শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

আল-শিফা হাসপাতাল ছাড়ল ইসরায়েলি সেনারা

আপডেট : ০২ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:৩৯ এএম

ধ্বংসলীলা শেষে গাজার সর্ববৃহৎ চিকিৎসাকেন্দ্র আল-শিফা হাসপাতাল ছাড়ল ইসরায়েলি সেনারা। দুই সপ্তাহ ধরে হাসপাতালের ভেতর অভিযান চালিয়ে গেছে তারা। হাসপাতালটিতে রোগী ও বাস্তচ্যুত ফিলিস্তিনিসহ অত্যাবশ্যকীয় ওষুধ ও নানা চিকিৎসা সরঞ্জাম ছিল। লাগাতার আক্রমণে চিকিৎসাসংশ্লিষ্ট যাবতীয় কিছুই সংকটাপন্ন হয়ে যায়।  

আল-শিফায় অভিযান শেষ করার পর ইসরায়েলি প্রতিরক্ষা বাহিনী (আইডিএফ) বলেছে, হাসপাতালের ভেতরে তারা অভিযান চালিয়ে ‘অনেক সন্ত্রাসীকে হত্যা করেছে’। বিপুল পরিমাণ অস্ত্রশস্ত্র ও গোয়েন্দা নথি পাওয়ার দাবিও করেছে তারা।

ইসরায়েল শুরু থেকেই দাবি করে আসছিল, আল-শিফার ভেতর হামাস যোদ্ধারা ঘাঁটি তৈরি করে রয়েছে। এ নিয়ে তারা বলছে, ‘গোয়েন্দা তথ্যে আমরা জানতে বুঝতে পারছিলাম যে, আল-শিফা হাসপাতালকে হামাস ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহার করছে। হাসপাতাল থেকে হামলা পরিচালনা করছে হামাস। আইডিএফ সেই কারণে অভিযান চালিয়েছে।’ অবশ্য গাজার শাসক হামাস আল-শিফাকে ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহারের অভিযোগ অস্বীকার করেছে। গত কয়েক দিন ধরে আল-শিফা হাসপাতাল ঘিরে ভারী গোলাগুলি ও লড়াইয়ের খবর পাওয়া যাচ্ছিল।

সর্বশেষ আইডিএফ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, সেনারা হাসপাতাল এলাকায় অভিযান শেষ করে ওই এলাকা থেকে বেরিয়ে গেছে। অভিযান চালানোর সময় সৈন্যরা বেসামরিক ফিলিস্তিনি, রোগী এবং চিকিৎসাকর্মীদের যাতে কোনো ক্ষতি না হয় তার সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছে।

তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বলেছে, গত দুই সপ্তাহে আল-শিফা হাসপাতালে অন্তত ২১ রোগী মারা গেছে। ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, হাসপাতালটিতে অভিযান চালিয়ে দুই শতাধিক ‘সন্ত্রাসীকে’ হত্যা করা হয়েছে। আবার হামাস দাবি করেছে, আল-শিফায় ৪০০ জনকে হত্যা করেছে ইসরায়েল।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত