বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

গুলশানের ফ্ল্যাটের স্বাদ চট্টগ্রামে

আপডেট : ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১১:৫৫ পিএম

খুলশী চট্টগ্রামের সবচেয়ে অভিজাত আবাসিক এলাকা। পাহাড়ের ওপর গড়ে ওঠা এই আবাসিক এলাকা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ১৮০ ফুট ওপরে। এ এলাকায় করা জুমাইরার বহুতল ভবনে থাকছে সুইমিং পুল। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে এতটা উচ্চায় সুইমিং পুলে গোসলের অনুভূতি যে কাউকে বিমোহিত করবে।

খুলশী ৩(ক) নম্বর রোডে ‘জুমাইরা ইসলাম প্যালেস’ নামের ১৪তলা ভবনটির তিনটি ফ্লোরই পার্কিং হিসেবে ব্যবহৃত হবে। রয়েছে কার লিফটও। জুমাইরা ইসলাম প্যালেসের মতো প্রতিটি ভবনেই লাক্সারি ফ্ল্যাট দিচ্ছে নগরবাসীকে।

ভবনটিতে প্রবেশ করতেই ওপরের দিকে অনেক উঁচু মনে হবে। প্রকৃতপক্ষে তা উঁচু বটেই। নিচতলার ছাদটি ১৭ ফুট ওপরে আর ভবনে প্রবেশের সময় একটু অন্য রকম অনুভূতি দেবে যে কাউকে। অনেক ভবনে নামাজের কক্ষ ছাদের ওপরে কিংবা প্রথম তলায় থাকে। কিন্তু এই ভবনের দ্বিতীয় তলায় মনোরম নকশার একটি প্রার্থনা কক্ষ রয়েছে। প্রতি ফ্লোরে দুই ইউনিটের ফ্ল্যাট, প্রতিটি ফ্ল্যাটের আয়তন ২৭০০ বর্গফুট। দুটি লিফট ও দুটি সিঁড়ির সমন্বয়ে গড়ে তোলা ভবনটির ছাদ পর্যন্ত লিফট সুবিধা রয়েছে। এ ছাড়া সুইমিং পুলের ওপরে ভবনের অন্য প্রান্তে রয়েছে ব্যাডমিন্টন কোর্ট। রয়েছে শিশুদের খেলার জায়গা, জিম, চেঞ্জরুম, লাইব্রেরি রুমসহ নানা সুবিধা।

দৃষ্টিনন্দন ডিজাইন, নান্দনিক লবি, সবুজের সমারোহ এবং সুইমিং পুল সুযোগ-সুবিধাসংবলিত লাক্সারি ফ্ল্যাট দিচ্ছে জুমাইরাহ হোল্ডিংস। দুই দশক ধরে আবাসন ব্যবসার সঙ্গে জড়িত এই প্রতিষ্ঠান নগরীতে গুলশানের ফ্ল্যাটের স্বাদ দিচ্ছে। ইতিমধ্যে নির্মিত এবং আগামীতে নির্মাণ হতে যাওয়া বিভিন্ন প্রকল্পে এমনই নকশা দেখা যাচ্ছে। নগরীর আমিরবাগ আবাসিক এলাকা, ওআর নিজাম রোড, নাসিরাবাদ হাউজিং সোসাইটি, হিলভিউ হাউজিং সোসাইটি, লাভলেইন, খুলশীসহ বিভিন্ন আবাসিক এলাকায় অ্যাপার্টমেন্ট ভবন নির্মাণ করছে জুমাইরা।

বৈচিত্র্যময় নকশা, গুণগত মানসম্পন্ন নির্মাণ উপকরণ এবং লাক্সারিয়াস আইটেম ব্যবহারের কারণে ভবন নির্মাণে এগিয়ে থাকা প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ শাহজাহান বলেন, ‘আমাদের ভবনগুলোর নকশা অন্যান্য ভবন থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন। দৃষ্টিনন্দন নকশার পাশাপাশি ভবন নির্মাণে সেরা উপকরণ ব্যবহার করি। এতে ফ্ল্যাট ব্যবহারকারীরা স্বাচ্ছন্দ্য পান।’

কিন্তু এত ভালো নির্মাণ উপকরণ ও ভবন সাজাতে ভালো আইটেম দিতে গেলে ফ্ল্যাটের মূল্য তো বেড়ে যাবে। এত দাম দিয়ে কি মানুষ ফ্ল্যাট কিনবে? মোহাম্মদ শাহজাহান বলেন, ‘ভালো জিনিস পেলে মানুষ দাম দিতেও রাজি। আমরা এ পর্যন্ত অর্ধশতাধিক ফ্ল্যাট হস্তান্তর করেছি। দাম দিয়েই মানুষ কিনছে এবং তাদের আস্থায় আমরা এগিয়ে যাচ্ছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘বর্তমানে নির্মাণ উপকরণের দাম অনেক বেড়েছে। কিন্তু তারপরও আমরা গ্রাহকের সঙ্গে যে দরে চুক্তি করেছি, সেই দরেই ফ্ল্যাট হস্তান্তর করছি। নান্দনিক ডিজাইনের পাশাপাশি ভালো সার্ভিসের মাধ্যমে আমরা এই শহরেই নগরবাসীকে গুলশানের ফ্ল্যাটের স্বাদ দিচ্ছি।’ আবাসন ব্যবসায় দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছেন এমন একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, একসময় ফ্ল্যাট মানে ছিল একটি বাসা। কিন্তু বর্তমানে একটি ফ্ল্যাটে নাগরিকদের আধুনিক সব সুযোগ-সুবিধা থাকতে হয়। এমনকি হ্যালিপ্যাডও যুক্ত করা হচ্ছে। আর তাই একসময় ডেভেলপাররা ৫ থেকে ৭ কাঠায় প্রকল্প নিতেন, কিন্তু এখন ১০ কাঠার কম আয়তনের জমিতে কোনো প্রকল্প নেওয়া হচ্ছে না। এর কারণ কী? জানতে চাইলে মোহাম্মদ শাহজাহান বলেন, ‘বর্তমানে ফ্ল্যাটের কনসেপ্ট বদলে গেছে। ফ্ল্যাট মানে শুধু ঘর নয়। ফ্ল্যাট মানে হলো একটি পরিবার বসবাস করার জন্য যা যা প্রয়োজন, সবই থাকতে হবে ফ্ল্যাটের কম্পাউন্ডের মধ্যে। আর তা করতে গিয়ে জায়গার পরিমাণ বাড়াতে হয়। কম জায়গায় সব সুযোগ-সুবিধা দেওয়া সম্ভব হয় না।’

জুমাইরা প্রকল্পগুলো মাঠপর্যায়ে বাস্তবায়ন ও বিপণনে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছেন প্রতিষ্ঠানটির ম্যানেজার শফিকুল ইসলাম (নয়ন)। জুমাইরার সব প্রকল্পে সুইমিং পুল যুক্ত থাকা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘শুধু সুইমিং পুল নয়, নাগরিক সুবিধার সব উপাদান আমরা ফ্ল্যাটে বসবাসকারীদের দিয়ে আসছি। নগরসভ্যতায় এখন শিশুরা সাঁতার জানে না। তাই সাঁতার শেখার জন্য যেমন সুইমিং পুল রাখা হচ্ছে, তেমনিভাবে শিশুদের বিকাশের জন্য খেলার জায়গা, গেম জোন, জিম জোন, লাইব্রেরি, ব্যাডমিন্টনসহ নানাবিধ কম্পোনেন্ট রাখা হচ্ছে।’

উল্লেখ্য, ২০০২ সালে জুমাইরাহ গড়ে ওঠার পর থেকে অ্যাপার্টমেন্ট নির্মাণে নগরীতে প্রায় শীর্ষে রয়েছে। নগরীর বিভিন্ন এলাকায় তাদের প্রকল্পের সংখ্যাও বেশি। নির্ধারিত সময়ে ফ্ল্যাট হস্তান্তরে প্রতিষ্ঠানটি পরীক্ষিত। আর এতে প্রতিষ্ঠানটির প্রতি মানুষের আস্থাও বেড়েছে কয়েক গুণ।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত