বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বাংলাদেশের রিকশা আর্ট : সংকট ও সম্ভাবনা

আপডেট : ০৬ মার্চ ২০২৩, ১২:২১ এএম

এখনো পর্যন্ত বাংলাদেশের চারুকলার ইতিহাস হিসেবে যা আমাদের সামনে হাজির করা হয় তা মূলত প্রতিষ্ঠানকেন্দ্রিক। ইউরোপকেন্দ্রিক জ্ঞানের আলোকে আধুনিকতাবাদী ধারণার ওপর ভিত্তি করে এই ইতিহাস তৈরি করা হয়েছে যার মধ্যে ঔপনিবেশিক প্রভাব প্রবল। এর ফল হয়েছে এই যে, বাংলাদেশে অপ্রাতিষ্ঠানিক শিল্পধারাকে যথাযথভাবে চিহ্নিত করা এবং উপযুক্ত স্বীকৃতি ও পৃষ্ঠপোষকতার মাধ্যমে সেসব শিল্পধারাকে বিকশিত করার অনুকূল পবিবেশ-পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। বিষয়টি একটু ব্যাখ্যা করা প্রয়োজন।   

১৯৪৭ এর দেশভাগের পর বাংলাদেশের চারুকলার ইতিহাসে দুটি বিশিষ্ট/স্বতন্ত্র ধারার উদ্ভব ঘটেছিল। এর প্রথমটির কথা আমরা সবাই কমবেশি জানি জয়নুল আবেদিনের নেতৃত্বে প্রতিষ্ঠানভিত্তিক চারুকলার ধারা যেটি বিকশিত হয়েছে ঢাকায় প্রতিষ্ঠিত (১৯৪৮) আর্ট ইনস্টিটিউটকে কেন্দ্র করে (বর্তমানে যেটি চারুকলা অনুষদ হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যুক্ত)। কিন্তু প্রায় একই সময়ে, দেশভাগের পর পর ঢাকার এই শিল্প-শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বাইরে আরও কিছু শিল্পশৈলী/শিল্পধারার উদ্ভব ও বিকাশ ঘটেছিল। এটাকে আমরা অপ্রাতিষ্ঠানিক ধারা বলতে পারি। এই অপ্রাতিষ্ঠানিক ধারার নেতৃত্ব দিয়েছেন পীতলরাম সুর, আর.কে. দাস, আলাউদ্দিন, আলী নুর, দাউদ উস্তাদ প্রমুখ শিল্পীরা। এইসব অপ্রাতিষ্ঠানিক শিল্পীদের মাধ্যমেই বিকশিত হয়েছে এদেশের সিনেমা ব্যানার পেইন্টিং, রিকশা আর্ট, ট্রাক আর্ট ইত্যাদি। আর এগুলোর মধ্যে যেটি নিজস্ব শিল্পশৈলী, উপস্থাপন রীতি ও বিষয়বস্তুর স্বকীয়তায় ইতিমধ্যে দেশে-বিদেশে সুধীজনের বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে সেটি হলো রিকশা আর্ট। এই লেখায় আমরা মূলত রিকশা আর্টের সংকট ও সম্ভাবনা নিয়ে কিছু আলোচনা করব। 

২.

মূলত চাকা আবিষ্কারের ধারাবাহিকতায় পৃথিবীতে তিন চাকার বাহন রিকশার সূত্রপাত হয় ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষ দিকে ১৮৭০ সাল নাগাদ। অবিভক্ত বাংলায় রিকশার প্রচলন ঘটে কলকাতায় বিশ শতকের প্রথম ভাগে। কাছাকাছি সময়ে বর্তমান বাংলাদেশ ভূখন্ডে রিকশার প্রচলন হয় প্রথমে ময়মনসিংহ ও নারায়ণগঞ্জে এবং পরে ঢাকায় (১৯৩৮)। তবে বাংলাদেশে প্রচলন ঘটে সাইকেল রিকশার, মানুষে টানা রিকশা নয়। বাহারি ও শৌখিন পরিবহন হিসেবে ঢাকায় রিকশার আগমন ঘটে এবং ১৯৪৭-এর দেশভাগের পর ক্রমশ তা সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে। মূলত রিকশা পেইন্টিংয়ের সূত্রপাত হয় এই সময় থেকেই। অর্থাৎ ঢাকাকেন্দ্রিক আধুনিক ধারার প্রাতিষ্ঠানিক চারুকলার পাশাপাশি লোকয়াত শিল্পীদের মাধ্যমে রিকশাচিত্র তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে জনপ্রিয় হতে থাকে। বাংলাদেশে রিকশা পেইন্টিংয়ের প্রবীণ ও বিখ্যাত শিল্পী যেমন আর. কে. দাশ, আলী নূর, দাউদ উস্তাদ, আলাউদ্দিনসহ অন্যরা পঞ্চাশ ও ষাটের দশক থেকেই রিকশা পেইন্টিংয়ের সঙ্গে যুক্ত হন। তাদের ভাষ্য অনুযায়ী রিকশা পেইন্টিংয়ের চাহিদা ছিল তখন অনেক বেশি। ছবি আঁকার আনন্দ, সেই সঙ্গে এই কাজের ক্রমবর্ধমান চাহিদা তাদের এই পেশায় যুক্ত হওয়ার ক্ষেত্রে উৎসাহিত করেছে। এদের অনেকে আগের পেশা বা পৈতৃক পেশা ছেড়ে এই পেশায় যুক্ত হন। যেমন আর. কে. দাশের পৈতৃক পেশা ছিল চামড়ার কাজ। তিনি ও তার পুত্ররা এসেছেন রিকশা পেইন্টিংয়ের কাজে। লক্ষণীয়, চারুশিক্ষা প্রতিষ্ঠান কিংবা প্রতিষ্ঠানভিত্তিক শিল্পীদের তেমন কোনো ভূমিকা নেই এই বিশেষ শৈলীর উদ্ভব ও বিকাশে।

৩.

করণকৌশলের দিক থেকে রিকশার অঙ্গসজ্জাকে দুই ভাগে ভাগ করা যায়। এর একভাগে রয়েছে রেকসিন, প্লাস্টিক, আয়না, ঘণ্টা বা বাতিল সিডি ও অন্যান্য উপকরণে রিকশা অলংকরণ (টিন কেটে বিভিন্ন কারুকাজ করার উদাহরণও দেখা যায়) এবং অন্য দিকে রয়েছে রঙের সাহায্যে রিকশাকে চিত্রিত করার বিষয়টি। তবে একটি নতুন রিকশাকে আকর্ষণীয় ও দৃষ্টিনন্দন করে তোলায় রিকশা পেইন্টারদের  বিশেষ কৃতিত্ব দিতেই হবে। রিকশা আর্টের মূল লক্ষ্য রিকশাকে সুসজ্জিত ও আকর্ষণীয় করা। আর এজন্য বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ধরনের বিষয়বস্তু নির্বাচন করা হয়, বিশেষত পেছনের প্যানেলে আঁকার জন্য। সাধারণত শিল্পীরা মহাজন এবং ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী ছবি এঁকে থাকেন।

গত সত্তর বছরে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ধরনের বিষয় নিয়ে রিকশা পেইন্টিং করা হয়েছে। যেমন, ষাটের দশকে রিকশা পেইন্টিং করা হতো মূলত শীর্ষস্থানীয় চলচ্চিত্র তারকাদের প্রতিকৃতিকে অবলম্বন করে। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে মুক্তিযুদ্ধকে বিষয়বস্তু করে অনেক ছবি আঁকা হতো রিকশায়। আবার সত্তরের দশকে নতুন দেশের নতুন রাজধানী হিসেবে ঢাকা যখন বাড়তে শুরু করে তখন কাল্পনিক শহরের দৃশ্য আঁকা হতো রিকশায়। পাশাপাশি, সব সময়ই, গ্রামের জনজীবন, প্রাকৃতিক দৃশ্যের ছবিও আঁকা হতো, এখনো হয়। এছাড়াও বিভিন্ন স্টাইলের ফুল, পাখি ইত্যাদি তো আছেই।

image

বিভিন্ন মিথ বা ধর্মীয় কিংবদন্তিকে বিষয় করে রিকশায় ছবি আঁকতে দেখা যায়। যেমন, মুসলিম উপাখ্যানের দুলদুল, বোরাক কিংবা আরব্য রজনীর উপাখ্যানআলাদ্দিনের আশ্চর্য প্রদীপ ও দৈত্য, রাজকন্যা, রাজপ্রাসাদ ইত্যাদি। শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের কাদায় আটকে যাওয়া গরুর গাড়ির ছবিটি (‘সংগ্রাম’ নামে পরিচিত) রিকশাচিত্রীরা বিভিন্নভাবে এঁকেছেন। দূরবর্তী ভিনদেশি দৃশ্যও রিকশাচিত্রে দেখা যায়। যেমন, মরুভূমির ভেতর উট নিয়ে চলেছে দুই বেদুইন, কিংবা অচেনা কোনো সমুদ্র সৈকতে খেলা করছে কোনো বালক, জাপানের কোনো বাড়ি,  লন্ডন ব্রিজ, আইফেল টাওয়ার, টাইটানিক জাহাজ ইত্যাদি। স্মৃতিসৌধ, সংসদ ভবন, শহীদ মিনার ইত্যাদি স্থাপত্য রিকশাচিত্রের বিষয় হয়েছে বহুবার। মোগল স্থাপত্যের নিদর্শন তাজমহল রিকশা পেইন্টিংয়ের আরেকটি জনপ্রিয় বিষয়। তাজমহল এঁকেছেন বিভিন্ন শিল্পী নিজের নিজের মতো করে বহুবার। ইদানীং রিকশাচিত্রীদের আরেকটি প্রিয় বিষয় যমুনা সেতু (বঙ্গবন্ধু সেতু)। এছাড়া ডাইনোসরের সঙ্গে যুদ্ধরত লুঙ্গিপড়া খালি গায়ের বাঙালি রিকশাচিত্রীদের অপূর্ব কল্পনাশক্তির নিদর্শন।

তবে এর মধ্যে বিশেষ উল্লেখযোগ্য হলো, সত্তরের দশকের মাঝামাঝি, রিকশায় মানুষ আঁকার ওপর সরকারি নিষেধাজ্ঞা আরোপিত হলে রিকশা পেইন্টাররা মানুষের পরিবর্তে পশুপাখির ছবি আঁকতে শুরু করেন। যেমন, ট্রাফিক কন্ট্রোল করছে একটা শেয়াল, রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাচ্ছে একটা বাঘ, পাশে স্কুল বালকের মতো ব্যাগ কাঁধে খরগোশ ছানা চলেছে স্কুলে। শহরের অতি পরিচিত দৃশ্যশুধু কোনো মানুষ নেই, মানুষের স্থান দখল করেছে বিভিন্ন পশুপাখি। অনেকটা প্রয়োজনের তাগিদে বাধ্য হয়ে আঁঁকা হলেও এই ধারার কাজগুলো বিশেষ জনপ্রিয় হয়েছিল। এই ধারার কাজগুলোর ভেতর দিয়ে তৎকালীন সমাজ বাস্তবতাকে তুলে ধরা হয়েছে বলেও মনে করেছেন কেউ কেউ।

রিকশা পেইন্টিংয়ের কাজের ধরনের মধ্যে কখনো কখনো বাংলার লোকায়ত ধারার প্রভাব লক্ষ করা যায়। বিশেষ করে রেখার ব্যবহারে এই প্রভাব অধিক চোখে পড়ে। আবার বিভিন্ন ক্যালেন্ডার বা ছাপা ছবিকে মূল হিসেবে ব্যবহার করে নিজের মনের মাধুরী মিশিয়েও রিকশা পেইন্টাররা ছবি এঁকে থাকেন। তবে রিকশা পেইন্টংয়ে, বিশেষ করে রঙ নির্বাচনে, সিনেমার ব্যানার চিত্রীদের কাজে প্রভাব পড়েছে উল্লেখযোগ্য মাত্রায়।

৪.

তবে সরেজমিনে অনুসন্ধান করে দেখা গেছে, শিল্পধারা হিসেবে রিকশা আর্ট ক্রমশ ক্ষয়িষ্ণু।  ঢাকায় বর্তমানে (২০২৩) আনুমানিক ১০-১২ জন সক্রিয় রিকশাচিত্রী আছেন। ঢাকা ছাড়াও রাজশাহী, কুমিল্লা, যশোর, খুলনা, পাবনা, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম ইত্যাদি শহরে আরও কিছু রিকশাচিত্রী  কমবেশি কাজ করেন। হাতে আঁকা প্লেটের বিকল্প হিসেবে ডিজিটাল প্রিন্টের ব্যাপক ব্যবহার বৃদ্ধি পাওয়ায় এই বিশেষ রীতির চিত্রকলা আজ হুমকির সম্মুখীন। পেশাগত দিক দিয়ে হুমকির সম্মুখীন রিকশা পেইন্টাররা। ইতিমধ্যে বেশির ভাগ রিকশাচিত্রী পেশা পরিবর্তন করেছেন বা বিকল্প কাজ খুঁজে নিয়েছেন। ঢাকায় যারা এখনো সক্রিয়, তারা মূলত বিদেশি ক্রেতাদের ওপর নির্ভরশীল। বিদেশিদের চাহিদা অনুযায়ী বাংলাদেশের বিভিন্ন গ্রামীণ দৃশ্য যেমন ধান ভানা, উঠোনে বিশ্রাম নেওয়া, নদীতীরে সূর্যাস্ত ইত্যাদির পাশাপাশি সিনেমার পোস্টারের অনুকরণে আঁকা ছবিতে ক্রেতাদের চেহারার আদল ফুটিয়ে তোলা হয় এসব ছবিতে। এগুলো বিদেশিরা বাংলাদেশের স্মারক হিসেবে কিনে নিয়ে যান। আবার অনেক ক্রেতা পারিবারিক ছবি, বিয়ের ছবি, সন্তানদের বা বন্ধুদের ছবি রিকশা পেইন্টিংয়ের ঢঙে আঁকিয়ে নিতে পছন্দ করেন। তারপরও অনেক  শিল্পী চেষ্টা করেন তাদের কল্পনাকে কাজে লাগিয়ে পছন্দসই বিষয়বস্তুর ছবি আঁকতে। বিদেশিদের শখ মেটানো গেলেও, তাতে রিকশাচিত্রীদের জীবনে, দু’য়েকটি বিরল ব্যতিক্রম বাদে, বিশেষ কোনো হেরফের হয়েছেএমনটা মনে হয় না।

৫.

অন্যদিকে, রিকশাচিত্র নিয়ে নতুন সম্ভাবনাও তৈরি হয়েছে। দেশের বাইরে রিকশা আর্টের সমাদর লক্ষণীয়। যেমন, ১৯৮৮ সালে লন্ডনে মিউজিয়াম অব ম্যানকাইন্ডে (বর্তমানে ব্রিটিশ মিউজিয়ামের অন্তর্ভুক্ত) শিরিন আকবরের কিউরেটিংয়ে ঢাকার রিকশা পেইন্টিং নিয়ে বিশেষ প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়েছিল, যার শিরোনাম ছিল ‘Traffic Art: rickshaw paintings from Bangladesh’। ব্রিটিশ মিউজিয়ামেও বাংলাদেশের সুসজ্জিত ও চিত্রিত রিকশা সংগৃহীত আছে। জাপানের ফুকুয়াকা এশিয়ান আর্ট মিউজিয়ামেও বাংলাদেশের রিকশা পেইন্টিং নিয়ে বিশেষ প্রদর্শনী হয়েছে এবং এই মিউজিয়ামে রিকশা পেইন্টিংয়ের একটা বড় সংগ্রহ আছে। সম্প্রতি (২০১৩) জাপানের তাকামাৎসু শহরে একটি আর্ট ফেস্টিভ্যালে বাংলাদেশের রিকশাচিত্র বিশেষ গুরুত্বের সঙ্গে প্রদর্শিত  হয়েছে। নেপালেও হয়েছে বাংলাদেশের রিকশাচিত্রের প্রদর্শনী। তবে বাংলাদেশে রিকশা পেইন্টিংয়ের সবচেয়ে বড় প্রদর্শনীটি হয়েছে ১৯৯৯ সালে ঢাকায় অলিয়ঁস ফ্রঁসেজে। এই প্রদর্শনীতে পাঁচশ জন রিকশা পেইন্টার এবং তিরাশি জন বেবিট্যাক্সি (দুই স্ট্রোক বিশিষ্ট অটো রিকশা) পেইন্টারের শিল্পকর্ম প্রদর্শিত হয়েছিল। সম্প্রতি জার্মানির ক্যাসল শহরে অনুষ্ঠিত ‘ডকুমেন্টা ১৫’-এ বাংলাদেশের আরও অনেক শিল্পীর সঙ্গে অংশ নিয়েছেন রিকশাচিত্রী তপন দাস ও সিনেমা ব্যানার শিল্পী আবদুর রব খান। যুক্তরাজ্যের ম্যানচেস্টার মিউজয়ামে রিকশাচিত্রের কর্মশালা করেছেন আহমেদ হোসেন। এমনকি, কিছুদিন আগে, বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্পী ফাউন্ডেশনের সহায়তায় ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদে অনুষ্ঠিত হয়েছে ঐতিহ্যবাহী রিকশা আর্ট কর্মশালা যেখানে নতুন শিল্প-শিক্ষার্থীরা সরাসরি রিকশাচিত্রীদের কাছে হাতেকলমে শিখতে পেরেছেন বিভিন্ন কলাকৌশল এবং এই শিল্পের নিজস্ব নান্দনিকতা। এছাড়াও বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান বৃত্ত আর্ট ট্রাস্ট, যথাশিল্প রিকশাচিত্র নিয়ে নানা ধরনের কাজ করে থাকে। 

রিকশা আর্ট বাংলাদেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ শিল্পশৈলী। আমরা যদি এখনই সুচিন্তিত ও সুদূরপ্রসারী পদক্ষেপ গ্রহণ না করি তাহলে ভবিষ্যতে হয়তো এর স্থান হবে শুধু জাদুঘরে। আমরা কি সেই দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করব? আমার ধারণা, এখনো সময় শেষ হয়ে যায়নি। উপযুক্ত পদক্ষেপ নিলে রিকশাচিত্র বহমানতা বজায় রেখে স্বতন্ত্র শিল্পশৈলী হিসেবে টিকে থাকতে পারবে বলে আশা করা যায়।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত