বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ব্র্যাক ব্যাংকের তিন কর্মকর্তার পদোন্নতি

আপডেট : ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০২:২৪ পিএম

ডিস্ট্রিবিউশন নেটওয়ার্ক এবং ফাইন্যান্স ডিভিশনের তিন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট (এসইভিপি) পদে পদোন্নতি দিয়েছে ব্র্যাক ব্যাংক। এই পদোন্নতি ১ এপ্রিল ২০২৪ থেকে কার্যকর হয়েছে। 

পদোন্নতিপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা হলেন— ব্যাংকের ডিস্ট্রিবিউশন নেটওয়ার্কের সিনিয়র জোনাল হেড-নর্থ এ. কে. এম. তারেক, সিনিয়র জোনাল হেড-সাউথ মো. তাহের হাসান আল মামুন এবং ফাইন্যান্স ডিভিশনের ফাইন্যান্সিয়াল কন্ট্রোলার মোহাম্মদ আব্দুল ওহাব মিয়া এফসিএ।

এ. কে. এম. তারেক ২০১৭ সালের এপ্রিলে ব্র্যাক ব্যাংকে দেন এবং ব্রাঞ্চ ব্যাংকিংয়ের গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৯৭ সালে তাঁর ব্যাংকিং ক্যারিয়ার শুরু করেন এবং ব্র্যাক ব্যাংকে যোগদানের পূর্বে ইস্টার্ন ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া এবং আইএফআইসি ব্যাংকসহ বিভিন্ন ব্যাংকে কাজ করেন। তারেক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মার্কেটিংয়ে বি.কম এবং এম.কম সম্পন্ন করেছেন। এছাড়াও তিনি ওমেগা পারফরমেন্স কর্পোরেশন থেকে ক্রেডিট স্কিল অ্যাসেসমেন্ট (সিএসএ) সম্পন্ন করেছেন। 

মো. তাহের হাসান আল মামুন ২০১৬ সালের অক্টোবরে ব্র্যাক ব্যাংকে যোগদান করেন। তিনি তাঁর ব্যাংকিং ক্যারিয়ার শুরু করেন ২০০৩ সালে এবং ইউসিবিএল, ব্যাংক এশিয়া এবং বেসিক ব্যাংকে ব্রাঞ্চ ম্যানেজারসহ ব্রাঞ্চ ব্যাংকিংয়ের গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন। মামুন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএ থেকে ফাইন্যান্সে এমবিএ এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) থেকে ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে বিএসসি সম্পন্ন করেন।

মোহাম্মদ আব্দুল ওহাব মিয়া এফসিএ ২০০২ সালে রহমান রহমান হক (কেপিএমজি) চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টসে ট্রেইনি অ্যাকাউন্ট্যান্ট হিসেবে যোগদানের মাধ্যমে ক্যারিয়ার শুরু করেন। এরপর তিনি সিমেন্স বাংলাদেশ লিমিটেডে ফাইন্যান্স অ্যান্ড অ্যাকাউন্টসে সিনিয়র ম্যানেজার এবং কোম্পানি সেক্রেটারি হিসেবে যোগদান করেন। এছাড়াও তিনি সিমেন্স পিটিই লিমিটেড, সিঙ্গাপুর- এ ২০০৭ সালে ইন্টার্নাল অডিটের অধীনে ফাইন্যান্সিয়াল অডিটর হিসেবে নিযুক্ত হন। তিনি ২০১০ সাল থেকে আইএলডিসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের সিএফও ক্যাপিটাল মার্কেট অপারেশনস হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। জনাব ওহাব ২০১৪ সালে ব্র্যাক ব্যাংকের ফাইন্যান্স ডিভিশনে যোগদান করেন।

মোহাম্মদ আব্দুল ওহাব মিয়া কর্মজীবনে অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড কন্ট্রোলিং, ফাইন্যান্স, বিজনেস প্ল্যানিং অ্যান্ড বাজেটিং, রিস্ক ম্যানেজমেন্ট, ট্যাক্সেশন, রেগুলেটরি রিপোর্টিং, সিএল রিপোর্টিং এবং সামগ্রিক পলিসি ও প্রসেস নিয়ে কাজ করেছেন। বিভিন্ন ক্ষেত্রে দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে ব্যাংকের কোর ব্যাংকিং সিস্টেম (সিবিএস) এবং অন্যান্য বিষয়ে বিস্তর জ্ঞান অর্জন করেন তিনি। তিনি ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশের একজন ফেলো চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট (এফসিএ)। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অ্যাকাউন্টিংয়ে বিবিএ এবং এমবিএ সম্পন্ন করেছেন। দেশে এবং বিদেশে আয়োজিত বিভিন্ন প্রফেশনাল ট্রেনিং, ওয়ার্কশপ এবং সেমিনারে অংশগ্রহণ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে তাঁর। 

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প (এসএমই) খাতের অর্থায়নে অগ্রাধিকার দেয়ার ভিশন নিয়ে ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড ২০০১ সালে যাত্রা শুরু করে, যা এখন পর্যন্ত দেশের অন্যতম দ্রুত প্রবৃদ্ধি অর্জনকারী একটি ব্যাংক। ১৮৭টি শাখা, ৪০টি উপশাখা, ৩৩০টি এটিএম, ৪৫৬টি এসএমই ইউনিট অফিস, ১ হাজার ৮০টি এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেট এবং ৮ হাজারেরও বেশি মানুষের বিশাল কর্মীবাহিনী নিয়ে ব্র্যাক ব্যাংক কর্পোরেট ও রিটেইল সেগমেন্টেও সার্ভিস দিয়ে আসছে। আঠারো লাখেরও বেশি গ্রাহক নিয়ে ব্র্যাক ব্যাংক বিগত ২২ বছরেই দেশের সবচেয়ে বৃহৎ জামানতবিহীন এসএমই অর্থায়নকারী ব্যাংক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত