নির্বিচারে ১৪ ইরাকিকে হত্যা, ব্ল্যাকওয়াটার সেনা দোষী সাব্যস্ত|112093|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২০ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৩:১৩
নির্বিচারে ১৪ ইরাকিকে হত্যা, ব্ল্যাকওয়াটার সেনা দোষী সাব্যস্ত
অনলাইন ডেস্ক

নির্বিচারে ১৪ ইরাকিকে হত্যা, ব্ল্যাকওয়াটার সেনা দোষী সাব্যস্ত

নিকোলাস স্লাটেনকে ‘ফার্স্ট-ডিগ্রি মার্ডারে’র দায়ে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে।

ইরাকের ১৪ জন নিরস্ত্র নাগরিককে হত্যার অভিযোগে কুখ্যাত ব্ল্যাকওয়াটার কোম্পানির একজন সেনাকে দোষী সাব্যস্ত করেছে মার্কিন আদালত। ২০০৭ সালে তাদের ওপর গুলি চালান তিনি। ওই ঘটনায় বিশ্বজুড়ে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

আলজাজিরা জানিয়েছে, ৩৫ বছর বয়সী নিকোলাস স্লাটেনকে ‘ফার্স্ট-ডিগ্রি মার্ডারে’র দায়ে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে।

ব্ল্যাকওয়াটার যুক্তরাষ্ট্রের একটি বেসরকারি সামরিক প্রতিষ্ঠান। ১৯৯৭ সালে সাবেক নেভি অফিসার এরিক প্রিন্স এটি প্রতিষ্ঠা করেন। পরে তিনি এটি বিক্রি করে দেন। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটি ‘একাডেমি’ নামে পরিচালিত হচ্ছে।

সরকারি কৌঁসুলিরা বলছেন, ২০০৭ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর বাগদাদের একটি ট্রাফিক সার্কেলের ভিড়ে স্লাটেন প্রথম গুলি চালান।

স্লাটেনকে কোনোভাবে প্ররোচিত কিংবা উসকানি দেওয়া হয়নি। প্রথমে তিনি ১৯ বছর বয়সী আহমেদ হায়তেমকে হত্যা করেন। মাকে নিয়ে তিনি বাইরে যাচ্ছিলেন। এরপর আরও ১৩ জন মারা যান যার মধ্যে ৯ এবং ১১ বছর বয়সী দুই ছেলেও ছিল। আহত হয় ১৮ জন।

ব্ল্যাকওয়াটারের পক্ষ থেকে প্রথমে বলা হয়, তারা আত্মঘাতী বোমার সন্ধানে ছিলেন। তখন পরিস্থিতি সামলাতে গুলি ছোড়েন। কিন্তু পরে কোনো ধরনের বিস্ফোরক সেখানে পাওয়া যায়নি।

ওই ঘটনার পরপরই বাগদাদ সরকার ব্ল্যাকওয়াটারের সঙ্গে তাদের চুক্তি বাতিল করে। ২০০৯ সালে প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ক্ষমতায় আসার পর মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে তাদের চুক্তি বাতিল করে।

স্লাটেনসহ আরও তিনজনকে ২০১৪ সালে আইনের আওতায় আনা হয়। কয়েক বছর মার্কিন আদালতে আইনি লড়াই চলে।

২০০৯ সালে এক মার্কিন আদালত ব্ল্যাকওয়াটার কর্মীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ বাতিল করে দেন। দুই বছর পর আপিল আদালত অভিযোগ পুনর্বহাল করে ওয়াশিংটনে বিচারের রাস্তা খুলে দেন।