শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ব্যাটিং ব্যর্থতার পর শেষ সেশনে ৬ উইকেট নিল বাংলাদেশ

আপডেট : ০১ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৫৬ পিএম

২২৫ রান আর ১৫ উইকেট পতনের একটি দিন পার হলো সাগরিকায়। প্রথম ইনিংসে ১৭৮ রানে অসহায় আত্মসমর্পনের পর শ্রীলঙ্কার সুযোগ ছিল বাংলাদেশকে ফলো অন করানোর। ধনঞ্জয়া সে পথে হাটেননি। ৩৫২ রানে এগিয়ে থাকা সত্ত্বেও আবার ব্যাটিংয়ে নামে তারা। তবে এ যাত্রায় জ্বলে ওঠেন দুই বাংলাদেশি পেসার। অভিষেক টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ৪ উইকেট শিকার হাসান মাহমুদের। খালেদের দুটো।

এতে ৬ উইকেটে ১০২ রানে তৃতীয় দিন পার করে শ্রীলঙ্কা। ৪৫৫ রানে এগিয়ে রয়েছে তারা। জীবন পেয়ে ৩৯ রানে অপরাজিত আছেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস। তার সঙ্গী প্রভাত জয়সুরিয়া ৩ রানে।

ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই দিমুথ করুনারত্নেকে বোল্ড করে উইকেট এনে দেন হাসান মাহমুদ। এই টেস্টে দুবারই হাসানের বলে বোল্ড হলেন করুনারত্নে। পরের ওভারে খালেদ আহমেদ ফেরান কুশল মেন্ডিসকে। করুনারত্নে ৪ ও কুশল ২ রান করেন।

দলীয় ৩৪ রানেই আরও একটি উইকেট পেতে পারত বাংলাদেশ। ৭ম ওভারে হাসান মাহমুদের চমৎকার ডেলিভারি ম্যাথিউসের ব্যাটের কানা ছুয়ে গেলেও প্রথম স্লিপে তালুবন্দি করতে ব্যর্থ হন শাহাদাত হোসেন দীপু। ৭ রানেই জীবন পান ম্যাথিউস।

সেই তৃতীয় উইকেটের দেখা মেলে ৬০ রানে। ৪৫ রানের জুটি গড়ার পর ফেরেন নিশান মাদুশকা। হাসানের বলে এক্সট্রা কাভারে মেহেদী হাসান মিরাজ ক্যাচ নিলে থামে নিশানের ৩৪ রানের ইনিংস।

আগের ক্যাচ মিস করার প্রায়শ্চিত্ত করেন দীপু দিনেশ চান্দিমালের ক্যাচ নিয়ে। এ উইকেটটিও নেন হাসান। ৭ বলে ৯ রান করা চান্দিমাল ফেরেন দলীয় ৭২ রানে।

অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসের ক্যাচ ফেলে দেন শাহাদত দীপ, পরে অবশ্য চান্দিমালের ক্যাচ নিয়েছেন তিনি

ক্যারিয়ারের প্রথম চার ইনিংসে ২টি করে ফিফটি ও সেঞ্চুরি হাঁকানো কামিন্দু মেন্ডিসও এবার পারেননি ইনিংস বড় করতে। তাকে ফিরিয়েছেন খালেদ আহমেদ। লিটনকে ক্যাচ দিয়ে ফেরার আগে কামিন্দু করেন ৯ রান।

৮৯ রানে ষষ্ঠ উইকেট তুলে নেয় বাংলাদেশ।

তার আগে ১ উইকেটে ৫৫ রান নিয়ে দিনটা ভালো শুরু করে বাংলাদেশ। প্রথম ঘন্টায় হারায়নি কোন উইকেট। জাকির ও তাইজুলের ৪৯ রানের জুটি ভেঙে দিনের সাফল্যের শুরুটা করে শ্রীলঙ্কা।

জাকির আউট হন ৫৪ রান করে। এরপর দ্রুতই আরও ২ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। প্রাবাথ জয়সুরিয়ার ফুল লেংথ ডেলিভারি অন ড্রাইভ করে সোজা শর্ট মিড উইকেট ফিল্ডারের হাতে ক্যাচ দেন নাজমুল হোসেন শান্ত (১)। তাইজুল করেন ৬১ বলে ২২ রানে আউট হন।

এরপর আবারও চার বলের মধ্যে সাকিব (১৫) ও লিটন (৪) আউট হলে চাপে পরে বাংলাদেশ। এক বছর পর টেস্ট খেলতে নেমে সাকিব এলবিডাব্লিউর ফাদে পরেন। রিভিউ নিয়েছিলেন তিনি। লাভ হয়নি। তবে আম্পায়ার্স কলের কারণে বেঁচে গিয়েছিল বাংলাদেশের একটি রিভিউ।

সতীর্থদের আসা-যাওয়ার মাঝে এক প্রান্ত আগলে রেখেছিলেন মুমিনুল হক। মুমিনুল ৮৪ বল খেলে ৩৩ রান করেন। বাংলাদেশ শেষ চার উইকেট হারায় ২০ রানের মধ্যে। টেস্টে এ নিয়ে টানা পাঁচ ইনিংসে ২০০ রানের নিচে অলআউট হলো বাংলাদেশ। আসিথা ফার্নান্দো ৩৪ রানে নেন ৪ উইকেট। দুটি করে উইকেট নেন বিশ্ব ফার্নান্দো, লাহিরু কুমারা ও প্রবাথ জয়াসুরিয়া। 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত