সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

পুঁজিবাজারের জন্য পাঁচ প্রস্তাব

আপডেট : ২৯ মে ২০২৪, ১২:৫১ এএম

পুঁজিবাজারের স্থিতিশীলতা বজায় রাখা এবং বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ রক্ষার্থে আসন্ন ২০২৪-২৫ অর্থবছরের জাতীয় বাজেটে পাঁচটি প্রস্তাব দিয়েছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। প্রস্তাবগুলো হলো- স্টক এক্সচেঞ্জে সিকিউরিটিজ লেনদেন হতে মূলধনী মুনাফার (ক্যাপিটাল গেইন) ওপর নতুন করে কর আরোপ না করা, তালিকাভুক্ত কোম্পানির আয় কর কমানো, স্টক এক্সচেঞ্জের সদস্যদের কাছ থেকে উৎসে কর সংগ্রহের হার হ্রাস; উৎসে লভ্যাংশ আয়ের ওপর কর চূড়ান্ত নিষ্পত্তি হিসেবে বিবেচনা করা ও লভ্যাংশপ্রাপ্তির প্রথম পঞ্চাশ হাজার টাকা পর্যন্ত কর ছাড় এবং তালিকাভুক্ত বন্ড থেকে অর্জিত আয় বা সুদের ওপর কর অব্যাহতি দেওয়া।

গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর ঢাকা ক্লাবে অনুষ্ঠিত প্রাক-বাজেট সংবাদ সম্মেলনে এসব প্রস্তাবনা তুলে ধরেন ডিএসইর চেয়ারম্যান ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু। এ সময় ডিএসইর অন্যান্য পরিচালকসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

গতকাল ডিএসইর পক্ষ থেকে যেসব প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে, এর প্রায় সবগুলোই প্রতি বছরই দেওয়া হয়। তবে এসব প্রস্তাবের কোনোটিই আমলে নেয় না জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। এবার নতুন করে মূলধনী মুনাফায় এনবিআর করারোপের প্রস্তাব করায় ইতিমধ্যেই টানা দরপতন দেখা দিয়েছে বাজারে। তাই প্রস্তাবটি প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে ডিএসই, যেটি ইতিমধ্যে এফবিসিসিআইয়ের নেতৃত্বে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে যাওয়া ব্যবসায়ীরাও প্রত্যাহারের অনুরোধ জানিয়েছেন।

গতকাল ডিএসই চেয়ারম্যান পুঁজিবাজার তথা দেশের সামগ্রিক অর্থনৈতিক উন্নয়নের কথা বিবেচনায় রেখে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের স্টক এক্সচেঞ্জের তালিকাভুক্ত কোম্পানির সিকিউরিটিজ লেনদেন হতে অর্জিত মূলধনী মুনাফার ওপর নতুন করে করারোপ না করার অনুরোধ জানান। এ ছাড়া, স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত সিকিউরিটিজ লেনদেন থেকে কর হার হ্রাসের জন্যও অনুরোধ জানান তিনি। তিনি বলেন, বর্তমানে দেশের প্রায় এক কোটি লোক প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে পুঁজিবাজারের ওপর নির্ভর করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। বিশ্বায়নের যুগেও পুঁজিবাজারের দীর্ঘমেয়াদি স্থিতিশীলতা নিশ্চিতের জন্য সরকারের রাজস্ব নীতির যথেষ্ট গুরুত্ব রয়েছে। এমতাবস্থায়, দেশে স্বচ্ছ ও স্থিতিশীল পুঁজিবাজার গঠনের জন্য উপরোক্ত প্রস্তাবনাসমূহ সদয় বিবেচনার জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগকে বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।

তালিকাভুক্ত কোম্পানির করপোরেট কর হার হ্রাস প্রসঙ্গে ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু বলেন, তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর সঙ্গে অ-তালিকাভুক্ত কোম্পানির করপোরেট কর হারে সাড়ে ৭ শতাংশ ব্যবধান রয়েছে। আমাদের প্রস্তাব হলো- তালিকাভুক্ত এবং অ-তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর মধ্যে করপোরেট করহারের পার্থক্য ৭ দশমিক ৫ শতাংশের পরিবর্তে ১০ বা ১২.৫ শতাংশে উন্নীত করা। এজন্য তালিকাভুক্ত কোম্পানির কর হার হ্রাসের পাশাপাশি অ-তালিকাভুক্ত কোম্পানির করহার বৃদ্ধি করা যেতে পারে। ফলে, আরও বহুজাতিক এবং আর্থিকভাবে সচ্ছল স্থানীয় কোম্পানিগুলো এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত হতে উৎসাহিত হবে। আমরা দৃঢভাবে বিশ্বাস করি, এ ধরনের একটি নজিরবিহীন পদক্ষেপ সরকারি শেয়ার তালিকাভুক্তির ক্ষেত্রে অর্থ মন্ত্রণালয়ের দীর্ঘদিনের লালিত ও সমন্বিত প্রচেষ্টার ক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। বাংলাদেশের কর সংস্কৃতির প্রেক্ষাপটে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর অবদান প্রশংসনীয়। সংখ্যায় তুলনামূলকভাবে কম হওয়া সত্ত্বেও, আইনের যথাযথ আনুগত্য এবং প্রয়োগের কারণে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর প্রত্যক্ষ আয়কর বা রাজস্বের ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখে। আমরা বিশ্বাস করি, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) কার্যকর নির্দেশনা এবং স্টক এক্সচেঞ্জের নিবিড় পর্যবেক্ষণের অধীনে, তালিকাভুক্ত কোম্পানির কর হার হ্রাস সত্ত্বেও করপোরেট আয়করের পরিমাণ আরও বৃদ্ধি পাবে।

উৎসে লভ্যাংশ আয়ের ওপর কর সম্পূর্ণ ও চূড়ান্ত নিষ্পত্তি হিসেবে বিবেচনা করা এবং লভ্যাংশপ্রাপ্তির প্রথম ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত করছাড় প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বর্তমানে আয়কর আইনের ধারা ১১৭ মোতাবেক লভ্যাংশ থেকে উৎসে কর কর্তনের বিধান রয়েছে, যা ১৬৩ ধারার উপধারা ২(খ) মোতাবেক ন্যূনতম কর হিসেবে বিবেচিত হবে। কিন্তু উক্ত উৎসে কর্তিত কর সঞ্চয়পত্রের সুদের মতো চূড়ান্ত করযোগ্য আয় হিসেবে বিবেচনা করা হয়নি, যা পুঁজিবাজারবান্ধব নয় বলে প্রতীয়মান। তাই লভ্যাংশ আয়ের ওপর উৎসে করকে, সঞ্চয়পত্রের মুনাফার ওপর উৎসে কর্তনকৃত করের মতো চূড়ান্ত করদায় হিসেবে বিবেচনা করা প্রয়োজন। এ ছাড়া, করযোগ্য আয় গণনায় লভ্যাংশ আয়ের ওপর প্রথম ৫০ হাজার টাকা করছাড় আয়কর আইন, ২০২৩-এ বাতিল করা হয়েছে কিন্তু এটি আইটিও, ১৯৮৪ (আইটিও, ১৯৮৪)-এর ষষ্ঠ তফসিল, পার্ট-এ, প্যারা-১১ তে অনুমোদিত ছিল। বর্তমান পুঁজিবাজারের পরিস্থিতি বিবেচনা করে, লভ্যাংশ আয়ের প্রথম ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত করযোগ্য আয়ের বাইরে রাখা উচিত হবে। এটি পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের জন্য ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করতে সাহায্য করবে যা শেষ পর্যন্ত পুঁজিবাজারের সার্বিক লেনদেন বৃদ্ধি তথা কর রাজস্বের পরিমাণ বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে এবং পুঁজিবাজারের টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করবে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত