শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

থাইরয়েড নিয়ে সচেতন থাকুন

আপডেট : ২৬ মে ২০২৪, ১০:০৬ এএম

ডা. এ হাসনাত শাহীন

ডায়াবেটিস, থাইরয়েড ও হরমোন বিশেষজ্ঞ

বাংলাদেশের সঠিক কোনো পরিসংখ্যান না থাকলেও ধারণা করা হয়, প্রায় ৩০ শতাংশ মানুষ থাইরয়েড জটিলতায় ভুগছেন। সাধারণত পুরুষের তুলনায় নারীদের মধ্যে থাইরয়েডজনিত সমস্যার হার বেশি দেখা দেয়। ২৫ মে ছিল বিশ্ব থাইরয়েড দিবস। 

আমাদের গলার সামনের দিকে প্রজাপতি আকৃতির গ্রন্থিটির নাম থাইরয়েড। এই গ্রন্থি থেকে নিঃসৃত হয়

থাইরয়েড হরমোন। মানুষের বৃদ্ধি, বিকাশ, শারীরবৃত্তিক আর বিপাকীয় নানা ক্রিয়া-প্রক্রিয়ায় এই হরমোন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এই গ্রন্থি হতে নিঃসৃত হরমোনের ঘাটতি বা আধিক্য হলে শরীরে দেখা দেয় নানা বিপত্তি। এর মধ্যে থাইরয়েড হরমোনের ঘাটতিজনিত ‘হাইপোথাইরয়েডিজম’ রোগীর সংখ্যাই বেশি। সাধারণত পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। থাইরয়েড হরমোনের ঘাটতিজনিত প্রতিক্রিয়াটা ধীরে ধীরে পরিলক্ষিত হয় বলে বেশিরভাগ রোগী সমস্যা বুঝতে পারে না। অনেক ক্ষেত্রে রুটিন পরীক্ষার সময় থাইরয়েড হরমোনের ঘাটতি পরিলক্ষিত হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে অটোইমিউন কারণে এটি দেখা দেয়। থাইরয়েডের অস্ত্রোপচার,

থাইরয়েড গ্রন্থির প্রদাহ, আয়োডিনের ঘাটতি, রেডিয়েশন ও কিছু ওষুধের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ায় হাইপোথাইরয়েডিজম হতে পারে। নবজাতকদের সাধারণত কনজেনিটাল হাইপোথাইরোডিজম দেখা দেয়। হাইপোথাইরোডিজম আক্রান্ত ব্যক্তির অতিরিক্ত ক্লান্তিবোধ, ওজন বেড়ে যাওয়া, শীত ভাব, অবসাদ, চুল ও ত্বকের সমস্যা, কোষ্ঠকাঠিন্য, মহিলাদের অনিয়মিত মাসিক বা অতিরিক্ত মাসিক, গর্ভধারণে অক্ষমতা, অকাল গর্ভপাত প্রভৃতি সমস্যা দেখা দিতে পারে। নবজাতকদের ক্ষেত্রে দৈহিক ও মস্তিষ্কের গঠন ও বিকাশ ব্যাহত হয়, এমনকি বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী হতে পারে।

হাইপারথাইরয়েডিজমের থাইরয়েড গ্রন্থি অতিরিক্ত সক্রিয়তার কারণে থাইরয়েড হরমোন বেশি নিঃসৃত হয়। এর ফলে বুক ধড়ফড় করা, অতিরিক্ত ঘাম, বারবার ক্ষুধা লাগা, ওজন কমে যাওয়া, উচ্চ রক্তচাপ, অতিরিক্ত গরম লাগা, মহিলাদের মাসিক বন্ধ হয়ে যাওয়া অথবা কম হওয়া, বন্ধ্যত্ব প্রভৃতি সমস্যা দেখা দিতে পারে। এ ছাড়া থাইরয়েড গ্রন্থি ফুলে যাওয়াকে গয়টার বা গলগন্ড বলে। হাইপোথাইরয়েডিজম, হাইপারথাইরয়েডিজম, থাইরয়েড ক্যানসার যে কোনো কারণেই এটি হতে পারে। এটি হলে সবক্ষেত্রেই অপারেশন জরুরি নয়।

মানুষের মধ্যে সচেতনতার অভাবে থাইরয়েডের রোগী চিকিৎসকের কাছে কম আসে। বয়স ও লিঙ্গভেদে ভিন্ন ভিন্ন উপসর্গ ও জটিলতা দেখা যায়। অনেক সময় উল্লেখযোগ্য কোনো উপসর্গ না থাকায় আক্রান্ত ব্যক্তি বুঝতে পারেন না। ফলে অনেকের ক্ষেত্রে এটি শনাক্তের বাইরে থেকে যায়। পরবর্তীতে জটিলতা সৃষ্টি হতে পারে। তাই থাইরয়েডের বিপত্তিজনিত কারণে উপসর্গ দেখা যায় তা সম্পর্কে অবগত হতে পারলে এই রোগের ব্যাপারে সচেতন হওয়া সম্ভব। আর সন্দেহজনক যে কোনো উপসর্গ দেখা দিলে বা থাইরয়েডের বিপত্তি শনাক্ত হলে অবশ্যই একজন হরমোন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত