মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

তথ্য দয়া নয় অধিকার : প্রধান তথ্য কমিশনার  

আপডেট : ১০ জুন ২০২৪, ০২:১২ এএম

প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার জ্যেষ্ঠ সাংবাদিকদের নিয়ে ‘তথ্য অধিকার আইন, ২০০৯’ শীর্ষক দিনব্যাপী কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল রবিবার আগারগাঁওয়ে তথ্য কমিশনের কার্যালয়ে এ কর্মশালা ও প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়। সকালে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন প্রধান তথ্য কমিশনার ড. আবদুল মালেক। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন দুই তথ্য কমিশনার শহীদুল আলম ঝিনুক ও মাসুদা ভাট্টি। কর্মশালায় ঢাকার বিভিন্ন গণমাধ্যমে কর্মরত ৫০ জন সাংবাদিক অংশ নেন।

প্রধান তথ্য কমিশনার বলেন, তথ্য যেন প্রকৃত বিশুদ্ধ তথ্য হয় সেজন্য আমরা আমাদের তৎপরতাকে উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায় পর্যন্ত নিয়ে যেতে চাই। আবদুল মালেক বলেন, ‘যারা তথ্য পেতে বাধার সৃষ্টি করে তাদের বার্তা দিতে চাই যে, তথ্য প্রাপ্তি কোনো দয়া, করুনা বা সুযোগ নয়, এটি আমাদের অধিকার। তথ্য অধিকার আইন সে অধিকার দিয়েছে। তাই নাগরিক হিসেবে তিনি সাংবাদিক বা যেই হোন না কেন আইনের বিধান অনুযায়ী তিনি কাক্সিক্ষত তথ্য পাবেন এবং এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কোনো গড়িমসি করা যাবে না। আইনানুগ ছাড়া কেউ তথ্য দিতে অস্বীকৃতি জানালে ছাড় দেওয়া হবে না।’

আবদুল মালেক নাগরিকের সুবিধার্থে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রকাশযোগ্য তথ্য সংশ্লিষ্টদের ওয়েবসাইটে নিয়মিত হালনাগাদ করার তাগিদ দেন।

তথ্য কমিশন থেকে জানানো হয়, সারা দেশে তথ্য অধিকার আইনে বিভিন্ন কর্তৃপক্ষের কাছে ২০২৩ পর্যন্ত দাখিলকৃত আবেদনের সংখ্যা ১ লাখ ৫৬ হাজার ৬৬৫টি। এর ৩০ শতাংশ আবেদন বা অভিযোগ সাংবাদিকদের।

কর্মশালাটি চারটি ধাপে অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে প্রথম ধাপে তথ্য অধিকার আইন, ২০০৯-এর প্রারম্ভিক বক্তব্যের মাধ্যমে কর্মশালা শুরু হয়। এরপর তথ্য প্রাপ্তির আবেদন আপিল ও অভিযোগ প্রক্রিয়া, জরিমানা ও শাস্তিমূলক ব্যবস্থা ও কোন তথ্য প্রকাশযোগ্য কোনটি নয় সে বিষয়ে সাংবাদিকদের অবহিত করেন শহীদুল আলম ঝিনুক। তথ্য কমিশনার মাসুদা ভাট্টি তথ্য সংরক্ষণ, তথ্য ব্যবস্থাপনা, স্বতঃপ্রণোদিত তথ্য প্রকাশের মাধ্যম নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় ও অবহিত করেন। এরপর তথ্য এবং অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা চর্চায় তথ্য অধিকার আইনের গুরুত্ব ও তাৎপর্য নিয়ে আলোচনা করেন জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক ও ঢাকা জার্নালের এডিটর ইন চিফ সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা।

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত