রোববার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

এখন আর মামলাও হয় না

আপডেট : ০৩ মার্চ ২০২৩, ০২:১৯ এএম

আবাসিক হলের কক্ষ দখলকে কেন্দ্র করে গত সপ্তাহে তিন দিনের ব্যবধানে দুই দফা সংঘর্ষে জড়ায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শাখা ছাত্রলীগের একটি উপপক্ষের দুই গ্রুপ। এ ঘটনার জের ধরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এবং পুলিশ দুটি হল থেকে ৯টি রামদা, রড ও লাঠিসোঁটা উদ্ধার করে। কিন্তু এসব অস্ত্র উদ্ধারের পরও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বা পুলিশের পক্ষ থেকে থানায় কোনো অভিযোগ বা মামলা হয়নি। আটক বা গ্রেপ্তারও হয়নি কেউ।

শুধু হলের কক্ষ দখল নয়, তুচ্ছ বিষয় নিয়ে গত এক মাসে অন্তত পাঁচবার সংঘর্ষে জড়িয়েছে ছাত্রলীগের বিবদমান গ্রুপগুলো। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এ ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। আগে কয়েকটি ঘটনায় জড়িতদের বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার করা ছাড়া কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। পুলিশ ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের দুর্বলতার কারণে সংঘাত-সংঘর্ষে জড়িতদের যেমন বিচার হয় না, তেমনি ছাত্রলীগের বিভিন্ন গ্রুপকে যারা পৃষ্ঠপোষকতা করে তারাও কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। এতে করে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনটির নেতাকর্মীরা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বেপরোয়া কর্মকা- চালিয়ে যাচ্ছে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

সংশ্লিষ্টদের ব্যক্তিরা বলছেন, আধিপত্য বিস্তার, টেন্ডারবাজি, ছাত্রীদের যৌন নিপীড়ন এবং অস্ত্রবাজি, চাঁদাবাজিসহ নানা অপরাধ কর্মকা-ের কারণে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সংঘর্ষ সংঘাতে জড়াচ্ছে।

হাটহাজারী থানার ওসি রুহুল আমীন দেশ রূপান্তরকে জানান, গত বছর বিশ্ববিদ্যালয়ের নানা ঘটনায় মামলা হয়েছে দুটি। এর মধ্যে ১৭ জুলাই যৌন নিপীড়নের অভিযোগে এক নারী শিক্ষার্থী নারী ও শিশু নির্যাতনের অভিযোগে একটি মামলা করেন। আগস্ট মাসে অন্য মামলাটি করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। ওই মামলায় ছাত্র অধিকার পরিষদের কর্মী জোবায়ের হোসেনকে আসামি করা হয়েছে। এ দুটি মামলা এখনো তদন্তাধীন।

অথচ গত বছর জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ছাত্রলীগের বিভিন্ন উপপক্ষের মধ্যে একাধিক সংঘর্ষের ঘটনার খবর সংবাদমাধ্যমে এসেছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য গত বছর ১৮ জানুয়ারি মধ্যরাতে ভিত্তিক উপপক্ষ বিজয় ও সিএফসি, ২৪ ফেব্রুয়ারি রাতে সিক্সটি নাইন ও এপিটাপ, ৫ সেপ্টেম্বর সিএফসি ও সিক্সটি নাইন, ২ ডিসেম্বর রাতে ভার্সিটি এক্সপ্রেস (ভিএক্স) ও বিজয়ের নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।

বিশ্ববিদ্যালয় পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মিজানুল ইসলাম জানান, কতটি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে সে হিসাব তাদের কাছে নেই। একটি গোয়েন্দা সংস্থার হিসাবে গত বছর ১৬টি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

২০১৯ সালের জুলাই থেকে ২০২১ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত বিভিন্ন ঘটনায় মামলা হয়েছে তিনটি। ওই তিনটি মামলায় চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছে পুলিশ।

পুলিশের তথ্যমতে, গত ৩৩ বছরে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ২১টি হত্যাকা- ঘটেছে। অধিকাংশ খুনের ঘটনা রাজনৈতিক কারণে। খুনোখুনির এসব ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন অসংখ্য তদন্ত কমিটি গঠন করলেও রিপোর্টগুলো আলোর মুখ দেখেনি। ঘটনার পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার, মামলা করলেও ৩০ বছরে এসব হত্যাকা-ের একটিরও বিচার শেষ হয়নি। ২২ বছর ধরে চলছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সিনিয়র সহসভাপতি আলী মর্তুজা চৌধুরী হত্যাকা-ের বিচার। কিন্তু ২১ খুনের মামলার একটিরও নিষ্পত্তি বা রায় হয়নি বলে জানিয়েছেন জেলা আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর-পিপি অ্যাডভোকেট ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী।

ছাত্রলীগের নিজেদের মধ্যে দ্বন্দ্ব, মারামারি নিরসনে তাদের রাজনৈতিক ‘গুরুদের’ও কোনো উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের রাজনীতি দীর্ঘদিন ধরেই দুটি পক্ষে বিভক্ত। একটি পক্ষ সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারী এবং আরেকটি পক্ষ শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের অনুসারী হিসেবে নিজেদের পরিচয় দেয়। এ দুটি পক্ষের আবার ১১টি উপপক্ষ রয়েছে। এর মধ্যে নাছির সমর্থকদের নয়টি ও নওফেল সমর্থকদের দুটি উপপক্ষ।

অবশ্য বিশ্ববিদ্যালয়ে নিজের কোনো অনুসারী নেই বলে দাবি করেন শিক্ষা উপমন্ত্রী। গত রবিবার বিকেল সাড়ে ৪টায় তিনি দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে আদর্শিক কারণে মারামারি নেই। মূল হচ্ছে আসন সংকট। কারণ অনেকের ছাত্রত্ব নেই। তারা হলের আসন দখল করে আছে। দীর্ঘদিন ধরে ফ্রিতে থাকছে। অনেকেই মাদকাসক্ত হয়ে পড়েছে।’

এমফিল বা পিএইচডির শিক্ষার্থী ছাড়া ১০ বছরের ঊর্ধ্বে একজন অছাত্র কেন হলে থাকবে এমন প্রশ্ন করে তিনি বলেন, ‘দীর্ঘদিন থাকার কারণে তারা পেশিশক্তি দেখাতে কক্ষ দখল নিয়ে নিজেদের মধ্যে মারামারি করছে। র‌্যাগিং করছে। মূল অপরাধ ঢাকার জন্য বা নিজেকে সেফ করার জন্য তারা অমুক ভাই, তমুক ভাইয়ের অনুসারী বলে প্রচার করছে।’

একমাত্র শিক্ষকরাই এ সংকট নিরসন করতে পারেন, এমন দাবি করে শিক্ষা উপমন্ত্রী বলেন, ‘আমি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে বলেছি হল থেকে অছাত্রদের বের করে দিলে সংঘাত, মারামারি ৯০ শতাংশ কমে যাবে। ব্যক্তিগত অনুসারী সৃষ্টির রাজনীতিতে আমি বিশ্বাস করি না এবং অনুসারী পরিচয়ে যারা অপরাধ করেছে বা করছে, তাদের পক্ষে থাকা বা সমর্থন আমি কখনোই করিনি এবং আগামীতেও করব না।’

সম্প্রতি ছাত্রলীগের বিবদমান গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের জেরে ধারালো অস্ত্র উদ্ধারের পরও থানায় মামলা না করা প্রসঙ্গে চবির প্রক্টর ড. রবিউল হাসান ভূঁইয়া দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘মারামারি, সংঘাতের খবর পেলেই ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করি। থানায় মামলা বা জিডি করা না হলেও সব ঘটনার তদন্ত হয়। তদন্ত রিপোর্টের ভিত্তিতে জড়িত ছাত্রদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়।’

তিনি জানান, ২০২১ সালের অক্টোবরে বিভিন্ন অপরাধে জড়িত থাকার প্রমাণ পেয়ে ছাত্রলীগের ১২ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার করা হয়। তবে এর মধ্যে আটজন মুচলেকা দেওয়ায় বহিষ্কার আদেশ প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। চলতি বছর ১১ জানুয়ারি সাংবাদিক হেনস্তা, আবাসিক হলে ভাঙচুর ও ছাত্রী হলে মারামারিসহ ছয় ঘটনায় শাখা ছাত্রলীগের ১৭ নেতাকর্মীসহ ১৮ শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার করা হয়েছে।

একাধিকবার ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ করার পরও মারামারি ও হানাহানি বন্ধ করতে পারেনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ২০০৮ সালের ১০ নভেম্বর প্রথম রাজনৈতিক কর্মকা-ের ওপর বিশ্ববিদ্যালয়ে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। এরপর ২০০৮ ও ২০১৪ সালে আরও দুই দফা রাজনৈতিক কর্মকা-ের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েও তা কার্যকর করতে পারেনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের এক নেতা নাম প্রকাশ না করে দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন ছাত্রশিবির বা ছাত্রদলের দৃশ্যত কোনো রাজনৈতিক কর্মকা- নেই। এখন ছাত্রলীগ নিজেরাই নিত্যদিন মারামারিতে লিপ্ত হচ্ছে।’

এ প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘ইদানীং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নিয়োগ নিয়ে নানা দুর্নীতির সংবাদ, ফোনালাপ গণমাধ্যমে ফাঁস হচ্ছে। যদি প্রশাসনিক দুর্বলতা থেকে থাকে তাহলে এর সুযোগগুলো কাজে লাগাচ্ছে ছাত্রলীগ নামধারীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ে চেইন অব কমান্ড নেই। নিজেদের মধ্যে বারবার সংঘর্ষে লিপ্ত হতে দেখে পুলিশ হতাশ। হাটহাজারী থানা শুধু কি বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ন্ত্রণের জন্য? এ থানার তো অনেক কাজ আছে। যদি সরষের মধ্যে ভূত থাকে, ঘরের শত্রু বিভীষণ হয়, তাহলে ছাত্রলীগের সংঘাত থামাতে পারবে না। এসব রোধ করতে হলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে আগে নিজেকে আস্থায় আনতে হবে। প্রশাসন যদি দুর্নীতিগ্রস্ত হয় সেই সুযোগ নেবে বারবার সংঘাতে লিপ্ত ছাত্রলীগ নামধারীরা।’

চট্টগ্রাম আদালতের সরকারি কৌঁসুলি শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘নিজেদের স্বার্থ রক্ষা করতে কিছু স্বার্থবাদী লোক চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের একাংশকে ব্যবহার করছেন। ছাত্রলীগ নামধারীরা নিজেরা অপকর্মের দায় থেকে রক্ষা পেতে আওয়ামী লীগের বড় বড় নেতার অনুসারী বলে প্রচার করছে। আমি জানি না যেসব নেতার সমর্থক বলে তারা প্রচার করছে সেসব নেতারা তাদের সমর্থন দিচ্ছে কি না।’

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত