মনোনয়ন নিয়ে ইসির নীতি দ্বিমুখী : বিএনপি|110951|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৪ ডিসেম্বর, ২০১৮ ২০:৪৩
মনোনয়ন নিয়ে ইসির নীতি দ্বিমুখী : বিএনপি
রেজাউল করিম লাবলু

মনোনয়ন নিয়ে ইসির নীতি দ্বিমুখী : বিএনপি

দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ অন্যান্য প্রার্থীর মনোনয়নপত্র গ্রহণ ও বাতিলে নির্বাচন কমিশন (ইসি) দ্বিমুখী নীতি অনুসরণ করেছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। দলটির নেতারা বলছেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদার নেতৃত্বাধীন কমিশন যে স্বাধীন ও নিরপেক্ষ নয় তা আবারো প্রমাণ হয়েছে। সরকারের ইশারায় ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে নামা বিভিন্ন দলের ১৪১ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করেছে ইসি।

বিএনপির শীর্ষ পর‌্যায়ের নেতাদের দাবি, ইসি যে কারণে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী গোলাম মাওলা রনির মনোনয়নপত্র বাতিল করেছে একই অভিযোগে আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ার কথা। আবার বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের স্বাক্ষরে অসামঞ্জস্যতার অভিযোগ এনে মানিকগঞ্জে বিএনপির প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান দেশ রূপান্তরকে বলেন, “মনোনয়নপত্র বাতিল ও গ্রহণ করার ক্ষেত্রে ইসি ও প্রশাসন দ্বিমুখী নীতি অনুসরণ করেছে। পটুয়াখালী-৩ আসনে বিএনপির প্রার্থী গোলাম মাওলা রনির মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে হলফনামায় স্বাক্ষর না থাকার অভিযোগে। অথচ বিধি অনুযায়ী স্বাক্ষর না থাকার পরও আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মনোনয়নপত্র গ্রহণ করা হয়েছে। এছাড়া ঠুনকো অভিযোগে মানিকগঞ্জে বিএনপির প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের স্বাক্ষর সম্বলিত প্রত্যায়নপত্র নিয়ে সন্দেহবশত। এ বিষয়ে মির্জা ফখরুলকে জানানো যেত। যদিও ইসি সচিব হেলালুদ্দিন আহমদ আগেই বলেছিলেন ছোট-খাট অভিযোগে প্রার্থীও মনোনয়নপত্র বাতিল করা হবে না।”

দলের কারাবন্দি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ সিনিয়র নেতাদের মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ার বিষয়ে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, “সরকার ও ইসি পরিকল্পিতভাবে নির্বাচনের আগেই যাচাই-বাছাইয়ের নামে বিএনপির অনেক প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিল করেছে।”

সারাদেশে অন্তত ৬টি আসনে বিএনপির সব প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিল করায় সেখানে দলটির কোনো প্রার্থী নেই বলেও জানান রিজভী। তিনি বলেন, “কোথাও কোথাও উপজেলা চেয়ারম্যান ও পৌর মেয়রদের পদত্যাগপত্র গৃহীত হয়েছে। আবার কোথাও কোথাও পদত্যাগপত্র গ্রহণ করা হয়নি।” ইসি স্থানীয় প্রশাসনকে সঠিকভাবে নির্দেশনা না দেওয়ায় এমনটা হতে পারে বলেও জানান রিজভী।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক সদস্য বলেন, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও ইসি ঐক্যবদ্ধভাবে বিএনপিকে কোণঠাসা করতে কাজ করছে। নীল নকশার অংশ হিসেবে নির্বাচনের আগেই মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ের নামে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের প্রায় ৮২ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। সেখানে আওয়ামী লীগের বাতিল হয়েছে মাত্র একটি।

আওয়ামী লীগের বর্ষীয়ান নেতা ও সাবেক অর্থমন্ত্রী প্রয়াত শাহ এ এম এস কিবরিয়ার ছেলে ড. রেজা কিবরিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়া প্রসঙ্গে গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী বলেন, “প্রার্থিতা বাতিলের মধ্য দিয়ে সরকার একতরফা নির্বাচনের নীল নকশার পরিকল্পনা করছে বলে প্রতীয়মান হয়েছে।”