ফাইনালে বসুন্ধরা|112246|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২১ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০
ফাইনালে বসুন্ধরা
ক্রীড়া প্রতিবেদক

ফাইনালে বসুন্ধরা

প্রথমে ঠেকালেন আবাহনীর ইমতিয়াজ সুলতান জিতুর শট। এবার গোল করলেই ফাইনালের লক্ষ্যপূরণ। এমন স্নায়ুক্ষয়ী মুহূর্তে সব চাপ যেন একাই নিতে চাইলেন তিনি। দূর থেকে সতীর্থদের জানালেন এই শটটা তিনিই নেবেন। এমন সাহসিকতায় তাকে থামানোর চেষ্টা করল না বসুন্ধরা শিবির। আস্থার প্রতিদান দিয়ে ঠিকই লক্ষ্যভেদ করলেন। আর তাতেই আরেকবার নায়কের আসনে বসুন্ধরা কিংস গোলকিপার আনিসুর রহমান জিকো। গতকাল স্বাধীনতা কাপের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে তার দৃঢ়তায় বসুন্ধরা কিংস সাডেন ডেথে ৭-৬ গোলে আবাহনী লিমিটেডকে হারিয়ে নাম লিখিয়েছে দুই দিন পিছিয়ে ২৬ ডিসেম্বর হতে যাওয়া ফাইনালে। যেখানে তাদের জন্য আগে থেকেই অপেক্ষায় শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র। ম্যাচের ৯০ মিনিট এবং অতিরিক্ত সময় ছিল ১-১ গোলে সমতা। গোলশূন্য প্রথমার্ধের পর ৭০ মিনিটে এগিয়ে যায় বসুন্ধরা। কোস্টারিকান দানিয়েল কলিনদ্রেসের ব্যাকপাস ধরে মাহবুবুর রহমান সফিল বাড়িয়ে দেন মতিন মিয়াকে। ছোট ডি-বক্স থেকে তার কোনাকুনি শট ঠেকানোর সাধ্য ছিল না আবাহনী গোলকিপার শহিদুল আলম সোহেলের। আবাহনী ম্যাচে ফিরেছে ৮২ মিনিটে। আফগান ডিফেন্ডার মাসিহ সাইঘানির লম্বা বলে হাইতিয়ান ফরোয়ার্ড কারভেন্স বেলফোর্ড দুর্দান্ত হেড জালে জড়ায়। অতিরিক্ত সময়ে সানডের দুটি প্রচেষ্টা ব্যর্থ হলে ম্যাচ গড়ায় টাইব্রেকারে। যেখানেও ছিল ৪-৪ সমতা। সাডেন ডেথের প্রথম দুই শট শেষে হয় ৬-৬। কিন্তু আবাহনীর জিতুর সরাসরি শট ফিরিয়ে আর সোহেলকে পরাস্ত করে ফের বসুন্ধরার নায়ক জিকো।