লিভারপুলকে হারিয়ে শেষ ষোলোর আশা বাঁচিয়ে রাখল পিএসজি|110820|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৯ নভেম্বর, ২০১৮ ১৬:১৬
লিভারপুলকে হারিয়ে শেষ ষোলোর আশা বাঁচিয়ে রাখল পিএসজি
অনলাইন ডেস্ক

লিভারপুলকে হারিয়ে শেষ ষোলোর আশা বাঁচিয়ে রাখল পিএসজি

গোল করার পর পিএসজির খেলোয়াড়রা। ছবি: পিএসজির টুইটার

হেরে গেলেই ঘনিভূত হতো গ্রুপ পর্ব থেকে ছিটকে যাওয়ার শঙ্কা। এমন অবস্থায় লিভারপুলকে হারিয়ে হালে পানি পেয়েছে পিএসজি। দলটি বাঁচিয়ে রাখল চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলোয় ওঠার সম্ভাবনা।

নিজেদের মাঠে বুধবার রাতে উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচটিতে লিভারপুলকে ২-১ গোলে হারায় পিএসজি। স্বাগতিক দলের হয়ে গোল দুটি করেন হুয়ান বের্নাত ও নেইমার। অতিথি দলের হয়ে একটি গোল শোধ করেন জেমস মিলনার।

পাঁচটি করে ম্যাচ খেলেও ‘সি’ গ্রুপ থেকে এখনও কোনো দল নকআউট পর্ব নিশ্চিত করতে পারেনি। গ্রুপের শেষ পর্বের ম্যাচ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হচ্ছে দলগুলোকে।

বুধবার গ্রুপের অপর ম্যাচে সার্বিয়ার ক্লাব রেড স্টার বেলগ্রেডকে ৩-১ গোলে হারিয়ে পরের রাউন্ডে যাওয়ার সম্ভাবনা অনেকটা জোরালো করেছে নাপোলি। পাঁচ ম্যাচে দুই জয় ও তিন ড্রসহ ৯ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে আছে ইতালিয়ান লিগের ক্লাবটি।

লিভারপুলকে হারানো পিএসজি দুই জয় ও দুই ড্রসহ ৮ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে। দুই জয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে আছে লিভারপুল। বিদায় নিশ্চিত হয়ে গেছে মাত্র ৪ পয়েন্ট নিয়ে তলানিতে থাকা রেড স্টারের।

লিভারপুলের বিপক্ষে ম্যাচের শুরুতেই আক্রমণে যায় পিএসজি। দশ মিনিটের মধ্যে গোলের দুইটা সুযোগ নষ্ট হয় তাদের। তবে গোল পেতেও খুব বেশি দেরি। ত্রয়োদশ মিনিটে প্যারিসের ক্লাবটিকে এগিয়ে নেন বের্নাত। জটলার মধ্যে বল পেয়ে ডি-বক্সের মাঝামাঝি থেকে নিচু করে নেওয়া শটে জালে জড়ান এই স্প্যানিশ লেফট-ব্যাক।

৩৭তম মিনিটে পিএসজিকে দ্বিতীয় গোল এনে দেন নেইমার। ছোট ডি-বক্সে বল পাঠান কিলিয়ান এমবাপে। সেখান থেকে এদিনসন কাভানির পায়ের টোকায় বল যখন জাল স্পর্শ করতে যাচ্ছিল তখন পায়ে ঠেকিয়ে দেন লিভারপুল গোলরক্ষক আলিসন। তবে বিপদমুক্ত করতে পারেনি। ফিরে আসা বল জালে জড়ান ব্রাজিল দলে আলিসনের সতীর্থ নেইমার।

প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ের প্রথম মিনিটে একটি গোল শোধ করে ম্যাচ জমিয়ে তুলে লিভারপুল। পেনাল্টি থেকে গোলটি করেন অল রেডদের ইংলিশ মিডফিল্ডার মিলনার।

দ্বিতীয়ার্ধে আক্রমণে ধার বাড়ায় লিভারপুল। পিএসজিও কম যায়নি। এই সময়ে দুই দলই বেশ কয়েকটি সুযোগ পেলেও কোনো গোল আসেনি।