রোববার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

খালেদা জিয়া ফের হাসপাতালে

আপডেট : ০৯ জুলাই ২০২৪, ০৬:১৩ এএম

লিভার ও হৃদরোগের জটিলতায় আবারও হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। গতকাল সোমবার ভোরে গুলশানের বাসভবন ‘ফিরোজা’য় হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। পরে তার জন্য গঠিত মেডিকেল বোর্ড দ্রুত তাকে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ দেন। ভোর ৪টা ৪৫ মিনিটে তাকে হাসপাতালে এনে সিসিইউতে রাখা হয়। বিকেলে তাকে সিসিইউ সুবিধা থাকা কেবিনে নেওয়া হয়। তিনি বর্তমানে বোর্ডের নিবিড় তত্ত্বাবধায়নে কেবিনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে জানিয়েছেন বিএনপির স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা. রফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষার মধ্য দিয়ে তাকে যেতে হবে। ফলে আরও কয়েক দিন হাসপাতালে থেকেই চিকিৎসা নিতে হবে।’

জানতে চাইলে ডা. রফিকুল ইসলাম দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘হঠাৎ করে গভীর রাতে বুকে ব্যথা ওঠায় খালেদা জিয়ার জন্য গঠিত মেডিকেল বোর্ড তাকে হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেন। প্রথমে সিসিইউতে পর্যবেক্ষণে রেখে বিকেলে কেবিনে স্থানান্তর করা হয়। এবারও ম্যাডামকে কয়েক দিন হাসপাতালে থাকতে হতে পারে। তার শারীরিক অবস্থা বিশেষ ভালো নয়। লিভার ও হৃদরোগের সর্বশেষ প্যারামিটারগুলো নির্ণয় করতে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। এসবের ফল বিশ্লেষণ শেষে বোর্ড পরবর্তী নির্দেশনা দেবে।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ফুসফুস কাজ করতে না পারলেই শ্বাস-প্রশ্বাসের জটিলতা দেখা দেয়। এবার ফুসফুসে পানি জমেছে কি না, তা পরীক্ষার পরই বলা যাবে।’

গত ২৩ জুন তার হৃৎপিন্ডে ‘পেসমেকার’ বসানো হয়। ২২ জুন গভীর রাতে গুলশানের বাসায় ‘হঠাৎ অসুস্থ’ হয়ে পড়লে অ্যাম্বুলেন্সে করে খালেদা জিয়াকে করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) ভর্তি করা হয়। পরদিনই তার হৃৎপিন্ডে পেসমেকার বসানোর সফলভাবে বসানো হয়। গত ২ জুলাই এভারকেয়ার হাসপাতাল থেকে বাসায় ফেরেন তিনি। গত বছর অক্টোবরে যুক্তরাষ্ট্র থেকে তিনজন লিভার বিশেষজ্ঞ এনে তার লিভারে অস্ত্রোপচার করা হয়। অধ্যাপক শাহাবুদ্দিন তালুকদারের নেতৃত্ব বিশেষ চিকিৎসকদের তাকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

এদিকে গতকাল সোমবার দুপুরে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের খোঁজখবর নিয়ে গুলশানে চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সাংবাদিকদের বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন প্রায়ই হাসপাতালে যাওয়া-আসার মধ্যে রয়েছেন। সরকার তাকে নিঃশর্ত মুক্তি দিলে আমরা তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করব। কিন্তু সরকার তার নিঃশর্ত মুক্তি না দিয়ে তাকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে। আমরা বারবার দাবি জানাচ্ছি কিন্তু সরকার কর্ণপাত করছে না। খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবি এখন জাতীয় দাবিতে পরিণত হয়েছে। তার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে শান্তিপূর্ণ গণতান্ত্রিক আন্দোলন চলমান থাকবে।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত