ইউক্রেনের জাহাজ আটক রাশিয়ার, তীব্র উত্তেজনা|110777|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৬ নভেম্বর, ২০১৮ ১৭:৪২
ইউক্রেনের জাহাজ আটক রাশিয়ার, তীব্র উত্তেজনা
অনলাইন ডেস্ক

ইউক্রেনের জাহাজ আটক রাশিয়ার, তীব্র উত্তেজনা

ফের রাশিয়া-ইউক্রেনের মধ্যে উত্তেজনা পরিস্থিতি সৃষ্টি। ছবি:স্পুৎনিক

অধিকৃত ক্রিমিয়া উপদ্বীপের সমুদ্র সীমানা থেকে ইউক্রেনের নৌবাহিনীর তিনটি জাহাজ আটক করেছে রাশিয়া। এসময় রুশ বাহিনীর গুলিতে কয়েকজন ইউক্রেনীয় কর্মকর্তা আহত হয়েছেন। এনিয়ে দুই দেশের মধ্যে চরম উত্তেজনাকর পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

রাশিয়ার স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে আলজাজিরা বলছে, সোমবার সকালে কৃষ্ণসাগরে রুশ সমুদ্র সীমানায় প্রবেশ করলে ইউক্রেনের কয়েকটি জাহাজকে রুশ নৌ-টহল সেনারা আটক করে বলে দেশটির ফেডারেল সিকিউরিটি সার্ভিস (এফএসএস) জানায়।

এফএসএস বলেছে, “ইউক্রেনের এই তিনটি জাহাজের মধ্যে দুইটি হচ্ছে যুদ্ধজাহাজ। বেআইনিভাবে তারা রুশ সমুদ্র সীমানায় ঢুকে পড়ে।  সতর্ক করা হলেও তা অমান্য করে অবৈধ কর্মকাণ্ড চালানো চেষ্টা করছিল। তখন আমরা তাদের থামাতে গুলি করি।”

তবে ইউক্রেনের নৌবাহিনীর সদস্যরা জানান, রুশ বাহিনী তাদের জাহাজে হামলা করলে তারা ওই এলাকা ছেড়ে যাওয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। তাদের ছয়জন নাবিক আহত হয়েছেন।

বিবিসি ইউক্রেনের নৌ-বাহিনী সূত্রে বলছে, ভোরে ইউক্রেনের বারডিযানস্ক ও নিকোপল যুদ্ধজাহাজ এবং দি ইয়ানা কাপা জাহাজ কৃষ্ণসাগরের ওডিসি বন্দর থেকে আযোভ সাগরের মারিউপোলের উদ্দেশে রওনা দিয়েছিল। মাঝপথে জাহাজের পথ আটকানোর চেষ্টা করে রুশ বাহিনী। এরপরেও নৌযানগুলো কের্চ স্ট্রেইট দিয়ে যাচ্ছিল, তখন রাশিয়ার ট্যাংকার দ্বারা বাধাপ্রাপ্ত হয়।

প্রসঙ্গত, সাগরের যেখানে দুদেশের অংশীদারিত্ব আছে, সেখানে কের্চ স্ট্রেইট সেতুর নিচে ট্যাংকার স্থাপন করেছে রুশ বাহিনী।

বিবিসি আরো জানায়, রাশিয়া ওই এলাকায় দুটি যুদ্ধবিমান এবং দুটি হেলিকপ্টার ডেকে পাঠায়। তাদের অভিযোগ, নৌযানগুলা অবৈধভাবে তাদের জলসীমায় প্রবেশ করেছিল এবং ওই পথে চলাচল সাময়িকভাবে স্থগিত থাকবে নিরাপত্তার কারণে।

এদিকে এ ঘটনায় দুটি দেশই পরষ্পরকে দোষারোপ করেছে। ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট পেদ্রো পোরোশেংকো দেশটির উচ্চপদস্থ সামরিক কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। এ ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় সামরিক আইন জারির ঘোষণার জন্য পার্লামেন্টে আহ্বান করবেন বলে তিনি জানান।

তিনি বলেন, বিনা উস্কানিতে এমন ‘উম্মত্ত’ আচরণ করেছে রাশিয়া।

এদিকে জাতিসংঘে রাশিয়ার উপ-রাষ্ট্রদূত দিমিত্রি পলিয়ানস্কি দুই দেশের মধ্যে সমস্যা নিরসনে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।