বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

মেঝেতে বারান্দায় চিকিৎসা

আপডেট : ১৫ মার্চ ২০২৩, ০২:২১ এএম

বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (শেবাচিম) পুরোনো ভবনের চারতলায় মহিলা সার্জারি ওয়ার্ডের রোগীদের হাসপাতালের বারান্দা, মেঝে ও ওয়ার্ডের বাইরে (সামনে) চিকিৎসা চলছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন রোগীর স্বজন ও চিকিৎসাধীন রোগীরা। কর্তৃপক্ষের দাবি, হাসপাতালে অতিরিক্ত রোগীর চাপ সামলাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে তাদের।

সরেজমিনে সার্জারি ওয়ার্ডে গিয়ে দেখা যায়, ওয়ার্ডের ৪টি ইউনিটে মোট বেড সংখ্যা ৮০টি। গতকাল মঙ্গলবার এই ওয়ার্ডে নতুন ভর্তি হয়েছে ১৫ জন। এছাড়া সোমবার থেকে মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত মোট ভর্তি ছিল ১৪৮ জন। ওয়ার্ডের ভেতরে স্যাঁতস্যাঁতে পরিবেশ, ছড়াচ্ছে দুর্গন্ধ। ওয়ার্ডে বৈদ্যুতিক পাখাও (ফ্যান) নেই পর্যাপ্ত। নার্সদের অফিস রুমের জানালা ভাঙা ও মেজেতে  খোনাখন্দে ওয়ার্ডের বাইরে দেখা যায়, ওয়ার্ডের প্রবেশ পথেই ১০ জন রোগীকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তাদের মধ্যে একজন রয়েছেন মেঝেতে। এছাড়া ওয়ার্ডে প্রবেশপথের ডান পাশের বারান্দায় প্রায় আরও ১০ জন রোগীকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এভাবেই রোগীদের চিকিৎসা প্রদান করছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

 ওয়ার্ডের বাইরে ভর্তি হওয়া রোগী মাদারিপুরের বাসিন্দা সুমি বেগম (২৬) বলেন, ‘আমার স্বামীরে হাতে কোপাইছে। তাই হাত কেটে গেছে। হাসপাতালের ওয়ার্ডের ভেতরে অনেক গরম তাই আমাদের এখানে বেড দিয়েছে। আর এখানেই এখন গত চারদিন ধরে চিকিৎসা নিতেছি।’

একই অবস্থায় চিকিৎসা নিচ্ছেন মাকসুদা বেগম। তিনি বলেন, ‘এইখানে কেন বেড দিয়েছে জানি না। ঝামেলা করলে ভালো চিকিৎসা পাওয়া যাবে না।’ তবে হাসপাতাল থেকে ওষুধ পায় কি না এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘হাসপাতাল দিয়া ঔষধ কিনতে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়াইয়া আনা লাগে। এই বয়সে অতো শক্তি নাই। তাই সব ঔষধ বাইরে দিয়া কিনি।’

তনুজান (৭০) নামে এক রোগী বলেন, ‘শনিবার বিকালে ভর্তি হইছি। ভিতরে অনেক ভিড় তাই বাইরে বইসাই চিকিৎসা নিতেছি।’

 ওয়ার্ডের মধ্যে চিকিৎসারত রোগী (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) বলেন, ‘একটি ফ্যানের নিচে দুইটি বেড। প্রচন্ড গরম লাগে। এছাড়াও এমন একটি দুর্গন্ধ থাকে সবসময়, মাঝেমধ্যে মনে হয় মরে যাই। এই পরিবেশে থাকতে খুব কষ্ট হচ্ছে’।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, মহিলা সার্জারি ওয়ার্ডে চারটি ইউনিট। ওয়ার্ডে চিকিৎসক রয়েছেন চারজন। এ ছাড়াও চার ইউনিটের জন্য চার জন প্রফেসর রয়েছেন। অন্যদিকে প্রতিটি ইউনিটে ২ জন করে রেজিস্টার ডাক্তার রয়েছে।

ওই ওয়ার্ডের স্টাফ নার্স ইনচার্জ (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) বলেন, ‘রোগীর সুবিধার জন্য বারান্দায় এবং আশপাশে খালি জায়গায় চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। আরও বেড বাড়ানো হবে। তাদের বেডের ওপরে ফ্যানও রয়েছে।’

তিনি দাবি করেন, এত বড় ওয়ার্ডে তিন শিফটে মোট ২০ জন নার্স রয়েছে। এত কম লোকবল দিয়ে চিকিৎসা দিতে হিমশিম খাচ্ছেন তারা। এই ওয়ার্ডে সেবা নিশ্চিতে প্রায় ৫০ জন নার্স প্রয়োজন। কারণ চার ইউনিটের বেডসংখ্যা মোট ৮০টি। সেখানে সবসময় কমপক্ষে ১২ জন ভর্তি থাকে। তবে হাসপাতালে নতুন ভবন হওয়ায় সেখানে অনেক নার্স চলে গিয়েছে। তাই এসব ওয়ার্ডে নার্সের সংকটও রয়েছে বলে জানান তিনি।

 এ বিষয়ে হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. এসএম মনিরুজ্জামান বলেন, ‘আমাদের নতুন ভবন তৈরি হয়েছে। সেখানে অনেক নার্স চলে গিয়েছে। এদিকে আমাদের জনবল না বাড়া সত্ত্বেও প্রতিনিয়ত রোগীর চাপ সামাল দিতে হচ্ছে। তবে সব কিছুই সমন্বয় করার চেষ্টা চলছে।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত