শিশুদের পরীক্ষা বিদায় করতে হবে|113136|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০
শিশুদের পরীক্ষা বিদায় করতে হবে
প্রতিদিন ডেস্ক

শিশুদের পরীক্ষা বিদায় করতে হবে

অধ্যাপক যতীন সরকার একজন প্রগতিবাদী চিন্তাবিদ ও লেখক। বহু বছর অধ্যাপনা করেছেন ময়মনসিংহের নাসিরাবাদ কলেজে। তার গ্রন্থসমূহ গভীর মননশীলতা ও মুক্ত চিন্তার স্বাক্ষর বহন করে। তার অসাধারণ বাগ্মিতা শ্রোতাদের নিবিষ্ট করে রাখে। ২০১০ সালে তাকে স্বাধীনতা দিবস পুরস্কার প্রদান করা হয়। আজ কথা অল্প বিভাগে মুখোমুখি তিনি

কোথায় আছেন, কেমন আছেন?

আমি তো নেত্রকোনায়ই বেশি থাকি। শরীরের অবস্থা এখন বেশি ভালো নয়। তাই নেত্রকোনার বাইরে সচরাচর যাই না। এখানেই আমার জন্ম।

নেত্রকোনায় দেখার মতো বিশেষ কী আছে?

নেত্রকোনায় দেখার মতো বিশেষ কিছু নেই। তবে সামগ্রিকভাবে নেত্রকোনা অনেক সুন্দর একটি এলাকা। বিশেষ করে বিরিশিরি দুর্গাপুর অনেক সুন্দর একটি এলাকা। পাহাড় আছে, পাহাড়ি মানুষ আছে। ওই এলাকায় পাহাড় আর আকাশের মিতালি দেখার মতো।

নেত্রকোনার শুদ্ধ বানান কী হবে?

অনেকেই নেত্রকোনা বানানটি লিখতে মূর্ধন্য (ণ) ব্যবহার করে। এর স্বপক্ষে তারা দাবি করেন, নেত্রকোনা লিখতে গিয়ে রবীন্দ্রনাথ মূর্ধন্য ব্যবহার করে ‘নেত্রকোণা’ লিখেছিলেন। কিন্তু কোনা বানানে কিছুতেই ‘ণ’ হতে পারে না। তখনকার সময়ে সংস্কৃত বানানের আধিপত্য ছিল। কিন্তু‘ এখন আধুনিক বানানে নেত্রকোনা লিখতে মূর্ধন্য ব্যবহারের কোনো যৌক্তিকতা দেখি না।

কী পড়ছেন আজকাল?

উপন্যাস আজকাল আর পড়া হয় না। কিছু প্রবন্ধ পড়ি মাঝে মাঝে। আসাদ চৌধুরীর কবিতা নিয়ে একটি প্রবন্ধ লিখতে হবে, তার কবিতা পড়ছি। আর ‘শনিবারের চিঠি’ নামে কলকাতা থেকে একসময় প্রবন্ধ সংকলন প্রকাশিত হতো। সেই প্রবন্ধগুলোও পড়ছি।

ঢাকায় আসবেন কবে?

নেত্রকোনার বাইরে যাওয়ার মতো শক্তি আমার আর নেই। ঢাকায় আমি আর যেতে চাই না। তবু কয়েক দিন আগে ‘মুক্ত বুদ্ধির চড়াই-উতরাই’ বইটির জন্য আমাকে ‘ব্র্যাক ব্যাংক সমকাল সাহিত্য পুরস্কার দেওয়া হয় এবং আমাকে জোর করেই ঢাকায় নিয়ে আসা হয়। দুজন মানুষকে সঙ্গে নিয়ে ট্রেনে চড়ে ঢাকায় এসেছিলাম। মানুষের সাহায্য ছাড়া আমি আর চলতে পারি না, ঢাকায় আসব কী করে?

নতুন প্রজন্মের পড়াশোনা কেমন হওয়া উচিত?

নতুন প্রজন্মের পড়াশোনার পরিবেশ এখন আর নেই। তাদের এখন পরীক্ষা আর পাঠ্যবইয়ের ভীষণ চাপ। মুক্ত পড়াশোনা তারা করবে কখন। এখন আবার যুক্ত হয়েছে মোবাইলে ফেইসবুক। যন্ত্র তো এমনিতেই পড়াশোনার অন্তরায়। যন্ত্রের যন্ত্রণা আমার ভালো লাগে না। যন্ত্র আমি বেশি বুঝিও না। যতদিন শিশুদের কাছ থেকে পরীক্ষাকে বিদায় করা না যায়, ততদিন তারা মুক্ত পড়াশোনা করতে পারবে না।