দল বদলে অর্থের বাড়াবাড়ি ‘অশোভন’|110606|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১৩ নভেম্বর, ২০১৮ ১৫:৩৯
দল বদলে অর্থের বাড়াবাড়ি ‘অশোভন’
অনলাইন ডেস্ক

দল বদলে অর্থের বাড়াবাড়ি ‘অশোভন’

বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দামি ফুটবলার হয়ে উঠেছেন ১৯ বছর বয়সী এমবাপে। ছবি: সংগৃহীত

শীর্ষ পর্যায়ের দল বদলে অর্থের বাড়াবাড়ির কঠোর সমালোচনা করেছেন পিএসজি তারকা কিলিয়ান এমবাপে। বিষয়টাকে ‘অশোভন’ হিসেবে দেখছেন ফরাসি এই ফরোয়ার্ড।

গত মৌসুমের শুরুতে মোনাকো থেকে ধারে পিএসজিতে নাম লেখানো এমবাপে চলতি বছর ক্লাবটির সঙ্গে স্থায়ী চুক্তি করেন। সংবাদ মাধ্যমের খবর, ১৮ কোটি ইউরো ট্রান্সফার ফিতে ক্লাবটির সঙ্গে এই চুক্তি হয় তার। তাতে বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দামি ফুটবলার হয়ে উঠেছেন ১৯ বছর বয়সী এই খেলোয়াড়।

বিশ্বের সবচেয়ে দামি ফুটবলার নেইমার এমবাপেরই সতীর্থ। ২০১৭ সালে রেকর্ড ২২ কোটি ২০ লাখ ইউরো ট্রান্সফার ফিতে বার্সেলোনা থেকে পিএসজিতে পাড়ি জমান ব্রাজিলিয়ান এই ফরোয়ার্ড।

নেইমারের এই দল বদল ইউরোপীয় ফুটবলকে কেমন যেন নাড়িয়ে দেয়। খেলোয়াড় কেনায় ক্লাবগুলোতে দেখা যায় অর্থের বাড়াবাড়ি। নেইমারের দল বদলের পরের ১২ মাসে ইউরোপিয়ান ফুটবলে এমবাপের চুক্তিসহ ১০ কোটি ইউরোর বেশি অর্থের চুক্তি হয় আরও চারটি।

চলতি মাসে ‘ফুটবলের উইকিলিকস’ খ্যাত ফুটবল লিকসের ফাঁস করা তথ্যে জানা যায়, পিএসজিতে নাম লেখানোর সময়ে আরও একটি প্রস্তাব পেয়েছিলেন এমবাপে। কর বাদে সবকিছু মিলিয়ে সেটা ছিল মাত্র পাঁচ কোটি ৫০ লাখ ইউরোর। কিন্তু কয়েকগুণ বেশি অর্থ দিয়ে এমবাপেকে দলে টেনে নেয় পিএসজি।

শীর্ষ লিগগুলোতে অর্থের এমন ঝনঝনানি একেবারেই অস্বাভাবিক হিসেবে দেখছেন এমবাপে।

“মধ্যবিত্ত একটা পরিবার থেকে আসা আমার মতো একজন খেলোয়াড়ের জন্য বিষয়টা সত্যিই অশোভন।”

“এটা সত্যি, বিষয়টা অশোভন। তবে দল বদলের বাজার এমনই। বিশ্ব ফুটবল এভাবেই চলছে। আমি ফুটবলে বিপ্লব ঘটিয়ে দিতে পারব না। আমি একটা পদ্ধতির মধ্যে আছি।”

অসাধারণ নৈপুণ্যে অল্প বয়সেই সবার নজর কেড়েছেন এমবাপে। গত তিন বছরে ক্লাব ও জাতীয় দলের হয়ে জিতেছেন চারটি বড় শিরোপা। এর মধ্যে রাশিয়া বিশ্বকাপে ফ্রান্সের শিরোপা জয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান ছিল তার। জিতে নেন সেরা উদীয়মান খেলোয়াড়ের পুরস্কার।

এমবাপেকে অনেকে ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি পেলের সঙ্গে তুলনা করে থাকেন। যদিও কাউকে অনুকরণ করার ইচ্ছা নেই বলে জানালেন আক্রমণভাগের এই খেলোয়াড়।

“আমি কাউকে অনুকরণ করতে চাই না। কিংবদন্তিদের মতো আপনাকে নিজের মতো করেই নিজের গল্প লিখতে হবে। অন্য কাউকে অনুকরণ করে নয়, নিজের প্রতি তীব্র আত্মবিশ্বাস থাকতে হবে। তবে প্রাত্যহিক জীবনে আপনার মধ্যে ওই নম্রতাটা থাকতে হবে, যা কিংবদন্তিদের শক্তি ছিল।”