যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ওপর টিয়ারশেল নিক্ষেপ|110775|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৬ নভেম্বর, ২০১৮ ১৬:৫৩
যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ওপর টিয়ারশেল নিক্ষেপ
অনলাইন ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ওপর টিয়ারশেল নিক্ষেপ

টিয়ারশেল নিক্ষেপের মাত্রা এতোটাই তীব্র ছিল যে, সীমান্তের কাছে গ্যাসের মেঘ সৃষ্টি হয়।

মেক্সিকো সীমান্ত অতিক্রম করে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করতে গিয়ে মার্কিন সীমান্তরক্ষীদের বাধার মুখে পড়েছেন অভিবাসনপ্রত্যাশীরা। রোববার তিজুয়ানা সীমান্তে তাদের ওপর লক্ষ্য করে টিয়ারশেল  নিক্ষেপ করা হয়েছে।

সহিংসতা, দারিদ্র্যতা ও রাজনৈতিক নিপীড়ন এড়াতে সম্প্রতি তারা যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় দাবি করছে। অভিবাসন প্রত্যাশীদের সীমান্ত অতিক্রমের ক্ষুব্ধ প্রচেষ্টার নেপথ্যে মার্কিন কর্তৃপক্ষের আবেদন যাচাইয়ে মন্থর গতিকে কারণ মনে করা হচ্ছে।

কাতারভিত্তিক আলজাজিরা জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের অনুমতির জন্য মার্কিন সরকারের ওপর চাপ জোরালো করতে কয়েক হাজার আশ্রয়প্রার্থী ও অভিবাসী সীমান্তে জড়ো হয়।

পরিস্থিতি সামাল দিতে মার্কিন কাস্টমস অ্যান্ড বর্ডার প্রটেকশন রোববার কিছুক্ষণের জন্য তিনটি গুরুত্বপূর্ণ বন্দর দিয়ে সবধরনের যান চলাচল ও পথচারীদের প্রবেশ বন্ধ করে দেয়। তবে সাময়িক বন্ধ থাকার পর বন্দর খুলে দেওয়া হয়েছে।

তিজুয়ানা থেকে দুই সাংবাদিক মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএনকে জানিয়েছেন, রোববার নারী ও শিশুসহ পাঁচশো অভিবাসন প্রত্যাশীর একটি দল যুক্তরাষ্ট্র সীমান্ত অভিমুখে যাওয়ার চেষ্টা করে। পুলিশি বাধা অতিক্রম করে কিছু অভিবাসনপ্রত্যাশী তাদের কাছাকাছি চলে যায় এবং সান ইসিদ্রো’র কাছ দিয়ে সীমান্ত অতিক্রমের চেষ্টা করে। সে সময় টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে তাদের ছত্রভঙ্গের চেষ্টা করা হয়।

টিয়ারশেল নিক্ষেপের মাত্রা এতোটাই তীব্র ছিল যে, সীমান্তের কাছে গ্যাসের মেঘ সৃষ্টি হয়েছে। রয়টার্সের ভিডিও ফুটেজে সে সময় অভিবাসনপ্রত্যাশীদের দিগ্বিদিক ছুটতে দেখা গেছে। শরণার্থী ও অভিবাসীদের মাত্র কয়েকজনের একটি দল সীমান্ত পাড়ি দিতে সক্ষম হয় বলে জানিয়েছে আলজাজিরা।

যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসন সংস্থা এক বিবৃতিতে জানায়, বন্দর দিয়ে অনেকেই অবৈধভাবে প্রবেশের চেষ্টা করতে পারে বলে আশঙ্কা থেকে সাময়িক সময়ের জন্য সব ধরনের প্রবেশ বন্ধ করা হয়েছে। পুনরায় খুলে দেওয়ার আগ পর্যন্ত ছয় ঘণ্টা বন্ধ ছিল বন্দরের কার্যক্রম।

মেক্সিকোর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অভিবাসন প্রত্যাশীদের সীমান্ত পার হওয়ার এই প্রচেষ্টাকে ‘প্ররোচণামূলক কর্মকাণ্ড’ বলে মন্তব্য করেছেন। একইসঙ্গে এ ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অভিবাসনপ্রত্যাশীদের চিহ্নিত করে তাদের দেশে ফেরত পাঠানোর ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, যতক্ষণ পর্যন্ত অভিবাসনের আবেদন যাচাই শেষ না হচ্ছে, ততদিন পর্যন্ত অভিবাসী হতে ইচ্ছুক ব্যক্তিদের মেক্সিকোতেই রাখা হবে। যুক্তরাষ্ট্রের সীমানার মধ্যে তাদের ঢুকতে দেওয়া হবে না। 

বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলেছে, যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসনের জন্য অপেক্ষায় থাকা ব্যক্তিদের জন্য যদি মেক্সিকোতেই আশ্রয় দিতে হয়, তাহলে আগে ওই ব্যক্তিদের জন্য মেক্সিকোকে অভিবাসনের অনুমতি দিতে হবে।

তবে ট্রাম্পের এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছে মেক্সিকো। মানবাধিকার কর্মীরাও মনে করন, এ সিদ্ধান্ত আদালতে গেলে অবৈধ সাব্যস্ত হবে।