রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

কামালের রেকর্ড ভাঙা হলো না সবুজের

আপডেট : ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:৩৩ পিএম

খুব কাছে গিয়েও রফিকুল ইসলাম কামালের রেকর্ড ছুঁতে পারলেন না সোহানুর রহমান সবুজ। প্রিমিয়ার ডিভিশন হকি লিগে নিজের শেষ ম্যাচে বাংলাদেশ পুলিশের বিপক্ষে আজ ছয়টি পিসির সুযোগ কাজে লাগাতে না পেরে সবুজকে থামতে হলো ৩৯ গোলে। তাতে ১৯৯৫ সালে ঊষা ক্রীড়া চক্রের হয়ে কামালের করা ৪০ গোলের রেকর্ড অক্ষুন্ন থাকলো।

দল মেরিনার্স ৪-২ গোলে জিতলেও সবুজের মাঠ ছাড়ার সময় সঙ্গী হলো রেকর্ড গড়তে না পারার আক্ষেপ। কামালের ২৯ বছর আগের রেকর্ড পেছনে ফেলতে পুলিশের বিপক্ষে সবুজের প্রয়োজন ছিল ৩ গোল।

আগের ম্যাচে অ্যাজাক্সের বিপক্ষে চার গোল করে দলের জয়ে সবুজ করেছেন ১ গোল। সেটি পেনাল্টি স্ট্রোক থেকে। তার আগে পরে ছয়টি পিসি থেকে একটি গোলও করতে পারেননি সবুজ। ম্যাচ শুরুর প্রথম ছয় মিনিটের মধ্যে তিনটি পিসি পেয়েছিল মেরিনার্স। তবে সবুজ পারেননি সফল লক্ষ্যভেদ করতে। এরপর দলের চতুর্থ পিসিটি আর তাকে নিতে দেননি কোচ।

১৯ মিনিটে ভারতীয় রাজিন্দ সিং পিসি থেকে গোল করে দলকে এগিয়ে নেন। পিসিতে যখন হচ্ছিল না, বারবার আক্রমনে উঠে সবুজ চেয়েছিলেন ফিল্ড গোল করে রেকর্ড ছুঁতে। ২৫ মিনিটে ভালো একটা গোলের সুযোগ নষ্ট করে ক্ষোভ-হতাশায় স্টিক কয়েকবার আছাড় মারেন এই তারকা। ৩৩ মিনিটে পেনাল্টি স্ট্রোক থেকে দলের চতুর্থ গোল করে অবশ্য আশা জাগিয়েছিলেন সবুজ। তবে পরে আরও তিনটি পিসির সুযোগ হাতছাড়া করে রেকর্ডের মালিক হতে পারলেন না তিনি।

ম্যাচের শেষ মিনিটেও সুযোগ পেয়েছিলেন পিসি থেকে গোল করার। সেটাও না পারায় টিকে যায় কামালের ৪০ গোলের রেকর্ড। কামাল ৪০ গোলের রেকর্ড করেছিলেন ২২ ম্যাচ খেলে। সবুজ ৩৯ গোল করেছেন ১৫ ম্যাচে। এর আগে ২০১৬ সালে রাসেল মাহমুদ জিমি ৩৭ গোল করেছিলেন।

সবুজের খেলায় বোঝাই গেছে রেকর্ডের চাপে নিজের স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে পারেননি। নিজেও স্বীকার করেছেন চাপ নিতে না পারায় পিসিগুলো থেকে গোল করতে পারেননি তিনি, 'আক্ষেপ তো থাকবেই। খুব কাছে গিয়েও রেকর্ড ভাঙতে পারিনি। কিছুটা চাপও নিয়ে ফেলেছিলাম। তবে এটা নিয়ে ভেবে লাভ নেই। দল জিতেছে এটাই বড় কথা। সামনে আবার চেষ্টা করা যাবে।'

রেকর্ড টিকে থাকায় কিছুটা খুশি কামালও, 'রেকর্ডটা টিকে থাকায় শুকুর আলহামদুলিল্লাহ। আগামী ২৮ বছরেও এমন সুযোগ আসবে কীনা জানি না। ভেবেছিলাম সবুজ এবার পারবে। তবে ও অনেক সুযোগ নষ্ট করেছে। তারপরও ওর জন্য থাকছে অভিনন্দন ও শুভ কামণা।'

রেকর্ড হয়নি। তবে টানা দ্বিতীয়বারের মতো লিগের সেরা গোলদাতা হয়েছেন সবুজ। এটাই তার সান্ত্বনা।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত