রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সুদূর তাতারাস্তানে ইউক্রেনের আঘাত

আপডেট : ০৩ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৫৩ এএম

রাশিয়ার আক্রমণ মোকাবিলা করতে গিয়ে ইউক্রেন এখন গোলাবারুদ ও অস্ত্রশস্ত্রের সংকটে রয়েছে। পশ্চিমা বিশ্বের ইউক্রেনের প্রতি সমর্থনও টলমলে হয়ে পড়েছে। তবে রাশিয়ার অভ্যন্তরে হামলা করার ক্ষেত্রে দেশটি ধীরে ধীরে বড় সাফল্যের দিকে এগোচ্ছে, যা মস্কোর শাসকদের বিচলিত করছে। সর্বশেষ ড্রোন হামলা রাশিয়ার তাতারাস্তান পর্যন্ত অগ্রসর হয়েছে, যা আঘাত করেছে শাহেদ ডোনের কারখানায়। বলা হচ্ছে, তাতারাস্তানের শিল্প অবকাঠামোয় হামলার ঘটনাটি এখন পর্যন্ত রাশিয়ার অভ্যন্তরে সবচেয়ে দূরবর্তী জায়গায় হামলা।

গতকাল মঙ্গলবার রুশ কর্তৃপক্ষ জানায়, ইউক্রেনের ড্রোন তাতারাস্তানে হামলা চালিয়েছে। ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে যুদ্ধ শুরুর পর এটি রাশিয়ার ভেতরে সবচেয়ে দূরবর্তী জায়গায় হামলা। এতে সাতজনের মতো আহত হয়। পূর্ব ইউক্রেন থেকে ১ হাজার ২০০ কিলোমিটার দূরে ইয়েলাবুগা ও নিজনেকামস্ক শহরে হামলা চালায় ইউক্রেন।

পশ্চিমা গণমাধ্যমগুলোর প্রতিবেদনে বলা হয়, তাতারাস্তানে ইউক্রেনের হামলাটি আঘাত হানে মুক্ত অর্থনৈতিক অঞ্চলে, যেখানে ইরানি শাহেদ ড্রোনের কারখানা রয়েছে। সেখানে শিক্ষার্থীদের একটি হোস্টেল এবং ওই কারখানার শ্রমিকদের আবাসে হামলা চালানো হয়েছে।

নিজনেকামস্ক শহরের মেয়র জানিয়েছেন, একটি তেল শোধনাগারে ইউক্রেনের ড্রোনের আক্রমণ রুখে দেওয়া হয়েছে।

এর আগে রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গ শহরে ড্রোন হামলা হয়, যা উত্তর দিকের সীমান্ত থেকে ১ হাজার কিলোমিটার দূরে। তখনো রুশ কর্মকর্তারা এর জন্য ইউক্রেনকে দায়ী করেন। এবার তাতারাস্তানের হামলাটি বেশ তাৎপর্যপূর্ণ; কারণ এটি আগের চেয়েও দূরবর্তী লক্ষ্যে আঘাত হানল। ভলগা নদীর তীরবর্তী তাতারাস্তান রুশ শিল্পাঞ্চল হিসেবে পরিচিত।

ইউক্রেন যে যুদ্ধক্ষেত্রে ড্রোন লড়াইয়ে মনোযোগী হয়েছে তা আগেই বোঝা গিয়েছিল। গত বছরের শেষের দিকে ইউক্রেনের ডিজিটাল ট্রান্সফর্মেশন মন্ত্রী মিখাইলো ফেদোরভ বলেন, কিয়েভ ‘ড্রোনের সেনাবাহিনী’ গড়ে তুলতে চায়।

এদিকে ধারাবাহিকভাবে রাশিয়ার অভ্যন্তরে হামলার ঘটনা নিয়ে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের অন্যতম সহযোগী রাশিয়ার নিরাপত্তা পরিষদের সেক্রেটারি নিকোলাই পাত্রুশেভ বলেছেন, ন্যাটো সামরিক জোট কার্যত রাশিয়ার বিরুদ্ধে ইউক্রেনে যুদ্ধ করছে। এ ছাড়া রাশিয়ার ভূখন্ডে হামলা চালাতে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে কাজ করছে ইউক্রেন।

পাত্রুশেভ বলেন, ১৯৪৯ সালের ৪ এপ্রিল ন্যাটো প্রতিষ্ঠিত হওয়ার সময় থেকে ৭৫ বছরের ইতিহাসে জোটটি দীর্ঘমেয়াদে বিপদ, সংকট আর সংঘাতের উৎস হিসেবে কাজ করেছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত