মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বর্ষাকালে চোখের রোগ

আপডেট : ০৮ জুন ২০২৪, ১২:৫৮ এএম

বর্ষাকালে চোখে যে রোগটি সবচেয়ে বেশি হয়ে থাকে তার নাম হলো কনজাংকটিভাইটিস, যা ছোঁয়াচে রোগ। এ রোগের লক্ষণ হলো চোখের নিচের অংশ লাল হয়ে যায় এবং চোখে বেশ ব্যথা করে। এ রোগে আক্রান্ত হলে আরও যেসব লক্ষণ দেখা দিয়ে থাকে তা হলো এ অসুখ প্রথমে এক চোখে হয়। পরে অন্য চোখে ছড়িয়ে পড়ে। অবশ্য এটা প্রচলিত আছে যে, কনজাংকটিভাইটিস রোগটি আক্রান্ত ব্যক্তির কাছাকাছি থাকলে হয়। এ রোগের ভাইরাস বাতাসে থাকে এবং এ রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির চারপাশে যারা থাকেন, তারাও এ অসুখে আক্রান্ত হন। চোখ থেকে ক্রমাগত পানি পড়তে থাকে।

কনজাংকটিভাইটিস হলে করণীয় :

কিছুক্ষণ পর পর চোখে ঠান্ডা পানির ঝাপটা দিতে হবে। তবে পানির ঝাপটা দেওয়ার আগে হাতটা ভালো করে সাবান দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে। ভেজা চোখ টিস্যু পেপার দিয়ে মুছে নিতে হবে এবং টিস্যু পেপারটি অবশ্যই ডাস্টবিনে ফেলতে হবে।

নইলে আপনার ব্যবহার করা টিস্যু পেপার থেকে সংক্রমণ ঘটতে পারে। চশমার ব্যবহার করতে হবে। এর ফলে আপনার চোখ ভুলবশত হাত লেগে যাওয়া এবং ধুলো ধোঁয়া থেকে বাঁচবে। চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে অ্যান্টিবায়োটিক ড্রপ চোখে দিতে হবে। নিজের ব্যবহার করা প্রসাধন সামগ্রী অন্য কাউকে ব্যবহার করতে দেওয়া ঠিক হবে না। এ সময় অন্যের ব্যবহার করা প্রসাধন সামগ্রীও নিজের ব্যবহার করা উচিত হবে না। মোট কথা, নিজের নিত্যপ্রয়োজনীয় ব্যবহার্য জিনিসপত্র অন্য কাউকে ব্যবহার করতে দেওয়া যাবে না এবং অন্য কারও ব্যবহার্য জিনিস নিজেরও ব্যবহার করা যাবে না।

করণীয় :চোখ ঘষে চুলকানো যাবে না। অন্য কারও আই ড্রপ ব্যবহার করা উচিত হবে না। এর ফলে আবার কনজাংকটিভাইটিস হতে পারে। নিজের ব্যক্তিগত সামগ্রী বাকিদের সঙ্গে শেয়ার করা যাবে না। সম্ভব হলে আলাদা বাথরুম ব্যবহার করতে হবে।

নিজের তোয়ালে বা টিস্যু অন্য কাউকে ব্যবহার করতে দেবেন না। কাশী বা হাঁচার সময় মুখ ও নাক ভালোভাবে ঢেকে নিন। নিজের চোখ বার বার ধরবেন না, ডলবেন না।নিজের কনট্যাক্ট লেন্স কাউকে ব্যবহার করতে দেবেন না।

কনজাংকটিভাইটিস  আক্রান্ত হলে বার বার নিজের হাত ধোবেন বা স্যানিটাইজ করবেন। কল, হ্যান্ডেল ইত্যাদি যে সমস্ত বস্তুগুলি সকলে ছুঁয়ে থাকে তা কোনও অ্যান্টিসেপ্টিক দিয়ে পরিষ্কার করুন।

মৌসুমী অ্যালার্জি দ্বারা যদি আপনি প্রায়ই আক্রান্ত হয়ে থাকেন, তা হলে নিজের চিকিৎসকের পরামর্শে রোগ মুক্ত হওয়ার চেষ্টা করুন।

নিয়মিত সাঁতার কাটলে চোখে সুইমিং গগলস পরে পানিতে নামুন। এর ফলে পানিতে থাকা ব্যাকটেরিয়া বা অন্য কোনও সূক্ষ্ণ জীবাণুর সংক্রমণ থেকে বাঁচতে পারবেন।

গোসল বা যে কোনও ধরনের সংস্পর্শে আসার আগে নিজের কনট্যাক্ট লেন্স খুলে রেখে দিন। যাতে কোনও ব্যাকটেরিয়া আপনার লেন্স ও চোখের মাঝখানে না-আটকে যায়। অযথা চোখে হত দিতে নেই। তাছাড়া চিকিৎসকদের পরামর্শ ছাড়া চোখে কোনও ওষুধ দেবেন না। বাড়ি থেকে বেরোনোর সময় রোদ চশমা পরে বের হওয়া ভালো।

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত