ট্রাম্পকে পাল্টা তোপ ইমরানের|110702|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২০ নভেম্বর, ২০১৮ ১৭:৪৫
ট্রাম্পকে পাল্টা তোপ ইমরানের
অনলাইন ডেস্ক

ট্রাম্পকে পাল্টা তোপ ইমরানের

আফগানিস্তানে ব্যর্থতা নিয়ে পাকিস্তানকে ‘বলির পাঁঠা’ না বানাতে যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করে দেন ইমরান। ছবি: সংগৃহীত।

শত শত কোটি ডলার আর্থিক সাহায্যের বিপরীতে যুক্তরাষ্ট্রের জন্য কিছুই করেনি পাকিস্তান- মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এমন কটাক্ষের কড়া সমালোচনা করেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তিনি বলেন, ট্রাম্পের উচিত অতীত খতিয়ে দেখা- যুক্তরাষ্ট্রের জন্য পাকিস্তানের যে ত্যাগ, তা অন্য কোনো মার্কিন মিত্র করেছে কিনা!

পাকিস্তানকে অর্থ সাহায্য বন্ধ করে দেয়ার সিদ্ধান্তের পক্ষে যুক্তি দিয়ে রোববার ফক্সনিউজকে ট্রাম্প বলেন, “আমরা পাকিস্তানকে শত শত কোটি ডলার দিয়েছিলাম। অথচ ওসামা বিন লাদেনের অবস্থান সম্পর্কে তারা আমাদের কিছুই জানায়নি।”

“বিন লাদেনকে খুঁজে দিতে আফগানিস্তান যুদ্ধের জন্যও তারা আমাদের কাছ থেকে টাকা নিয়েছে। অথচ আমাদের জন্য কিছুই করেনি”

ট্রাম্প বলেন, “বিন লাদেন পাকিস্তানেই ছিল। তাকে পেতে আমরা পাকিস্তানকে সহযোগিতা করেছিলাম, প্রতিবছর তাদেরকে ১.৩ বিলিয়ন ডলার দিয়েছি। বিনিময়ে তারা কিছুই দেয়নি আমাদের। যাই হোক, এখন এই অর্থ সহায়তা আমি বন্ধ করে দিয়েছি, কারণ তারা আমাদের জন্য কিছুই করেনি।”

ট্রাম্পের এমন বক্তব্যে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়ে ইমরান খান একের পর এক টুইট করেন বলে জানায় আলজাজিরা। তিনি সেখানে বলতে চেয়েছেন, যুক্তরাষ্ট্রের জন্য পাকিস্তানে কী করেছে আর তার ফলে তাদেরকে কেমন ভুগতে হয়েছে।  

ইমরান খান বলেন, “নাইন ইলেভেনে কোনো পাকিস্তানি নাগরিকের সম্পৃক্ততা না থাকলেও ইসলামাবাদ যুক্তরাষ্ট্রের সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিল। এই যুদ্ধে ৭৫ হাজার পাকিস্তানি নাগরিক হতাহত হয়। এ সময় ১২৩ বিলিয়ন ডলার ক্ষতি হয়েছে পাকিস্তানের। যেখানে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থ সহায়তা ছিল মাত্র ২০ বিলিয়ন ডলার যা ক্ষতির তুলনায় সামান্য।”

আফগানিস্তানে ব্যর্থতা নিয়ে পাকিস্তানকে ‘বলির পাঁঠা’ না বানাতে যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করে দেন ইমরান খান। তিনি বলেন, এক লাখ ৪০ হাজার ন্যাটো সৈন্যের পাশাপাশি আড়াই লাখ আফগান সৈন্য যুদ্ধ করছে আফগানিস্তানে। সেইসাথে এই যুদ্ধে খরচ করা হয়েছে এক ট্রিলিয়ন ডলার। এরপরেও আগের চেয়ে তালেবানরা কেন শক্তিশালী হয়ে ওঠেছে, সেদিকেই গুরুত্ব দেয়া উচিত যুক্তরাষ্ট্রের।

এছাড়া আফগান যুদ্ধের ফলে পাকিস্তানের প্রত্যন্ত অঞ্চলের উপজাতীয় এলাকার লাখ লাখ মানুষ তাদের ঘরবাড়ি হারিয়েছে। এমনকি মার্কিন সৈন্যরা স্থল ও আকাশপথ ব্যবহারেরও সুযোগ দিচ্ছে ইসলামাবাদ। কোনো মিত্রদেশ যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি এমন ত্যাগ করেছে কিনা এমন প্রশ্ন রাখেন পাক প্রধানমন্ত্রী।