সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

৬২% মানুষ জানে না ডায়াবেটিসে আক্রান্ত

আপডেট : ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০৫:২৬ এএম

দেশের ৬১ দশমিক ৫ শতাংশ মানুষ জানে না তাদের ডায়াবেটিস রয়েছে, অর্থাৎ ১০০ রোগীর মধ্যে ৬২ জনই জানে না তারা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। গত বছরের এপ্রিলে প্রকাশিত বাংলাদেশ ও অস্ট্রেলিয়ার একটি গবেষক দলের এক গবেষণায় এ তথ্য পাওয়া গেছে।

এমন তথ্য জানিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) এন্ডোক্রাইনোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও ডায়াবেটিস রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. শাহজাদা সেলিম দেশ রূপান্তরকে বলেন, সারা দেশের বিভিন্ন শহরে এই গবেষণা করা হয়। তাতে দেখা গেছে, ৬২ শতাংশ রোগী তাদের ডায়াবেটিস সম্পর্কে সচেতন না। অথচ এসব রোগীর কিছুদিন পর কিডনি ও চোখ নষ্ট হবে, হার্ট অ্যাটাক হবে, স্ট্রোক হবে। কাজেই তাদের চিকিৎসা শুরু করতে হবে। কিন্তু যেহেতু তার রোগ সম্পর্কে জানে না, তাই সে চিকিৎসাও করাবে না।

এই বিশেষজ্ঞ বলেন, মানুষকে জানতে হবে ডায়াবেটিস একবার হলে আপাতত নিরাময়যোগ্য নয়, রোগটি প্রতিরোধ করতে, নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। কিন্তু তারা তো জানেই না তারা রোগী। তাহলে তারা প্রতিরোধ করবে কীভাবে? এই দুটো কারণে ডায়াবেটিস সম্পর্কে সচেতনতা খুব প্রয়োজন। সচেতন হতে হলে আগে টেস্ট করে নিতে হবে রোগ আছে কি না।

অন্যদিকে, বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির মহাসচিব মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন দেশ রূপান্তরকে বলেন, চার বছর আগে ঢাকা শহরে ১ লাখের বেশি লোকের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করেছিল সমিতি। যেসব মানুষ জানে না তার ডায়াবেটিস আছে, তাদের নমুনা নেওয়া হয়েছিল। তাতে দেখা গেছে, ২৬ শতাংশ লোকের ব্লাডে সুগার আছে; অর্থাৎ তারা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। কিন্তু তারা সেটা জানে না।

এই বিশেষজ্ঞ আরও বলেন, ইন্টারন্যাশনাল ডায়াবেটিস ফেডারেশনের গ্লোবাল সার্ভে অনুযায়ী, বিশ্বে যত ডায়াবেটিস রোগী আছে, তাদের ৫০ শতাংশই জানে না যে তাদের এই রোগ আছে। কারণ এটা একটা নীরব ঘাতক। এটা আস্তে আস্তে ক্ষতি করা শুরু করে।

আজ মঙ্গলবার বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির ৬৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ডায়াবেটিস সচেতনতা দিবস পালন করছে প্রতিষ্ঠানটি। দিবসটি উপলক্ষে সমিতির অন্যান্য অঙ্গ প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন জেলায় অবস্থিত অধিভুক্ত সমিতিগুলো দিনব্যাপী নানা কর্মসূচি পালন করছে। এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ‘ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ সর্বক্ষণ : সুস্থ দেহ, সুস্থ মন’।

বাংলাদেশে কত মানুষ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত : এ ব্যাপারে ডা. শাহজাদা সেলিম জানান, ২০২০ সালের তথ্যের ভিত্তিতে ইন্টারন্যাশনাল ডায়াবেটিস ফেডারেশন ২০২১ সালে যে হিসাব প্রকাশ করেছিল, তাতে বাংলাদেশে ১ কোটি ৩১ লাখ মানুষ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত বলে উল্লেখ করা হয়। এরপর বারডেম একটা গবেষণা করে। সেখানে মোট জনসংখ্যার ২৫ দশমিক ২ শতাংশ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত বলে উল্লেখ করা হয়। সেই হিসাবে বাংলাদেশে ৩ কোটির বেশি ডায়াবেটিস রোগী। ফলে প্রকৃত রোগীর সংখ্যা কত, তা এখনো সুস্পষ্ট নয়। রোগীর প্রকৃত সংখ্যাটা জানা জরুরি।

কেন হচ্ছে, কী ঝুঁকি : দুটি বিষয় বাংলাদেশে ডায়াবেটিসে বড় ধরনের ঝুঁকি তৈরি করেছে বলে মনে করেন ডায়াবেটিস রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. শাহজাদা সেলিম। তিনি বলেন, একটি হলো কম বয়সীদের বেশির ভাগের ডায়াবেটিস হচ্ছে। বিশ্বের বেশির ভাগ দেশে এ রকম নেই। টাইপ-২ ধরনের ডায়াবেটিস সাধারণত একটু বেশি বয়সীদের হয়। কিন্তু আমাদের এখানে ৭, ১০ ও ১২ বছর বয়সী, অর্থাৎ কম বয়সীদের হচ্ছে।

ডায়াবেটিসের ঝুঁকি সম্পর্কে এই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক বলেন, ইন্টারন্যাশনাল ডায়াবেটিস ফেডারেশনের তথ্য অনুযায়ী, ৫০ বছর বয়সেও যদি কারও ডায়াবেটিস হয় এবং ভালোভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে না পারে, তাহলে পুরুষদের ক্ষেত্রে সাড়ে ৫ বছর ও নারীদের ক্ষেত্রে সাড়ে ৬ বছর আয়ু কমে যায়। সে হিসাবে আমাদের দেশের কম বয়সীরা ১২-১৫ বছর আগেই মারা যাবে। অথচ দেশের মানুষের গড় আয়ু বেড়েছে। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকলে তারা আরও অনেক দিন বাঁচত।

বাংলাদেশের মানুষ প্রচুর খায় : ডায়াবেটিস ঝুঁকির মূল কারণ তীব্র ঝুঁকিপূর্ণ খাদ্যাভ্যাস বলে মত দেন ডা. শাহজাদা সেলিম। তিনি বলেন, ডায়াবেটিস রোগীর রক্তে সুগার বেড়ে যায়। সুগার একটা কার্বো-হাইড্রেট শর্করা; অর্থাৎ যেসব খাবার থেকে সুগার হয়, সেই খাবারগুলোই ডায়াবেটিসের প্রধান শত্রু। এসব খাবারের মধ্যে রয়েছে ভাত, রুটি, পাউরুটি, সেমাই, পায়েস, রসগোল্লা, চমচম, খেজুর, আম ইত্যাদি।

গত বছরের শুরুতে আমেরিকার বিখ্যাত একটি জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণার তথ্য জানিয়ে বিএসএমএমইউ ও বারডেমের চিকিৎসকরা বলেন, বাংলাদেশের যেসব মানুষের ডায়াবেটিস নেই, তারা সারা দিন যে পরিমাণ খাদ্য গ্রহণ করে, সেখানকার শর্করা থেকে পায় ৮০-৯০ শতাংশ ক্যালরি। অথচ ডায়াবেটিস থেকে রক্ষা পেতে হলে প্রতিদিন দরকার ৪০-৫০ শতাংশ ক্যালরি। এই অতিরিক্ত খাবার রূপান্তর হয়ে সুগার হচ্ছে ও রক্তে মিশছে।

এ ব্যাপারে ডা. শাহজাদা সেলিম বলেন, ‘আমাদের দেশে আরেকটা মারাত্মক ঝুঁকি হচ্ছে, আমরা প্রচুর খাই। অন্যান্য দেশে একবারে প্রচুর খায় না, তারা দিনে খন্ডিতভাবে খায়। খাওয়ার পর ব্লাড সুগার প্রচুর বেড়ে যাচ্ছে। ফলে যার ডায়াবেটিস নেই, তিনিও দ্রুত ডায়াবেটিসের দিকে যাচ্ছেন।’

কম খাওয়া ও বেশি হাঁটার পরামর্শ : ডায়াবেটিস থেকে রক্ষা পেতে মুখের কাজ কম করার ও পায়ের কাজ বেশি করার পরামর্শ দিয়েছেন বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির মহাসচিব মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন। তিনি দেশ রূপান্তরকে বলেন, মানুষ সতর্ক হয়ে যত কম খাবে এবং যত বেশি হাঁটাচলা করবে, তত বেশি এই রোগ থেকে রক্ষা পাবে।

এই বিশেষজ্ঞ বলেন, ‘আমাদের দেশে একজন সুস্থ সবল মানুষের বছরে অন্তত দুইবার চিকিৎসকের কাছে স্বাস্থ্যপরীক্ষা করানো উচিত। সেটা হচ্ছে না। কারও যদি তার রোগ সম্পর্কে জানা না থাকে বা অন্য রোগ দ্বারা আক্রান্ত না হয়, তা হলে সে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করাতে যায় না। আমাদের শারীরিক শ্রম কমে যাচ্ছে। প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ বা বাড়ন্ত শিশু বা কিশোর কর্মহীন জীবন যাপন করছে, প্রচুর শর্করা খাচ্ছে। এতে ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়ছে।’

বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতি বিশ্বের সর্ববৃহৎ : আজ ৬৭তম প্রতিষ্ঠা দিবস বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির। এ ব্যাপারে মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘১৯৫৬ সালের এই দিনে প্রয়াত জাতীয় অধ্যাপক ডা. মো. ইব্রাহিম ডায়াবেটিক সমিতি প্রতিষ্ঠা করেন। সমিতি প্রতিষ্ঠার কারণ হিসেবে তিনি বলেছিলেন, একজন চিকিৎসক হয়েও তিনি ডায়াবেটিস ভালো করতে পারছেন না। একবার ডায়াবেটিস হলো তো আর ভালো হবে না, নিয়ন্ত্রণ করা যাবে। নিয়ন্ত্রণ করতে হলেও রোগীকে শিক্ষা দিতে হবে। রোগী ও পরিবেশকে সচেতন করতে হবে। এ কাজগুলোর জন্য একটা সমিতি দরকার, যারা ধারাবাহিকভাবে কাজগুলো করবে।’

এই বিশেষজ্ঞ জানান, সারা বিশ্বে ১৭০টি দেশে ২৬০টি ডায়াবেটিক সমিতি আছে। বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতি বিশ্বের সর্ববৃহৎ সমিতি। কারণ বিশে^র আর কোনো ডায়াবেটিক সমিতি রোগীদের চিকিৎসা করে না। তারা সচেতন করে। কিন্তু বাংলাদেশের সমিতি প্রথম দিন থেকেই রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছে। দেশের ৬০ লাখ ডায়াবেটিস রোগী বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে নিয়মিত সেবা নিচ্ছেন। প্রতি বছর এই সংখ্যা ৪-৫ লাখ করে বাড়ছে। চিকিৎসার পাশাপাশি মানুষকে সচেতন করতে নানা কর্মসূচি পালন করছে সমিতি।

সমিতির কর্মসূচি : বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতি দিবসটি উপলক্ষে রাজধানীতে সকাল সাড়ে ৮টায় শাহবাগে বারডেম হাসপাতালের নিচে সচেতনতামূলক সেøাগানসংবলিত প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করবে। দুপুর ১২টায় বারডেম অডিটোরিয়ামে (তিনতলা) রয়েছে আলোচনা সভা। সকাল ৮টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত বারডেম ক্যাম্পাস এবং এনএইচএন ও বিআইএইচএসের বিভিন্ন কেন্দ্রসংলগ্ন স্থানে বিনা মূল্যে ডায়াবেটিস নির্ণয় করা হবে। হ্রাসকৃত মূল্যে  সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ইব্রাহিম কার্ডিয়াক হাসপাতালে (চারতলা) অনুষ্ঠেয় হার্ট ক্যাম্পে সাশ্রয়ীমূল্যে হৃদরোগীদের সেবা দেওয়া হবে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত