চুয়াডাঙ্গায় বিএনপি প্রার্থীদের গাড়িবহর-মিছিলে হামলা|111191|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০৯:৫৭
চুয়াডাঙ্গায় বিএনপি প্রার্থীদের গাড়িবহর-মিছিলে হামলা
চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি

চুয়াডাঙ্গায় বিএনপি প্রার্থীদের গাড়িবহর-মিছিলে হামলা

চুয়াডাঙ্গা-১ ও ২ আসনে বিএনপির দুই প্রার্থীর গাড়িবহর ও নির্বাচনী মিছিলে হামলার ঘটনা ঘটেছে। সোমবার রাতের এসব হামলার ঘটনায় আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মীদের দায়ী করেছে দলটি। তবে আওয়ামী লীগ হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

সোমবার রাত ৯টার দিকে চুয়াডাঙ্গা-১ আসনে বিএনপির প্রার্থী শরীফুজ্জামান শরীফের গাড়িবহরে হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। আলমডাঙ্গা উপজেলার মুন্সিগঞ্জ পশুহাট এলাকায় ঘটনাটি ঘটে।

হামলায় শরীফুজ্জমানের দুটি মাইক্রোবাসে ব্যাপক ভাঙচুর করা হয়েছে। এতে দুই নেতাকর্মী আহত হয়েছে বলে দাবি বিএনপির।

বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হয়, আলমডাঙ্গা উপজেলা বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা শেষে সোমবার রাতে চুয়াডাঙ্গায় ফিরছিলেন ধানের শীষের প্রার্থী শরীফুজ্জামান।

তাদের অভিযোগ, রাত ৯টার দিকে শরীফুজ্জামানের গাড়িবহর আলমডাঙ্গা উপজেলার মুন্সিগঞ্জ পশুহাট এলাকায় পৌঁছালে একদল দুর্বৃত্ত তাদের গাড়িবহরে অতর্কিত হামলা চালায়। ভাঙচুর করা হয় দুটি হায়েস মাইক্রোবাস।

রাতেই চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবে জরুরি এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির প্রার্থী শরীফুজ্জামান শরীফ তার গাড়িবহরে হামলার বিষয়টি তুলে ধরেন।

আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা পরিকল্পিতভাবে এ হামলা চালিয়েছেন বলে তিনি দাবি করেন। হামলায় তার সঙ্গে থাকা যুবদল নেতা হাবলু ও মিশু আহত হয়েছেন বলে জানান তিনি।

চুয়াডাঙ্গা জেলার পুলিশ সুপার মাহবুবুর রহমান বলেন, “ঘটনার পরই বিএনপি প্রার্থী শরীফুজ্জামান শরীফের সঙ্গে কথা হয়েছে। ঘটনাটি তদন্তের জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।”

হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে আলমডাঙ্গা উপজেলার আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ইয়াকুব আলী মাস্টার বলেন, “আলমডাঙ্গার মুন্সিগঞ্জ পশুর হাটে আওয়ামী লীগের অফিস আছে। বিএনপি-জামায়াতের লোকজন তাদের অফিস হামলা করে। সেই হামলাটি ধামাচাপা দিতেই পাল্টা নিজেদের গাড়িবহরে হামলা চালিয়ে আওয়ামী লীগকে মিথ্যা দোষারোপ করছে।”

এদিকে, চুয়াডাঙ্গা-২ নির্বাচনী এলাকায় বিএনপির প্রার্থী মাহমুদ হাসান খাঁন বাবুর নির্বাচনী মিছিলে হামলার ঘটনা ঘটেছে। সোমবার সন্ধ্যায় জীবননগর উপজেলা শহরের চার রাস্তার মোড়ে এ ঘটনা ঘটে।

ধানের শীষের মিছিলটিতে ছাত্রলীগ-যুবলীগ হামলা চালিয়েছে বলে বিএনপির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে।