সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সাজা পেলেও ভোটে সংশয় নেই ট্রাম্পের

আপডেট : ৩১ মে ২০২৪, ০৪:১৩ এএম

পর্নো তারকা স্টর্মি ড্যানিয়েলসকে যৌন সম্পর্কের বিষয়ে মুখ বন্ধ রাখতে ঘুষ দেওয়ার অভিযোগে হওয়া মামলায় নিউ ইয়র্কের আদালতে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ও রিপাবলিকান নেতা ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিচারে সমাপনী যুক্তিতর্কের পর রায় জানাতে আলোচনায় বসছেন জুরিরা। গত বুধবার দেওয়া বিচারকের নির্দেশনামতো সুচিন্তিত এই আলোচনার পর ট্রাম্প দোষী নাকি নির্দোষ, সে বিষয়ে জুরিরা চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাবেন। রায় দেওয়ার ক্ষেত্রে যেসব বিষয় এবং আইন জুরিদের মাথায় রাখতে হবে, সেগুলো সম্পর্কে তাদের নির্দেশনা এরই মধ্যে দিয়েছেন বিচারক। বিবিসি জানায়, জুরিরা ৬ সপ্তাহ ধরে ২২ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য শুনেছেন। কয়েক ডজন প্রমাণ পেয়েছেন এবং মঙ্গলবার তারা ট্রাম্পের আইনজীবী ও কৌঁসুলিদের প্রায় ১১ ঘণ্টার সমাপনী যুক্তিতর্ক শুনেছেন। এখন তাদের একসঙ্গে বসে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তার সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়ে মুখ না খুলতে ২০১৬ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে দিয়ে সাবেক পর্নো তারকা স্টর্মি ড্যানিয়েলসকে মোটা অঙ্কের ঘুষ দিয়েছিলেন ট্রাম্পের তৎকালীন আইনজীবী মাইকেল কোহেন। তা ছাড়া, এই অর্থ দেওয়ার বিষয়টি গোপন রাখতে ট্রাম্প তার ব্যবসায়িক রেকর্ডেও জালিয়াতির আশ্রয় নিয়েছিলেন বলে অভিযোগ আছে।

বিবিসি বলছে, বিভিন্ন দিক বিবেচনায় নিয়ে জুরিরা যে রায় দেবেন তা সর্বসম্মত হওয়া বাঞ্ছনীয়। বিশ্লেষকরা বলছেন, রায় হতে পারে তিন ধরনের। প্রথমত. জুরিরা ট্রাম্পকে সব অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করতে পারেন। দ্বিতীয়ত. ট্রাম্পকে সব অভিযোগ থেকে খালাস দিতে পারেন। আর তৃতীয়ত. ট্রাম্পকে কিছু অভিযোগে দোষী, আর কিছু অভিযোগে নির্দোষ উল্লেখ করে মিশ্র রায় দিতে পারেন। বিচারক মার্চেন ট্রাম্পের বিচারকে অমীমাংসিত ঘোষণা করতে পারেন। অবশ্য ট্রাম্পের সাজা হোক বা না হোক আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়তে তার কোনো সমস্যা হবে না। কারণ নিউ ইয়র্কের আদালতে ট্রাম্প সাজা পেলেও তিনি উচ্চ আদালতে আবেদন করতে পারবেন। আর সেটির রায় আসতে লেগে যাবে কয়েক মাস।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত