেব্রুয়ারি হত্যার প্রতিবাদে ছাত্র-জনতার প্রতিবাদ মিছিল। দাবি ওঠে শহীদের স্মৃতি সংরক্ষণের। মাত্র এক দিনের প্রস্তুতিতে তৈরি করা হয় শহীদ মিনার। এতে সরকার ভীত হয়ে পড়ে। ২৬ ফেব্রুয়ারি বিকেলে ভেঙে ফেলে শহীদ মিনার।

বর্তমানে আমরা যে শহীদ মিনার দেখছি, তার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছিল ১৯৫৬ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি। এই শহীদ মিনারের স্থপতি হামিদুর রহমান। অমর একুশের গান লিখেছেন বিশিষ্ট সাংবাদিক-সাহিত্যিক আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী। ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারী/ আমি কি ভুলিতে পারি’Ñ এই অবিনশ^র গানের প্রথম সুরকার আবদুল লতিফ। পরে সুরারোপ করেন শহীদ আলতাফ মাহমুদ। ১৯৫৪ সাল থেকে, যা আজও চলছে।

মাতৃভাষার এই আন্দোলনেই বীজ বপন হয়েছিল স্বাধীনতার। পাকিস্তান ভেঙে জন্ম নিল পৃথিবীর বুকে ‘বাংলাদেশ’ নামে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র।

পার হয়েছে সুদীর্ঘকাল। ১৯৭১-এর ১৬ ডিসেম্বর থেকে ২০২৩। এই ৫২ বছরে, অনেক ইতিহাস রচিত হয়েছে। স্বাধীনতার প্রাণপুরুষ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করা হয়েছে। বিদেশে থাকার কারণে ভাগ্যক্রমে বেঁচে যান, তার দুই কন্যা। তবু থেমে থাকেনি নরঘাতকের দল। এর পরও চলে হত্যাকা-। জাতীয় চার নেতাসহ অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধাকে হত্যা করা হয়। দীর্ঘকাল সামরিক শাসনের জাঁতাকলে পিষ্ট হন বাংলাদেশের নিরীহ মানুষ। একই সঙ্গে চলে দেশকে অন্ধকার যুগে ফিরিয়ে নেওয়ার গভীর ষড়যন্ত্র।

আবার ফিরে আসে নবজাগরণের ইতিহাস। জেগে ওঠে সভ্যতা। দেশের হাল ধরেন স্বাধীনতার সেই মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ কন্যা শেখ হাসিনা। তিনিই আজ ১৪ বছর ধরে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। তবু কি দুখিনী বাংলার সাধারণ মানুষের ভাগ্যের বদল হয়েছে? কমেছে কি শাসন-শোষণের পাহাড়সম বৈষম্য?

আমাদের রক্তে নব উদ্যমে কথা বলুক, একুশের চেতনা। মানুষ যেন মানুষের জন্য হয়। বাঙালি চেতনায় জেগে উঠুক বাংলাদেশ।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত