বাংলাদেশের রেমিট্যান্স বেড়েছে ১৮ ভাগ|111093|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১১:৫১
বাংলাদেশের রেমিট্যান্স বেড়েছে ১৮ ভাগ
অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশের রেমিট্যান্স বেড়েছে ১৮ ভাগ

চলতি অর্থবছরে বাংলাদেশে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়তে পারে ১৭ দশমিক ৯ ভাগ। বৈধ চ্যানেলে আসা রেমিট্যান্সের পরিমাণ ২০১৭ সালের ১৩ দশমিক ৪৯৮ বিলিয়ন ডলার থেকে বেড়ে ১৫ দশমিক ৯১৪ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়াতে পারে।

শনিবার প্রকাশিত বিশ্বব্যাংকের ‘রিজিওনাল ট্রেন্ডস ইন মাইগ্রেশন অ্যান্ড রেমিট্যান্স ফ্লোজ’ প্রতিবেদনে এমন আভাস দেয়া হয়েছে।

এতে বলা হয়, নিম্ন এবং মধ্যম আয়ের দেশগুলোতে রেমিট্যান্স প্রবাহ ব্যাপকভাবে বেড়েছে এবং এটা ২০১৮ সালে নতুন রেকর্ড স্পর্শ করতে পারে। চলতি বছর রেমিট্যান্স প্রবাহ ১০ দশমিক ৮ ভাগ বেড়ে ৫২৪ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়াতে পারে। গত বছর প্রবৃদ্ধির এই হার ছিল ৭ দশমিক ৮ ভাগ।

এছাড়া উন্নত দেশগুলোসহ বৈশ্বিক রেমিট্যান্সের প্রবাহ সার্বিকভাবে ১০ দশমিক ৩ ভাগ বেড়ে ৬৮৯ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছাতে পারে বলে প্রতিবেদনে আভাস দেয়া হয়েছে।

সব অঞ্চলেই রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়েছে। দক্ষিণ এশিয়ায় রেমিট্যান্স প্রবাহ ১৩ দশমিক ৫ ভাগ বাড়তে পারে। যুক্তরাষ্ট্রের শক্তিশালী অর্থনীতি ও কর্মসংস্থান পরিস্থিতি এবং মধ্যপ্রাচ্যের উপসাগরীয় দেশগুলো ও রাশিয়া ফেডারেশনের অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়ানোয় রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়েছে।

এবছর ভারত ৮০ বিলিয়ন ডলার নিয়ে রেমিট্যান্স আহরণে শীর্ষে অবস্থান করছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা চীন ৬৭ বিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স আয় করেছে। আর ৩৪ বিলিয়ন ডলার নিয়ে যৌথভাবে তৃতীয় স্থানে আছে মেক্সিকো ও ফিলিপাইন। চতুর্থ স্থানে থাকা মিশরের রেমিট্যান্স ২৬ বিলিয়ন ডলার।

আগামী বছর বৈশ্বিক অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হতে পারে মাঝারি পর্যায়ের। ফলে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোতে রেমিট্যান্স প্রবাহ কমতে পারে। রেমিট্যান্স প্রবৃদ্ধি মাত্র ৪ ভাগ বেড়ে ৫৪৯ বিলিয়নে দাঁড়াতে পারে।

এছাড়া ২০১৯ সালে দক্ষিণ এশিয়ায় রেমিট্যান্স প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৪ দশমিক ৩ ভাগ। বৈশ্বিক অর্থনীতির মাঝারি পর্যায়ের প্রবৃদ্ধি এবং উপসাগরীয় দেশগুলোতে অভিবাসন ও তেল থেকে আয় হ্রাসের প্রভাব পড়বে রেমিট্যান্সে।