ভোলায় 'অবরুদ্ধ' বিএনপি প্রার্থী হাফিজ|111966|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৮:৩৫
ভোলায় 'অবরুদ্ধ' বিএনপি প্রার্থী হাফিজ
ভোলা প্রতিনিধি

ভোলায় 'অবরুদ্ধ' বিএনপি প্রার্থী হাফিজ

ভোলায় সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি প্রার্থী ও সাবেক সংসদ সদস্য হাফিজ ইব্রাহিম এবং আওয়ামী লীগ প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য আলী আজম মুকুল বুধবার পৃথক সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন। ছবি: দশে রূপান্তর।

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোলা ২ আসনের বোরহানউদ্দিন উপজেলায় বিএনপি প্রার্থী হাফিজ ইব্রাহিম নিজ বাসায় অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। দীর্ঘ ৪ বছর পর ১৬ ডিসেম্বর এলাকায় আসাকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট সংঘর্ষের পর তিনি তার বাসভবনে অবস্থান নেন। এরপর থেকে নির্বাচনী মাঠে তাকে আর দেখা যায়নি।

বুধবার দুপুরে নিজ বাসভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি প্রার্থী ও সাবেক সংসদ সদস্য হাফিজ ইব্রাহিম নিজ বাসায় অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন বলে অভিযোগ করেন। এদিকে অপর এক সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও বর্তমান সংসদ সদস্য আলী আজম মুকুল বিএনপি প্রার্থীর ’অবরুদ্ধ’ হয়ে পড়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

যুবলীগ-ছাত্রলীগ কর্মীরা বাড়ির চারপাশ ঘিরে রেখেছে জানিয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি প্রার্থী হাফিজ ইব্রাহিম বলেন, "পরিবারবর্গসহ এখন নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনা করতে নিরাপত্তা নিশ্চিত করছে না প্রশাসন। তাই তিনি বাড়ি থেকে বের হতে পারছি না ।" এসব বিষয় উল্লেখে করে রিটার্নিং অফিসার ও ইসি বরাবর ২৪ টি লিখিত অভিযোগ করলেও তারা কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেন না বলে অভিযোগ করেন হাফিজ।

তিনি আরও বলেন, "ঢাকা থেকে এলাকায় আসলে আওয়ামী লীগ কর্মীরা তার লঞ্চে হামলা চালিয়ে বিএনপি কর্মীদের মারধর করে। তিনি প্রশাসনের সহযোগিতায় বাসায় আসলেও কর্মীদের বাসা বাড়িতে হামলা চালায় প্রতিপক্ষের সমর্থকরা। এ ঘটনায় উল্টো ২টি মামলা দিয়ে তার ২শতাধিক কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।" সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মাফরুজা সুলতানা, কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক  দলের নেতা রফিকুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। 

অপরদিকে, আওয়ামী লীগ প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য আলী আজম মুকুল সংবাদ সম্মেলনে বলেন, "বিএনপি প্রার্থী হাফিজ ইব্রাহিমকে কেউ বাধা দেয়নি,  তার নির্দেশে ২০০১ সালের পর সাধারণ মানুষের ওপর নির্মম নির্যাতন করা হয়েছিল, যে কারণে মানুষ ক্ষুব্ধ হয়ে আছে, তিনি লোক লজ্জায় ঘর থেকে বের হচ্ছেন না। তিনি জনগণকে কি জবাব দেবেন,  সেই ভয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় নামছেন না । এ সময় এমপি মুকুল  ২০০১ সালের বিএনপি ক্ষমতার আমলে নির্যাতনের বিভিন্ন চিত্র তুলে ধরে বলেন, হাফিজ ইব্রাহিম বোরহানউদ্দিন দৌলতখানে সন্ত্রাস করেছেন, এমনকি তার দলের অনেক নেতাও তার হাত থেকে রক্ষা পায়নি।"

উল্লেখ্য, দুটি পৌরসভা, দুটি উপজেলা ও ১৮টি ইউনিয়ন নিয়ে ভোলা-২ আসন গঠিত। এখানে আ’লীগ, বিএনপি ও ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের ৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। প্রচারণায় এগিয়ে রয়েছে আ’লীগ।