শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বর্ষায় ঘরের যত্ন

আপডেট : ০৮ জুন ২০২৪, ১২:১৪ এএম

বর্ষা আসার সঙ্গে সঙ্গে প্রকৃতিতে আর্দ্রতার মাত্রা বেড়ে যায়। খুব বেশি বৃষ্টিপাত আবার বাড়ির জন্য ক্ষতিকর। তার এই ঋতুতে পর্যাপ্ত সতর্ক থাকা দরকার। ফুটো ছাদ, আর্দ্র দেয়াল এ সময়ের সাধারণ সমস্যা। তাই নিজেদের বাড়ির নিরাপদ এবং রক্ষণাবেক্ষণ করা অপরিহার্য।

কাটা তার আছে কি না : বাসায় কাটা কিংবা খোলা তার আছে কিনা তা দেখে নিন। কারণ বর্ষায় ভেজা দিনে এমন কিছু দুর্ঘটনা ঘটাতে পারে। সুইচবোর্ডে ড্যাম্প আছে কিনা দেখে নিতে হবে।

টব ও গাছের যত্ন : ঘরে যদি টব বা গাছ থাকে তাহলে সেগুলোর দিকে নজর রাখতে হবে। বারান্দায় পানি নিষ্কাশনের ভালো ব্যবস্থা করতে হবে। কাদা বা মাটি জমে অনেক সময় সমস্যা হতে পারে। গাছে পোকামাকড় হতে পারে। তাই টব ও গাছ বেলকনি থেকে সামান্য সরিয়ে রাখুন।

আসবাবপত্র বা ফার্নিচার : বর্ষায় অনেক সময় কাঠের আলমারিতে ফাঙ্গাস পড়ে। দেখা যায় আলমারি পেছনের বোর্ড ফুলে গিয়ে কাঠ বেঁকে যায়। তাই বৃষ্টির দিনে আসবাবপত্র দেয়াল থেকে একটু দূরে সরিয়ে রাখতে হবে। ঘর মোছা, কাপড় ধোয়া সব ক্ষেত্রে জীবাণুনাশক ব্যবহার করা ভালো।

পোশাকের যত্ন : স্যাঁতসেঁতে আবহাওয়া পোশাকেও ফাঙ্গাস ফেলে। অনেক দিন আলমারিতে পড়ে থাকা পোশাক বের করেই পরে ফেলবেন না। খুব ভালো হয় একবার রোদে শুকিয়ে নিতে পারলে। এতে ফাঙ্গাস চলে যায়, গন্ধটাও কাটে। আর আলমারিতে কাপড়ের ফাঁকে রাখুন কর্পুর। কাপড় ঠিক থাকবে। বর্ষায় কাপড় ড্যাম হয়ে নষ্ট যেতে পারে। তাই সেগুলো বের করে মাঝেমধ্যে বাতাসে  বা রোদে দিতে পারলে খুব ভালো হয়।

বায়ু চলাচল ঠিক রাখা : আর্দ্রতার মাত্রা কমাতে দিনের বেলা জানালা খুলে রাখুন। এতে ঘরে ভালোভাবে বায়ু চলাচল হবে। বিশেষ করে, বাথরুম এবং রান্নাঘরে আলো ঢুকতে দিন। এতে করে আর্দ্রতার সঠিক মাত্রা বজায় থাকবে। তাই চেষ্টা করুন সবসময় রুমের আর্দ্রতা ঠিক রাখার।

রাসায়নিক সুগন্ধি ব্যবহার : কর্পূর বা ন্যাপথলিন আর্দ্রতা শোষণ করতে ভালো কাজ করে। কাপড় ভালো রাখতে ও কাঠের ওয়্যারড্রোব বা আলমারি পোকামাকড় এবং অন্যান্য কীট থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। প্রাকৃতিক কিছু ব্যবহার করতে চাইলে নিমপাতা বা এলাচ ব্যবহার করতে পারেন।

হিউমিডিফায়ার ব্যবহার : তাপমাত্রা ঠিক রাখতে ও স্যাঁতসেঁতে ভাব দূর করতে ‘হিউমিডিফায়ারস’ খুব ভালো কাজ করে। ঘরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকলে আসবাবও দীর্ঘস্থায়ী হবে।

ঘরের রঙ ও দেয়াল : বর্ষায় ঘরের দেয়াল ড্যাম হয়ে যেতে পারে। ভালো করে পরীক্ষা করুন। কোথাও কোনো ফাটল আছে কিনা দেখুন। আমাদের বাড়ির নিষ্কাশন পাইপগুলো বাড়ির দেয়ালের ভেতর দিয়ে বাইরের বড় পাইপের সঙ্গে গিয়ে মেশে। এসব পাইপ কোনটা ফেটে গেলে তা দেয়ালের ক্ষতি করতে পারে। এসব ফাটল ঠিক করুন। দেয়ালে ব্যবহার করুন ওয়েদার প্রুফ পেইন্ট।

ড্রেনেজ লাইন ঠিক দেখা : শহরে বর্ষা আসার আগেই আপনার বাড়ির ড্রেনেজ সিস্টেমের দিকে একটু ভালো করে নজর দিন। খেয়াল রাখুন, আপনার রেইন পাইপ বা অনান্য পাইপ ঠিক আছে কিনা। ছাদ থেকে যে পাইপ থেকে জল ড্রেনে এসে পড়ে, সেই পাইপ ঠিক আছে কিনা। আপনার বাড়ির মধ্যে কোথাও পানি জমে যাওয়ার সম্ভাবনা নেই তো? সেদিকেও ভালো করে খেয়াল রাখুন। না হলে আপনার বাড়িতে পানি জমে যাচ্ছেতাই অবস্থা হবে। বৃষ্টির জমা পানি যাতে ঠিকভাবে বেরিয়ে যেতে পারে, সেদিকে খেয়াল রাখুন। সেই ব্যবস্থা আগে থেকেই নিন। এবং বাড়ির আশপাশ সবসময় পরিষ্কার রাখুন।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত