বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সালমানকে হুমকি দিয়ে চিঠি

আপডেট : ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:০০ এএম

রবিবার ভোর ৫টা নাগাদ সালমান খানের বাড়ির বাইরে চার রাউন্ড গুলি চালিয়ে পালিয়ে যান দুই অজ্ঞাত ব্যক্তি। তারপর থেকেই বান্দ্রার গ্যালাক্সি অ্যাপার্টমেন্টে হইচই। এ ঘটনায় নড়েচড়ে বসেছে মুম্বাই পুলিশ। প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের নির্দেশ দিয়েছেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী একনাথ শিন্ডে। তবে কে বা কারা এ ঘটনার পেছনে রয়েছে, তা জানতে তদন্ত শুরু করে পুলিশ।

জানা গেছে, এই হামলার ছক কষা হয়েছিল সুদূর আমেরিকায়। ঘটনার তদন্তে নেমে এমনটাই জানতে পেরেছে মুম্বাই পুলিশ। শুধু তাই নয়, মেগাস্টারের বাড়িতে হামলা চালানোর ছক প্রায় এক মাস ধরে কষা হয়েছে বলে খবর পুলিশ সূত্রে। এর মধ্যেই ঘটনার তদন্তভার নিয়েছে মুম্বাই পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চ।

এর মধ্যেই এলো হুমকির চিঠি। পুরো ঘটনার দায় স্বীকার করে নিলেন বিষ্ণোই গ্যাং। শুধু ঘটনার দায় স্বীকারই করেনি, সামাজিক মাধ্যমে পোস্ট দিয়ে রীতিমতো হুমকি দিয়েছে অভিনেতাকে।

গত বছর থেকেই ক্রমাগত প্রাণনাশের হুমকি পাচ্ছেন সালমান খান। এর আগেও সালমানকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেন লরেন্স বিষ্ণোই, যিনি এই গ্যাংয়ের প্রধান। তিনি এ মুহূর্তে জেলবন্দি।

গতকাল সোমবার সোশ্যাল মাধ্যমে তাদের হয়ে এক হুমকি পোস্ট দেন তার ভাই আনমোল বিষ্ণোই। তিনি লিখেছেন, ‘আমাদের ওপর হওয়া অত্যাচারের নিষ্পত্তি চাই। যদি তুমি সরাসরি যুদ্ধের ময়দানে নামতে চাও, তা-ই সই। আজ যা হয়েছে, তা শুধুই একটা ঝলক ছিল সালমান খান। যাতে তুমি বুঝতে পারো, আমরা কত দূর যেতে পারি। এটাই ছিল তোমাকে দেওয়া শেষ সুযোগ। এরপর গুলিটা তোমার বাড়ির বাইরে চলবে না। দাউদ ও ছোটা শাকিল নামের যে দুজনকে তুমি ভগবান মানো, সেই নামের দুটি কুকুর পুষেছি বাড়িতে। বাকি বেশি কথা বলার লোক আমি নই। জয় শ্রী রাম।’

১৯৯৮ সালে কৃষ্ণসার হরিণ শিকারকাণ্ডে নাম জড়ায় সালমানের। এর ‘বদলা নিতে’ সালমানকে খুনের হুমকি দেয় লরেন্স বিষ্ণোই গোষ্ঠী। গত বছর জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা (এনআইএ) জানিয়েছিল, জেলবন্দি গ্যাংস্টার বিষ্ণোই যে ১০ জনকে ‘খতম তালিকা’য় রেখেছেন, তাদের মধ্যে প্রথমেই রয়েছে সালমানের নাম। তারপর থেকেই সালমানকে নানাভাবে ভয় দেখানোর চেষ্টা করেছেন এই গ্যাংস্টার। এবার প্রায় অভিনেতার বাড়িতে হামলা করার মতো ঘটনা ঘটিয়ে ফেললেন তারা।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত