শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

চলন্ত ট্রেনে জন্ম নিল শিশু

আপডেট : ০৯ এপ্রিল ২০২৪, ০২:৪১ এএম

রাজশাহী-খুলনা রুটে চলাচলকারী কপোতাক্ষ এক্সপ্রেস ট্রেনে সন্তান প্রসব করেছেন এক নারী। গতকাল সোমবার সকালে এমন ঘটনা ঘটেছে। ট্রেনে সন্তান প্রসব করা স্বর্ণা আক্তারের বাড়ি ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার হুগরি পান্তাপাড়া গ্রামে। তার স্বামীর নাম ইয়াসিন আরাফাত।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক অসীম কুমার তালুকদার জানান, সন্তানসম্ভবা স্বর্ণাকে ঝিনাইদহ থেকে রাজশাহী নিয়ে আসছিলেন স্বজনরা। হঠাৎ ট্রেনেই শুরু হয় প্রসবব্যথা। ট্রেনের মাইকে ঘোষণা দেওয়া হলো, কোনো চিকিৎসক যদি থাকেন তিনি যেন দ্রুতই ছুটে যান ‘ঙ’ বগিতে। ট্রেনে ছিলেন শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক নাজনীন আক্তার। মাইকে অনুরোধ শুনেই ছুটে গেলেন। কাপড় টানিয়ে চারপাশ ঘিরে বগিতেই করা হলো ‘ওটি’। ১০ মিনিটের মাথায় জন্ম নিল এক ফুটফুটে শিশু।

অসীম কুমার তালুকদার আরও জানান, ট্রেনটি তখন ঈশ্বরদীর কাছাকাছি এলাকায়। হঠাৎ ট্রেনের মধ্যেই স্বর্ণা আক্তারের প্রসবব্যথা শুরু হয়। ট্রেনের কন্ডাক্টর গার্ড তাপস কুমার দে ও অ্যাটেনডেন্ট ইমরান হোসেনের মাধ্যমে খবর পান গার্ড ইলিয়াস কবির সেলিম। তখন ট্রেনের মাইকে ঘোষণা দিয়ে কোনো চিকিৎসক থাকলে এ ব্যাপারে সহায়তা চাওয়া হয়। তখন এগিয়ে আসেন ডা. নাজনীন আক্তার। অন্য যাত্রীরা তাদের ব্যাগ থেকে বের করে দেন কাপড়। তা দিয়েই বগির ভেতরে ‘ওটি’ তৈরি করা হয়। এরপর ওই চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে ১০ মিনিটের মধ্যে ফুটফুটে এক ছেলেসন্তানের জন্ম দেন স্বর্ণা আক্তার। ট্রেনটি দুপুরে রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশনে পৌঁছালে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক নিজেই যান উপহারসামগ্রী নিয়ে। এরপর রেলওয়ের অ্যাম্বুলেন্সে করেই নবজাতকসহ মাকে একটি ক্লিনিকে পাঠানো হয়।

অসীম কুমার তালুকদার জানান, স্বর্ণাকে রাজশাহীতেই একটি ক্লিনিকে আনা হচ্ছিল সন্তান প্রসবের জন্য। সঙ্গে কয়েকজন নারী ও এক দেবর ছিলেন। আসার পথে ট্রেনেই সন্তান প্রসব করেছেন। তারা যে ক্লিনিকে যেতেন, রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশনে পৌঁছানোর পর অ্যাম্বুলেন্সে করে সেখানে পাঠানো হয়েছে। চিকিৎসক জানিয়েছেন, মা ও নবজাতক সন্তান সুস্থ রয়েছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত