কেন খাবেন আখরোট|110776|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৬ নভেম্বর, ২০১৮ ১৭:২৯
কেন খাবেন আখরোট
অনলাইন ডেস্ক

কেন খাবেন আখরোট

অনেক সময় সাধারণ খাবারগুলোই স্বাস্থ্যের জন্য উত্তম। বাদাম বিশেষ করে আখরোটের ক্ষেত্রে এই কথাটি চলে। সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে প্রতিদিন একমুঠো আখরোট খেলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে। চিকিৎসকদের মতে, বাদাম খাওয়ার চার ঘণ্টা পর কোলেস্টেরলের ব্যাপক উন্নতি ঘটে এবং রক্ত চলাচল নমনীয় মাত্রায় থাকে। নিয়মিত আখরোট খেলে নানা রকম স্বাস্থ্য সমস্যা থেকে রেহাই পাবেন।

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট: বিভিন্ন ভিটামিন, মিনারেলস ও অন্যান্য পুষ্টি উপাদান যা শরীরের কোষগুলোকে ফ্রি রেডিক্যালস এর ক্ষতি থেকে রক্ষা করে যা যৌবন ধরে রাখতে সাহায্য করে। আখরোটে ব্যতিক্রমী ও শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান রয়েছে যা খুব কম খাবারেই পাওয়া যায়।

স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুল পেতে: চুলের স্বাস্থ্যেও আখরোট গুরুত্বপূর্ণ। এতে বায়োটিন (ভিটামিন বি৭) রয়েছে যা চুলকে মজবুত করে, চুল পড়া রোধ করে এবং চুল লম্বা করে।

ব্রেইন ভালো রাখতে: আখরোটে গুরুত্বপূর্ণ স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে- স্মৃতিশক্তি ও মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা ঠিক রাখে। এতে উচ্চমাত্রায় এএলএ(ওমেগা৩) রয়েছে যা মস্তিষ্ক স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটায়।
ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়: গবেষণায় দেখা গেছে, যারা সপ্তাহে অন্তত পাঁচবার ৩০ গ্রাম আখরোট খান, তাদের টাইপ ২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমে।

হজম প্রক্রিয়ার উন্নতি: হজম ক্রিয়া ঠিক রাখতে সবাই খাদ্য তালিকায় ফাইবারযুক্ত খাবার রাখেন। দৈনন্দিন খাওয়া প্রোটিনযুক্ত খাবারে ফাইবারের পরিমাণ কমই থাকে। আখরোট হজম সমস্যা সমাধানে উপযুক্ত খাদ্য।

ত্বকে বয়সের ছাপ দূর করে: আখরোটে থাকা ভিটামিন ‘বি’ ত্বকের জন্য বেশ উপকারী। ভিটামিন ‘বি’ মানসিক চাপ কমায় ও মন ভালো রাখে। মানসিক চাপমুক্ত থাকলে ত্বক ভালো থাকে। এছাড়াও আখরোটে ভিটামিন ‘ই’ প্রাকৃতিক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা মানসিক চাপ বাড়ার জন্য দায়ী ফ্রি রেডিক্যাল প্রতিরোধ করে।

ডায়েটে আখরোট: এতে রয়েছে উচ্চমাত্রায় স্বাস্থ্যকর ফ্যাট এবং ক্যালোরি। এটি ফাইবার ও প্রোটিনেরও ভালো উৎস। যারা ডায়েট করেন তাদের জন্য সুখবর- আখরোট খেলে দীর্ঘ সময় ক্ষুধা লাগে না।

ক্যান্সার প্রতিরোধ:  আখরোটে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অন্যান্য নিউট্রিশন যেমন- গামা টোকোফেরল, ওমেগা৩ ফ্যাটি এসিড এবং ফিনোলিক উপাদান যেমন- ইলাজিক ও গালিক এসিড, খনিজ উপাদান সিলিনিয়াম ক্যান্সার প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান।

গর্ভাবস্থায় উপকারী: গর্ভবতী নারী যাদের ডায়েটে উচ্চমাত্রায় ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে তাদের খাদ্যতালিকায় আখরোট রাখা উচিত। এটি গর্ভের শিশুর অ্যালার্জি প্রতিরোধে সাহায্য করে।

দীর্ঘায়ু লাভ: স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রতি সপ্তাহে অন্তত তিন দিন আখরোট খেলে দীর্ঘ এবং সুস্বাস্থ্য জীবন উপভোগ করতে পারবেন।

এছাড়া আখরোট খেলে শরীরের হাড়ের স্বাস্থ্য ঠিক রাখে। এতে উপকারী ক্যালসিয়াম রয়েছে। আখরোটে থাকা ওমেগা৩ ফ্যাটি অ্যাসিড প্রদাহ বিরুদ্ধে কাজ করে।